বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ফেব্রুয়ারির তিন দিবস

অর্ধকোটি টাকার ফুল বিক্রির আশা মাগুরার ফুলচাষিদের

আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:৩৩ এএম

চলতি ফেব্রুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসসহ তিনটি দিবস পালিত হবে। এ দিবসগুলো ঘিরে মাগুরা সদর উপজেলার বেলনগর গ্রামের ‘জারবেরা ও গ্যালোরিয়া’ ফুলচাষিদের ব্যস্ততা বেড়েছে। আবহাওয়া অনুকূল থাকায় এবার এসব দিবসে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ফুল বিক্রি হবে বলে আশা করছেন ফুল চাষের সঙ্গে সম্পৃক্তরা।

ফুলচাষিরা জানান, বছরের অন্য সময়ের তুলনায় ফেব্রুয়ারি মাসে ফুলের চাহিদা বেশি থাকে। এ মাসের ১৩ তারিখ পয়লা ফালগুন, ১৪ তারিখ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস ও ২১ তারিখ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হবে। এসব দিবসে শুভেচ্ছা ও শ্রদ্ধা জানাতে ফুল এখন অত্যাবশ্যকীয় অনুষঙ্গ। তাই এসব দিবসকে ঘিরেই মূলত ফুল বেচাকেনা হয়। এসব দিবসে ফুলের চাহিদা বাড়ায় দামও বেশি পাওয়া যায়।

বাগান কর্মচারী আছাদুল ইসলাম বলেন, ‘পাঁচ বছর ধরে বেলনগর গ্রামে প্রায় ছয় একর জমিতে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষ শুরু হয়েছে এ ফুলের। আমাদের বাগান থেকে প্রতিদিন দুই হাজার ফুল তোলা হয়। তারপর পাতলা পলিথিনের টোপর দিয়ে প্রস্তুত করা হয় ফুলগুলো। এরপর ঢাকার আগারগাঁওয়ে পাঠানো হয়। প্রতিদিনের ফুল প্রতিদিনই পাঠানো হয়। গ্যালোরিয়া ও জারবেরা ফুলের একেকটি স্টিক বিক্রি হয় ১২-১৫ টাকায়। সারা বছর ফুল বিক্রি হলেও এ মাসের তিনটি দিবসকে সামনে রেখে এখান থেকে কমপক্ষে অর্ধকোটি টাকার ফুল বিক্রি হবে বলে আশা করা হচ্ছে।’

বাগানের নারী কর্মচারী কাকলী বলেন, ‘দুই বছর ধরে এখানে কাজ করছি। এখানের উপাজিত অর্থ দিয়ে আমার সংসার চলে।’

বেলনগর গ্রামের বাগান মালিক সেলিম মিয়া জানান, তিনি দুই একর জমিতে ‘জারবেরা ও গ্যালোরিয়া’ ফুলের বাগান করেছেন। ‘জারবেরা ও গ্যালোরিয়া’ ফুল দেখতে খুবই আকর্ষণীয়। প্রথমে মিয়ানমার থেকে এ ফুলের বীজ সংগ্রহ করে চারা উৎপাদনের পর এক একর জমিতে শুরু হয় এর চাষ। ‘গ্যালোরিয়া ও জারবেরা’ ফুলটি ১৮টি রং নিয়ে ফোটে। রং ও বৈচিত্র্যের কারণে ফুলটি সবার নজর কাড়ে। এ ফুল সব ঋতুতে চাষ করা যায়।

বাগান মালিক আজিজ জানান, ‘জারবেরা ও গ্যালোরিয়া’ ফুল চাষে রাসায়নিক সার ব্যবহারের প্রয়োজন হয় না। রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে এ ফুলের কদর বেশি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত