বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সামান্থার ডিভোর্সের নেপথ্যে আমির খান! দাবি কঙ্গনার

আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫২ পিএম

গত কয়েকমাস ধরে চলা গুঞ্জনকে সত্য করে ভারতের দুই দক্ষিণী তারকা সামান্থা আক্কিনেনি ও নাগা চৈতন্য শনিবার ডিভোর্সের ঘোষণা দিয়েছেন।

অভিযোগ উঠেছে, নাগা চৈতন্যের বাবা দক্ষিণী সিনেমার সুপারস্টার নাগাজুর্নের আপত্তিতে সামান্থা-চৈতন্যের সংসার ভেঙেছে। রূপালি পর্দায় সামান্থার উপস্থিতি অনেক বেশি খোলামেলা বলে অভিযোগ চৈতন্যের বাবার। 

কিন্তু বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের মতে, সুপারস্টার আমির খানের কারণেই নাকি সামান্থা-চৈতন্যের সংসার ভেঙেছে।

মি. পারফেক্টশনিস্টকে মোটেই পছন্দ করেন না কঙ্গনা। যে কোনো বিষয়ে আমিরকে জড়িয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করতে ছাড়েন না তিনি। আমিরকে বলিউডের ‘ডিভোর্স এক্সপার্ট’ বলে আখ্যা দেন তিনি।

আমির খানের ‘লাল সিং চাড্ডা’ সিনেমা দিয়ে বলিউডে অভিষেক ঘটতে চলেছে নাগা চৈতন্যের। যে কারণে আমিরের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে নাগার।

সেদিকে ইঙ্গিত করে নিজের ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে সামান্থা-চৈতন্যের বিচ্ছেদের কারণ জানিয়েছেন কঙ্গনা। তিনি জানিয়েছেন, আমির খানের সঙ্গে মিশেই সামান্থাকে ডিভোর্স দিয়েছেন নাগা চৈতন্য। 

লিখেছেন, ‘দক্ষিণের এই অভিনেতা যে নিজের ৪ বছরের বিবাহিত জীবন ভাঙতে চলেছেন তা সম্প্রতি বলিউডের এক ডিভোর্স এক্সপার্ট সুপারস্টারের সংস্পর্শে আসার পরেই, যে নিজেও অনেক নারী ও বাচ্চার জীবন নষ্ট করেছে… অন্ধ না হলে আমরা সহজেই বুঝে নিতে পারব কার কথা বলা হচ্ছে।’

ডিভোর্সে সব সময় পুরুষদেরই দোষ থাকে জানিয়ে কঙ্গনার বক্তব্য, হাজারের মধ্যে একজন নারীর ভুল হতে পারে।

তিনি লেখেন, ‘ওই সমস্ত স্পয়েল ব্র্যাটদের লজ্জা হওয়া উচিত যারা মিডিয়া আর অনুরাগীদের থেকে উৎসাহ পেয়ে ডিভোর্স দেয়… যতদিন যাচ্ছে ডিভোর্স কালচার বাড়ছে।’

ওদিকে, সামান্থা রুথ প্রভু এবং নাগা চৈতন্য শনিবার তাদের বিচ্ছেদের ঘোষণা দেওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরেই, অভিনেতার বাবা এবং দক্ষিণী তারকা নাগার্জুন টুইটারে এক বিবৃতিতে বলেন, ‘সামান্থা এবং চৈতন্যের মধ্যে যা ঘটেছে তা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক’ এবং এটি তাদের ‘ব্যক্তিগত ব্যাপার’।  তার টুইটে লেখা ছিল, ‘ভারাক্রান্ত হৃদয় নিয়ে, আমি এটা বলি- স্যাম এবং চ্যা এর মধ্যে যা কিছু ঘটেছে তা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। একজন স্ত্রী এবং স্বামীর মধ্যে যা ঘটে তা খুবই ব্যক্তিগত। স্যাম এবং চ্যা, দুজনেই আমার কাছে প্রিয়। আমার পরিবার সবসময় স্যামের সঙ্গে কাটানো মুহুর্তগুলো লালন করবে এবং তিনি সবসময়ই আমাদের কাছে প্রিয় থাকবেন। ঈশ্বর তাদের দুজনকেই শক্তি দান করুন’।

নাগা চৈতন্য তার প্রথম স্ত্রী লক্ষ্মী দগ্গুবতীর গর্ভের সন্তান। ১৯৯০ সালে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদের পর, নাগার্জুন ১৯৯২ সালে অভিনেত্রী অমলাকে বিয়ে করেন। তাদের ছেলে অখিলও একজন অভিনেতা।

সামান্থা এবং নাগা চৈতন্য, যারা চার বছরেরও বেশি সময় ধরে বিবাহিত ছিলেন, গতকাল সোশ্যাল মিডিয়ায় এক বিবৃতি দিয়ে বিচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছেন।

নাগা চৈতন্য এবং সামান্থা রুথ প্রভু দক্ষিণ ভারতে ২০১৭ সালে খ্রিস্টান রীতি অনুযায়ী বিয়ের আগে প্রায় এক দশক ধরে প্রেম করেন।

সামান্থা রুথ প্রভু এবং নাগা চৈতন্য মাজিলি, মানাম, অটোনগর সূর্য এবং ইয়ে মায়া চেসভের মতো কয়েকটি ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছেন। এসব ছবিতে অভিনয়ের মধ্য দিয়েই সামান্থার অভিনয় জীবনের শুরু হয়।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত