শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

পর্তুগালে আশ্রয়ে আফগান নারী ফুটবলাররা, রোনালদোর দেখা পাওয়ার স্বপ্ন

আপডেট : ০১ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩৪ পিএম

তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর সে দেশের যুব নারী দলের ফুটবলারদের কয়েকজন সপরিবারে পর্তুগালে আশ্রয় নিয়েছেন। তাদের একজন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে দেখা হওয়ারও স্বপ্ন দেখছে।

আগস্টের মাঝামাঝি তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে। এরপর তারা জানিয়ে দেয়, মেয়েদের হয়ত খেলাধুলা করার অনুমতি দেওয়া হবে না, কারণ, তারা মনে করে এটি ‘প্রয়োজনীয় নয়’ এবং এতে তাদের মুখ ও শরীর ঢাকা থাকবে না। তাই সে দেশের যুব নারী দলের ফুটবলারদের কয়েকজন পরিবারসহ ১৯ সেপ্টেম্বর পর্তুগালে চলে যান। মোট ৮০ জন পর্তুগাল গেছেন। তাদের মধ্যে বাচ্চাও আছে। পর্তুগাল তাদের আশ্রয় দিয়েছে।

আফগানিস্তানের নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক ফারখুন্দা মুহতাজ ঐ ফুটবলারদের পর্তুগালে নেয়ার ব্যবস্থা করেন। মুহতাজ নিজে ক্যানাডায় থাকেন। সেখানে তিনি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুটবল দলের সহকারি কোচ। বুধবার রাতে তিনি ফুটবলারদের সঙ্গে দেখা করতে লিসবন গিয়েছিলেন।

তরুণী ফুটবলাররা মুহতাজকে কাছে পেয়ে জড়িয়ে ধরেন। কেউ কেউ চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। মুহতাজ জানান, ‘তারা তাদের ভালোবাসার খেলাটি খেলতে পারবে এ বিষয়টি নিশ্চিত করতে আমরা এই পদক্ষেপ (আফগানিস্তান থেকে নারী ফুটবলারদের সরিয়ে আনা) নিয়েছিলাম’।

পর্তুগালে পৌঁছানো ফুটবলারদের একজন ১৫ বছর বয়সি সারাহ। দেশ ছাড়তে কষ্ট হলেও পর্তুগালে গিয়ে তিনি নিজেকে নিরাপদ ভাবছেন। সম্ভব হলে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে দেখা করতে চান তিনি। রয়টার্সকে সে বলেছে, ‘এখন আমি মুক্ত। আমার স্বপ্ন রোনালদোর মতো একজন ভালো খেলোয়াড় হওয়া। পাশাপাশি পর্তুগালে একজন বড় ব্যবসায়ী হতে চাই’।

সারাহর আশা, একদিন আবার তিনি মাতৃভূমিতে ফিরে যাবেন। তবে অবশ্যই সেখানে মুক্ত ও স্বাধীনভাবে বসবাস করার অধিকার পাওয়া গেলে তবেই। তার মা অবশ্য আফগানিস্তানে ফেরার তেমন কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না, কারণ, আফগানিস্তানে আগেও তালেবানের শাসন দেখেছেন তিনি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত