শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

শিক্ষাঙ্গনকে কলুষিত করেছে ছাত্রলীগ: এবি পার্টি

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৫৯ পিএম

এবি পার্টির নেতারা বলেছেন, খুন, ধর্ষণ, চাঁদাবাজির মাধ্যমে সরকারি ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগ শিক্ষাঙ্গনকে প্রতিনিয়ত নিজেদের ক্ষমতার লীলাভূমি বানিয়েই ক্ষান্ত হয়নি, শহীদ আবরারের মতো বহু মেধাবী ছাত্রকে হত্যা করে শিক্ষাঙ্গনকে কলুষিত করেছে। স্বাধীন বাংলাদেশ অর্জনে যে ছাত্রলীগ নেতৃত্বের ভূমিকায় ছিল সেই ছাত্রলীগের রাজনীতিকে এখন জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে ঘৃণা করা শুরু করেছে। যে সন্ত্রাস নির্ভর রাজনীতির কারণে আবরার ফাহাদের মতো মেধাবীদের নৃশংসভাবে খুন হতে হয় সেই পেশী শক্তির রাজনীতি জনগণ চায় না।

আজ সোমবার পবিত্র রমজানের ২১তম দিনে গণইফতার কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিজয় নগরস্থ বিজয়-৭১ চত্বরে অনুষ্ঠিত সমাবেশে তিনি একথা বলেন।

বক্তারা বলেন, ভারতের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী পোস্ট দেওয়ার কারণে বাংলাদেশের সবচেয়ে মেধাবী শিক্ষার্থীদের ক্যম্পাস বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদকে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী নেতারা রাতভর পিটিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে। যার ফলে বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ রাখে প্রশাসন। আজ হাইকোর্টে আবেদন করে আবার ছাত্র রাজনীতি করার আদেশ নিয়েছে ছাত্রলীগ। বিচার বিভাগ নিয়ে জনগণ কথা বলতে পারে না, কিন্তু রাজনৈতিক বিষয় যারা বিচারালয়ে নিয়ে এসে পুরো পরিবেশকে কলুষিত করছে তাদের বিরুদ্ধে জনগণকে রাজনৈতিকভাবেই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। ছাত্র রাজনীতির নামে আবরারের মতো আর কোনো মেধাবীর নৃশংস হত্যাকাণ্ড জনগণ বরদাশত করবেনা বলে হুঁশিয়ারি জানান এবি পার্টির নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন এবি পার্টির যুগ্ম আহ্বায়ক প্রফেসর ডা. মেজর (অব.) আব্দুল ওহাব মিনার। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আব্দুল হালিম খোকনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মহাসচিব ও সাবেক সংসদ সদস্য আহসান হাবীব লিংকন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন এবি পার্টির যুগ্ম আহ্বায়ক, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম, মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আলতাফ হোসাইন, বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক রফিকুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শাহজাহান ব্যাপারী ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সদস্য সচিব আহমেদ বারকাজ নাসির।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আহসান হাবীব লিংকন বলেন, রমজান মাসব্যাপী দেশের দুঃখী মানুষের জন্য গণইফতারের আয়োজন করেছে, আমি অভিভূত। যখন পত্রিকার পাতায় খুললেই দুঃসংবাদ চোখে পড়ে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ষণ, সিলেট এমসি কলেজে ধর্ষণ, মানুষের বাড়ি দখল, জনগনের সম্পদ লুট, এগুলো করছে বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও তাদের ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের গুন্ডাপান্ডা। দেশের এই রকম দুঃসময়ে আমার বাংলাদেশ পার্টি নতুন রাজনীতি শুরু করেছে, আমি অভিভূত। তাদের কাজের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।

অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম বলেন, দেশের সবচেয়ে মেধাবী শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠান বুয়েটে নিয়ে আবার নতুন চক্রান্ত শুরু হয়েছে। ছাত্রলীগের জঙ্গিরা একবার আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের জঙ্গি গোষ্ঠীর অত্যাচারে সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা অতিষ্ঠ ঠিক সেই সময়ে সেই গুন্ডাপান্ডারা আবার বুয়েটের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করে তুলেছে। যে রাজনীতি আমাদের দেশপ্রেমিক আবরার ফাহাদকে হত্যা করে, আমাদের বোনদের স্বামীর সামনে ধর্ষণ করে সেই রাজনীতি আমরা চাই না।

সভাপতির বক্তব্যে মেজর মিনার বলেন, আমরা বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের জন্য রাজনীতি করছি। এই আপনারা যারা এখানে ইফতার করেন তাদের জন্য রাজনীতি করছি। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য আমাদের পরিশ্রম তখনই স্বার্থক হবে যখন আপনারাও জেগে উঠবেন নিজের অধিকার বুঝে নিতে। আপনারা সবাই আমাদের হাতে হাত রেখে আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নিন, ইনশাআল্লাহ আমরা একটা সুন্দর, কল্যানকর বাংলাদেশ গড়ে তুলতে পারব।

গণ ইফতারে আরও উপস্থিত ছিলেন এবি যুবপার্টির আহ্বায়ক এ বি এম খালিদ হাসান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম আহ্বায়ক আনোয়ার ফারুক, উত্তরের সদস্যসচিব সেলিম খান, দক্ষিণের যুগ্ম সদস্যসচিব সফিউল বাসার, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হালিম নান্নু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মশিউর রহমান মিলু, রিপন মাহমুদ, শরণ চৌধুরী, রুনা হোসাইন, আমেনা বেগম, ছাত্রপক্ষের আহ্বায়ক মোহাম্মদ প্রিন্স, চাত্রনেতা হাসিবুর রহমান খান, পল্টন থানার আহ্বায়ক আব্দুল কাদের মুন্সি, সদস্য সচিব রনি মোল্লা, যাত্রাবাড়ী থানা সমন্বয়ক এম এইচ আরিফসহ কেন্দ্রীয় ও মহানগরীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত