শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সোহাগের স্বীকারোক্তি

বিয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ায় মুক্তাকে হত্যা করা হয়

আপডেট : ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:৪৮ পিএম

বিয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ায় প্রতিশোধ নিতেই ঝালকাঠির কলেজছাত্রী মুক্তাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। গত বৃহস্পতিবার রাতে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার চাকামইয়া গ্রামের ফুপুর বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করার পরে হত্যাকারী সোহাগ (২১) পুলিশের কাছে এ স্বীকারোক্তি দিয়েছে। গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টায় সংবাদ সম্মেলন করে ঝালকাঠি জেলা পুলিশ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানায়। সোহাগ একই উপজেলার নিশানবাড়িয়া গ্রামের আবদুস সোবহান মীরার ছেলে।

ঝালকাঠির পুলিশ সুপারের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে সোহাগের বরাত দিয়ে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের জানান, মোবাইল ফোনের মাধ্যমেই মুক্তার সঙ্গে সোহাগের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সোহাগ ছাড়াও কলেজছাত্রী মুক্তার সঙ্গে একাধিক তরুণের একই সময় প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। সোহাগ অশিক্ষিত এবং একটি পলিথিনের ফ্যাক্টরিতে কাজ করে। এ জন্য মুক্তা সোহাগকে বিয়ে করবে না বিষয়টি বুঝতে পেরে সোহাগ ওই ছাত্রীকে বিয়ে করার জন্য প্রস্তাব দেয়। কিন্তু মুক্তা সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়। আর এতে ক্ষিপ্ত হয়েই পূর্বপরিকল্পনামতো বেনজির জাহান মুক্তাকে চাকু দিয়ে গলা কেটে খুন করে পালিয়ে যায় প্রেমিক সোহাগ।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার দুপুরে কলেজ থেকে বাড়ির ফেরার পথে ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার বারইকরণ গ্রামের কাপুড়িয়া বাড়ি এলাকায় ঝালকাঠি সরকারি মহিলা কলেজের ¯œাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী বেনজির জাহান মুক্তাকে হত্যা করা হয়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত