বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ওবায়দুল কাদেরের প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়া উচিত: মির্জা ফখরুল

আপডেট : ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ০৫:০৯ পিএম

একাদশ সংসদ নির্বাচনে 'ভোট চুরি' হয়েছে অভিযোগ এনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক, পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদরকে এ জন্য 'প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়া উচিত' বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

গত রোববার ওবায়দুল কাদের জানান, নতুন সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে আবারো রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসবেন। সোমবার সিলেট সফরে গিয়ে সরকারবিরোধী জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করে আসা মির্জা ফখরুল বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচন বাতিলের এজেন্ডা থাকলে ঐক্যফ্রন্ট সংলাপে যাওয়ার বিষয়টি ভেবে দেখবে।

এরপর নিজের আগের মন্তব্য থেকে সরে এসে সেতুমন্ত্রী সোমবার বলেন, সংলাপ নয় শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য রাজনৈতিক দলগুলোকে ডাকা হবে। মঙ্গলবারও ওবায়দুল কাদের দাবি করেছেন, সংলাপ হবে এমন কিছু তিনি বলেননি।

এর প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার ঢাকা মেডিকেল কলেজে  দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত যশোর যুবদলকর্মী ফয়সালকে দেখতে গিয়ে বিএনপি মহাসচিব সাংবাদিকদের বলেছেন, 'সরকার এত বড় একটা চুরি করেছে, সেই চুরি সামাল দিতে পারছে না। মাথায় প্রবলেম হচ্ছে। কাদের সাহেবকে গিয়ে বলেন প্রথমে স্টেডিয়ামে গিয়ে জাতির কাছে মাফ চাইতে।'

তিনি বলেছেন, ‘ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যাদের সঙ্গে নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী সংলাপ করেছেন, তাদের সঙ্গে তিনি আবার সংলাপে বসবেন ও চায়ের আমন্ত্রণ জানাবেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাতিলের এজেন্ডা থাকলে আমরা সংলাপে যাব, না হলে যাব না। এটাই ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির সিদ্ধান্ত।’

মির্জা ফখরুল আলমগীর বলেছেন, ‘সারাদেশ এখন হাসপাতালে পরিণত হয়েছে। ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের পর থেকে আওয়ামী লীগ প্রতিটি জেলায় অত্যাচার, নির্যাতন ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে।’

তিনি বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ ফাঁকা মাঠে গোল করার যে কৌশল নিয়েছিল, তা জাতির সামনে উঠে এসেছে। এই সরকারের লজ্জাশরম নেই। ক্ষমতাসীন সরকার একাদশ সংসদ নির্বাচনে এত বড় একটা চুরি করেছে যে তা এখন সামাল দিতে পারছে না।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘যশোরের যুবদলকর্মী ফয়সালকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। তার শরীরে আট ব্যাগ রক্ত দিতে হয়েছে। ক্ষমতা কী ভয়ংকর! মানুষকে আর মানুষ মনে হয় না তাদের। দেশের কোনো মানুষের মুখে হাসি নেই। নির্বাচন নিয়ে সবার বুকের মধ্যে কষ্ট।’

হাসপাতালে এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা অনিন্দ্য ইসলাম বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শায়রুল কবির খান প্রমুখ।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত