সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

গ্যাস সিলিন্ডার দুর্ঘটনায় নারী-শিশুসহ নিহত চার

আপডেট : ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৭:১৪ এএম

গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এবং আগুন লেগে ঢাকা ও গাজীপুরে শিশুসহ চারজন নিহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানী ঢাকার ভাটারায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন এক দম্পতি। আর গাজীপুরের নলজানি এলাকায় সিলিন্ডার লিকেজ হয়ে আগুন লেগে দগ্ধ এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। আর জেলার ইটাহাটা এলাকায় সিলিন্ডারের আঘাতে নিহত হয়েছে এক শিশু।

গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ভাটারার সাঈদনগরে একটি ভবনের তৃতীয় তলার একটি ফ্ল্যাটে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে স্বামী-স্ত্রী নিহত হয়েছেন। নিহত আব্দুল মজিদ শিকদার (৭২) ও তাসলিমা আক্তার (৪৭) ওই ফ্ল্যাটে বসবাস করতেন। তাদের দুই ছেলে ইতালি প্রবাসী।

প্রতিবেশীরা জানান, ভোর সাড়ে ৫টার কিছু আগে হঠাৎ করেই বিস্ফোরণের আওয়াজ পান তারা। জানালা দিয়ে পাশের ভবন থেকে আগুন জ্বলতে দেখেন তারা। পরে তারা এসে ওই বাড়ির দরজার দীর্ঘ সময় ধাক্কাখাক্কি করেন। এক পর্যায়ে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে দেখতে পান দুজনই আগুনে ঝলসে গেছেন। খবর দিলে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মরদেহ নিয়ে যায়। ফায়ার সার্ভিস ও ভাটারা থানা পুলিশের ধারণা, গ্যাস সিলিন্ডারে লিকেজ থেকে ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

ভাটারা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. রফিকুল হক জানান, ঘটনার সময় স্বামী ও স্ত্রী ছাড়া বাসায় আর কেউ ছিল না। তাদের দুই ছেলে পরিবার নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরেই ইতালিতে বসবাস করছেন। দুজনের মরদেহ রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে গাজীপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, জেলায় গ্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে অগ্নিকাণ্ডে এক ট্রাফিক সার্জেন্টের স্ত্রী নিহত হয়েছেন। গতকাল বেলা ১১টার দিকে গাজীপুর মহানগরীর নলজানি এলাকায় রান্না ঘরের গ্যাস সিলেন্ডারের লিকেজ থেকে অগ্নিকান্ডে দগ্ধ হয়ে ফারজানা হক ওরফে কচি (৩৩) নামের ওই নারী নিহত হন। তিনি গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উত্তর বিভাগের ট্রাফিক সার্জেন্ট হিসেবে কর্মরত মো. শাহনেওয়াজের স্ত্রী।

তাদের গ্রামের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার লাউঘাটা গ্রামে।

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, নলজানি এলাকায় প্লাটিনাম টাওয়ার নামের ৯তলা একটি ভবনের ৮ তলায় স্ত্রী ফারজানা হককে নিয়ে ট্রাফিক সার্জেন্ট মো. শাহনেওয়াজ বসবাস করেন। ফারজানা হক বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে রান্না ঘরে কাজ করতে গেলে গ্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে অগ্নিকা-ের সৃষ্টি হয়। এ সময়ে তার শরীরের জামাকাপড়ে আগুন ধরে যায়। খবর পেয়ে গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভায়। তবে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফিন জানান, বাসায় তিনি ছাড়া অন্য কেউ ছিলেন না। ধারণা করা হচ্ছে, গ্যাস সিলিন্ডার থেকে লিকেজ হয়ে রান্না ঘরে গ্যাস জমে ছিল। তিনি যখন রান্নার জন্য চুলায় আগুন জ্বালানোর চেষ্টা করেন, তখনই ঘরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এতে তিনি অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান।

অপরদিকে গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গাজীপুর মহানগরীর ইটাহাটা এলাকায় একটি সোয়েটার ফ্যাক্টরির নতুন ফ্লোরের কাজ চলার সময় রাস্তার পাশে রাখা গ্যাস সিলিন্ডারের আঘাতে আয়েশা সিদ্দিকা (৩) নামে এক শিশু নিহত হয়েছে। নিহতের দাদা মো. সোলায়মান জানান, তিনি পরিবার নিয়ে ইটাহাটা এলাকার আবুল হোসেন মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকেন। রাস্তার পাশে রাখা গ্যাস সিলিন্ডারের আঘাতে তার নাতনির মৃত্যু হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত