সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

যুক্তরাষ্ট্রে ১২৯ ভারতীয় শিক্ষার্থীর গ্রেপ্তারে ক্ষুব্ধ দিল্লি

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০:৩৬ পিএম

যুক্তরাষ্ট্রের একটি ভূয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া ১২৯ জন ভারতীয় শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তারে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে দিল্লি। স্টুডেন্ট ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে থাকতে ইচ্ছুক বিদেশিদের ধরতে ২০১৫ সালে মাঠে নামে দেশটির গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

অস্তিত্বহীন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে আসা এসব শিক্ষার্থীদের আটক করতে খোলা হয় ডেট্রয়েট ফার্মিংটন হিলস নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয়। গত সপ্তাহে ওই ভূয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিযান চালিয়ে ১২৯ জন ভারতীয়কে গ্রেপ্তার করা হয়।

বিবিসি জানায়, ওই শিক্ষার্থীদের গ্রেপ্তারের ঘটনায় গত শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছে দিল্লি কর্তৃপক্ষ। তবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রসিকিউটরদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয় অবৈধ সে কথা জেনেই সেখানে ভর্তি হয়েছে ভারতীয় শিক্ষার্থীরা।

কিন্তু ভারতীয় কর্মকর্তাদের দাবি, শিক্ষার্থীদেরকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলা হয়েছে। শনিবার ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তর দিল্লিতে মার্কিন দূতাবাস বরাবর একটি ‘প্রতিবাদলিপি’পাঠায়। সেখানে ১২৯ ভারতীয় শিক্ষার্থীকে কনস্যুলার সুবিধা দেওয়ার দাবি জানানো হয়।

প্রতিবাদলিপিতে আরও বলা হয়, ‘ঘটনার বিস্তারিত ও শিক্ষার্থীদের নিয়মিত তথ্যগুলো সরকারকে জানানো, যতো দ্রুত সম্ভব তাদেরকে বন্দিদশা থেকে মুক্তিপ্রদান এবং তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে বিতাড়নের পথ অবলম্বন না করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষের প্রতি আমরা আহ্বান জানাচ্ছি।’

ভারতে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের পক্ষ থেকে দিল্লির প্রতিবাদলিপি পাওয়ার কথা নিশ্চিত করলেও এ ব্যাপারে কোনও প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি।

ফার্মিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে আন্ডারগ্রাজুয়েটদের জন্য বছরে ৮,৫০০ ডলার এবং গ্রাজুয়েট শিক্ষার্থীদের জন্য বছরে ১১ হাজার ডলার ফি ধরা হয়। ওই বিজ্ঞপ্তিতে একটি ভুয়া ফেসবুক পেজের ছবিও দেওয়া হয়েছিল।

গত সপ্তাহে আদালত থেকে প্রকাশিত কাগজপত্র থেকে জানা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন ও শুল্কবিষয়ক সংস্থার গোয়েন্দারাই বিশ্ববিদ্যালয়টির কর্মী সেজে আছেন। এর আগে নিউ জার্সিতে ভুয়া নর্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পর ২০১৬ সালে সেখান থেকে ২১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত