রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ভেদরগঞ্জে শিশু ধর্ষণের অভিযোগ, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:১০ পিএম

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলায় ইটভাটার শ্রমিকের ১০ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ ও ৮ বছরের অপর শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে এক বখাটেকে গ্রেপ্তার করেছে সখীপুর থানা-পুলিশ। দুটি শিশুকেই চকলেট ও বিস্কুটের লোভ দেখিয়ে এ ঘটনাটি ঘটায় স্থানীয় কাদির ভূঁইয়া নামে এক বখাটে।

গ্রেপ্তার কাদিরকে শরীয়তপুর কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছেন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষক তার অপকর্মের কথা স্বীকারও করেছে।

সখীপুর থানা ও শিশুদের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখীপুর থানার নরসিংহপুর ফেরি ঘাট এলাকার মেঘলা ব্রিকস নামে একটি ইট ভাটায় দীর্ঘ ৪ বছর ধরে কাজ করে আসছে ওই দুই শিশুর পরিবার। দুটি শিশুর পরিবারই কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার বাসিন্দা। ধর্ষণের শিকার শিশু দুটি প্রায়ই নরসিংহপুর ফেরি ঘাটের চায়ের দোকানদার ও একই গ্রামের ছবুউল্লাহ ভূঁইয়ার ছেলে কাদির ভূঁইয়ার (২৩) দোকানে চকলেট ও বিস্কুট কিনতে যেত।

গত সোমবার বিকেলে ইট ভাটার শ্রমিকের ১০ বছরের শিশু কন্যাকে চকলেট ও টাকার লোভ দেখিয়ে তার দোকানের পাশের একটি পরিত্যক্ত রুমে নিয়ে ধর্ষণ করে কাদির। এ সময় তার চিৎকার শুনে অপর  ৮ বছরের শিশু কন্যা এগিয়ে গেলে তাকেও ধর্ষণের চেষ্টা করে। বিষয়টি কাউকে জানালে তাদের দুজনকে মেরে ফেলার হুমকিও দেয় কাদির। ভয়ে শিশু দুটি পরিবারের কাছে কিছু বলেনি। এরপর মঙ্গলবার আবারও ১০ বছরের শিশুটিকে ধর্ষণ  করে কাদির। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওই শিশুটিকে আবারও ধর্ষণের চেষ্টা চালায় কাদির। তখন শিশু দু’জনেই তাদের পরিবারের কাছে ধর্ষণের কথা জানিয়ে দেয়।

খবরটি শুক্রবার এলাকায় জানাজানি হলে সখীপুর থানা-পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দুই পরিবারকে থানায় নিয়ে যায়। এ ঘটনায় কাদির ভূঁইয়াকে আসামি করে ধর্ষণের শিকার শিশুর বাবা বাদী হয়ে শনিবার সকালে সখীপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ এর ১ ও ৯/৪ এর খ ধারায় একটি মামলা দায়ের করে।

এ ঘটনার শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় সখীপুর থানা-পুলিশ ধর্ষক কাদির ভূঁইয়াকে নরসিংহপুর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ জানায় কাদির তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। এদিকে শিশু দুটিকে পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল ও ২২ ধারায় জবান বন্দী গ্রহণের জন্য আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সখীপুর থানা-পুলিশ।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এনামুল হক বলেন, ঘটনাটি জানতে পেরে শুক্রবার বিকেলে আমি শিশু দুটিকে ও তার পরিবারের লোকজনকে থানায় নিয়ে আসি। এক শিশুর বাবা বাদী হয়ে শনিবার সকালে কাদির ভূঁইয়াকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ এর ১ ও ৯/৪ এর খ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেছে। আমরা আসামি কাদির ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। সে ধর্ষণ ও ধর্ষণের চেষ্টার কথা স্বীকার করেছে। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত