বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩ চেয়ারম্যান বগুড়ায় ১৩৬ প্রার্থী

আপডেট : ০১ মার্চ ২০১৯, ১১:৩৬ পিএম

প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় বগুড়ার তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা। এ কারণে আগামী ১৮ মার্চ অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে শেরপুর, আদমদীঘি ও সোনাতলা উপজেলায় শুধু ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট গ্রহণ হবে। গত বৃহস্পতিবার প্রতীক বরাদ্দের দিন ওই তিন উপজেলায় আর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় তাদের বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। নির্বাচিতরা হলেন শেরপুর উপজেলায় বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজনু, আদমদীঘিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম খান রাজু এবং সোনাতলায় বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মীনহাদুজ্জামান লিটন। বগুড়ার জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুব আলম শাহ্ জানান, গত বুধবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময়সীমা শেষ হওয়ার পর বগুড়ার ১২ উপজেলায় প্রার্থীর সংখ্যা ছিল ১৩৯ জন। এর মধ্যে তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। ফলে প্রার্থী দাঁড়ায় ১৩৬ জন। এর মধ্যে ৯ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে লড়বেন ৪০ জন। আর ১২ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৯ জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৭ জন শেষ পর্যন্ত ভোটের লড়াইয়ে থাকছেন। তাদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে। সূত্র জানায়, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষদিন পর্যন্ত চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী হওয়ায় আদমদীঘি উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম খান রাজুর নির্বাচিত হওয়া শুরুতেই নিশ্চিত হয়ে যায়। শেরপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদের তিন প্রার্থীর মধ্যে বাছাইয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল হয় বিএনপি নেতা জানে আলম খোকার। তিনি প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপিল করেননি। অন্য দুই প্রার্থীর মধ্যে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আবদুন নূর গত ২৪ ফেব্রুয়ারি তার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেন। ফলে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিবর রহমান মজনু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। সোনাতলা উপজেলার দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে বিএনপি নেতা জিয়াউল হক লিপনের মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিনে বাতিল ঘোষণা করা হয়। তিনি আপিল করেও মনোনয়ন ফিরে পাননি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত