মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ভুল প্রশ্নপত্রে এসএসসি: সংসদে পুনঃপরীক্ষা দাবি, শিক্ষামন্ত্রীর নাকচ

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৯:০৩ পিএম

একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের প্রথম দিন রোববার ভুল প্রশ্নপত্রে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষা পুনরায় নেয়ার দাবি উঠেছে। জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে জাতীয় পার্টির সদস্য ফখরুল ইমাম এ দাবি জানান।

তবে তার এ দাবি নাকচ করে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের খাতা ভিন্নভাবে দেখা হবে বলে জানান।

প্রশ্নোত্তর পর্বে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও জাতীয় পার্টির মুজিবুল হক চুন্নু বিষয়টি উত্থাপন করলে এর জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এসএসসি পরীক্ষায় যেসব নিয়মিত শিক্ষার্থী অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়েছে, তাদের খাতা ভিন্নভাবে দেখা হবে।

তিনি বলেন, যেন শিক্ষার্থীরা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। অন্যদিকে, যাদের ভুলের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তাদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ সময় ক্ষতিগ্রস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের খাতা ভিন্নভাবে দেখার বিষয়টিকে অনৈতিক আখ্যা দিয়ে নতুন করে পরীক্ষা নেয়ার দাবি জানান ফখরুল ইমাম।

এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যে সিলেবাসটি ভিন্ন সেই সিলেবাসের বিষয় কিন্তু ভিন্ন নয়। একই বিষয় সিলেবাসে খানিকটা ভিন্নতা আছে। কাজেই সেই প্রশ্নের মধ্যে প্রতিটি প্রশ্ন তার সিলেবাসের বাইরের না। খুব অল্প জায়গায় ভিন্নতা আছে।

তিনি বলেন, পুরোটা ভিন্ন বিষয় নয়। তার থেকেও বড় কথা, যেখানে ভুল ঘটেছে সেখানে আপনার কাছে ক্ষতিপূরণ কী আছে? এক হতে পারে এ পরীক্ষা যারা দিতে পারেনি তাদের বাতিল করে দিয়ে আবার একটি পরীক্ষা নিতে হবে। সেই ক্ষেত্রেও তো একই প্রশ্নে পরীক্ষা দিতে পারছে না।

শনিবার  এসএসসির বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষায় চট্টগ্রাম, জামালপুর, নওগাঁ, শেরপুর, সাতক্ষীরা, মুন্সিগঞ্জ, গাইবান্ধা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, বাগেরহাট ও মাদারীপুরে মোট ১৮ কেন্দ্রে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের ভুল প্রশ্নপত্র দেওয়া হয়। এসব প্রশ্নপত্র ছিল পুরোনো সিলেবাসের ভিত্তিতে অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের জন্য। কোথাও কোথাও প্রশ্নপত্র পরিবর্তন করে পরীক্ষা নেয়া হলেও অনেক জায়গায় ভুল প্রশ্নপত্রেই পরীক্ষা নেয়া হয়।

 

সম্পূরক প্রশ্নে মুজিবুল হক চুন্নু জানতে চান, শনিবার এসএসসি পরীক্ষায় দেশের কয়েকটি স্থানে নিয়মিত ছাত্র-ছাত্রীদের অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্র দিয়ে পরীক্ষা নেয়ার ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে যাদের ভুলে ঘটনাটি ঘটল তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং পরীক্ষার্থীদের বিষয়ে কী বিবেচনা করা হবে?

এর জবাবে ডা. দীপু মনি বলেন, প্রশ্নপত্র যখন যায় তখন নিয়মিতদের জন্য এবং অনিয়মিতদের জন্য আলাদাভাবে যায়। নির্দেশনা থাকে নিয়মিত এবং অনিয়মিতরা ভিন্ন জায়গায় বসবেন যাতে সহজেই তাদের জন্য যে প্রশ্নটি সেটি দেওয়া যায়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে দেখা গেছে, যে কেন্দ্রগুলোতে সমস্যা হয়েছে সেখানে কেন্দ্র সচিবদের ভুলের কারণে কিংবা কেন্দ্রের কক্ষে সংশ্লিষ্ট আরও যারা ছিলেন তাদের ভুলে ঘটনাটি ঘটেছে। আমরা ইতোমধ্যেই সেসব কেন্দ্রগুলো চিহ্নিত করেছি।

তিনি বলেন, যারা নিয়মিত পরীক্ষার্থী কিন্তু অনিয়মিতদের প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়েছেন তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। কাজেই তাদের খাতা একদম ভিন্নভাবে দেখা হবে। যেন তারা কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে, যাদের ভুলে ঘটনাটি ঘটেছে ইতোমধ্যে তাদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং তদন্ত কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

একই ধরনের সমস্যা আর কোথাও হবে না বলেও আশা প্রকাশ করেন শিক্ষামন্ত্রী।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত