রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ভিড়ের চাপে ভেন্যু পরিবর্তন অরুন্ধতির অনুষ্ঠানের

আপডেট : ০৫ মার্চ ২০১৯, ১২:২৩ এএম

এশিয়ার মর্যাদাপূর্ণ আলোকচিত্র উৎসব ছবি মেলায় অংশ নিতে ঢাকায় এসেছেন ভারতীয় লেখিকা অরুন্ধতী রায়। তার অনুষ্ঠানে দর্শকদের চাপে পরিবর্তন করতে হয়েছে ভেন্যু।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটে ‘অ্যাটমোস্ট এ্যাভরিথিং’ শীর্ষক আলোচনায় অংশ নেবেন অরুন্ধতী রায়। এর আগে এ অনুষ্ঠানের স্থান ছিল ছায়ানট। ছবিমেলা সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, এ পর্বটিতে অনলাইন নিবন্ধনের মাধ্যমে অংশ নেয়া যাবে (http://www.chobimela.org/event-registration)

ছবি মেলার আয়োজকেরা জানান, দর্শকের চাপে ভেন্যু পরিবর্তন করতে হয়েছে। এমনকি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে স্থান সংকুলান না হলে বাইরে স্ক্রিনে অরুন্ধতির ব্ক্তৃতা প্রচার হবে।

ঢাকার ধানমণ্ডির একাধিক ভেন্যুতে চলছে ‘ছবি মেলা’। এবারের আয়োজনে রয়েছে ২১টি দেশের ৪৪জন শিল্পীর কাজ নিয়ে ৩৩টি প্রদর্শনী। এছাড়া বিশ্বজুড়ে থাকা বিশিষ্ট আলোকচিত্র অনুশীলনকারীদের নিয়ে বিভিন্ন বিষয়বস্তুর উপর ভিত্তি করে রয়েছে ৮টি কর্মশালা। বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া এই উৎসব চলবে ৯ মার্চ পর্যন্ত।

এদিকে ছবি মেলার অংশ হিসেবে সোমবার সকালে গ্যাটে ইন্সটিটিউটে অনুষ্ঠিত হয় ‘করোটোরাল কনসার্ন: দ্য আর্কাইভ ইন কনটেমপোরারি প্র্যাক্টিস’ শীর্ষক আলোচনা। এতে দিল্লির আলকাজি ফাউন্ডেশন ফর দ্য আর্টসের রাহাব অ্যালেনা বক্তব্য উপস্থাপন করেন। এরপর একটি প্যানেল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। যার বিষয়বস্তু ছিল- ‘ব্যালেন্সিং পাওয়ার: ইন্সটিটিউশন, ইনভলবমেন্ট এন্ড ইনফ্লুয়েন্স’। এতে অংশ নেন ভারতীয় ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক অনুহিতা মজুমদার, এশিয়া-ইউরোপ ফাউন্ডেশনের সংস্কৃতি বিভাগের পরিচালক (এএসইএফ) অনুপমা শেখর, বাংলাদেশি স্থপতি মেরিনা তাবাসসুম এবং ফ্রিল্যান্স সাংস্কৃতিক সাংবাদিক হাদ্রিন ডিয়েজ।

এদিন বিকেলে গ্যাটে ইন্সটিটিউটে আরো তিনটি আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায়, 'দ্য আর্থ আইস ক্লোজিং অন আস: রোহিঙ্গা রেফিউজিস ইন এক্সাইল' শীর্ষক একটি উপস্থাপনা তুলে ধরেন সরকার প্রতীক এবং মুনেম ওয়াসিফ। এছাড়া এদিন শিল্পী আলাপনে অংশ নেন ডাচ ফটোগ্রাফার জন ব্যানিং।

উৎসব আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এবারের ছবি মেলার ‘ট্রেডমার্ক’ হয়ে উঠা রিকশাভ্যানে করে ভ্রাম্যমান প্রদর্শনী ইতিমধ্যেই ঘুরে বেড়াচ্ছে ঢাকা শহরের সর্বত্র, আনাচে-কানাচে, পাঠ্য স্বাক্ষরতার নিচে থাকা মানুষের মতামতের মাধ্যম তৈরি করে দিতে পৌঁছে যাচ্ছে সকলের কাছে।

এবারের উৎসব সর্বসাধারণের সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে বিনামূল্যে রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে রয়েছে সকলের প্রবেশের জন্য উন্মুক্ত।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত