সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

চুরি করতে গিয়ে গৃহবধূকে খুন, আসামির যাবজ্জীবন

আপডেট : ৩০ মে ২০২৪, ০৯:৫৬ পিএম

কুমিল্লায় এক গৃহবধূকে খুনের অপরাধে একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন কুমিল্লার আদালত। নিহত গৃহবধূর নাম শিউলি আক্তার (৩৫)। তিনি কুমিল্লা মনোহরগঞ্জ উপজেলার হাতিমারা গ্রামের মৃত দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামির নাম মো. আরাফাত হোসেন দিদার (২৮)। তিনি কুমিল্লা মনোহরগঞ্জ উপজেলার হাতিমারা গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (৩০ মে) কুমিল্লা অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ পঞ্চম আদালতের বিচারক মোছা. ফরিদা ইয়াসমিন এ রায় দেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৭ জুন মধ্যরাতে আসামি দিদার ভিকটিমের বসতঘরে সিঁধ কেটে প্রবেশ করেন। ঘরের মালামাল চুরি করার সময় নড়াচড়ার শব্দে ঘুম ভেঙে গেলে চুরি করা অবস্থায় ভুক্তভোগী শিউলি আক্তার তাকে দেখে ফেলেন। এতে তিনি ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করে শিউলিকে জখম করে এক ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ও নগদ ১০ হাজার টাকা নিয়ে ঘর থেকে দৌড়ে পালিয়ে যান। পরে শিউলির অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাটালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। পরদিন সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভিকটিম মারা যান।

এ ব্যাপারে পর দিন নিহতের বড়ভাই কুমিল্লা মনোহরগঞ্জ উপজেলার হাতিমারা গ্রামের মৃত দেলোয়ার হোসেনের ছেলে মো. জামাল হোসেন (৩৮) বাদী হয়ে একই গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে মো. আরাফাত হোসেন দিদারকে একমাত্র আসামি করে মনোহরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করেন। পরে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সনজিত চন্দ্র নাথ, পায়েল হোসেন, হাবিব সরদার ও মো. বেলাল হোসেন ঘটনার মূল রহস্য উদ্‌ঘাটন করলে আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়। ২০১৫ সালের ২৬ মার্চ আদালতে আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পরে মামলাটি বিচারে এলে ২০১৬ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি আসামি দিদারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে রাষ্ট্রপক্ষে ১৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি দিদারের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে খুনের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়। অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ৩ মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে নিযুক্তীয় কৌসুলি এপিপি অ্যাড. মো. জাকির হোসেন বলেন, এ রায়ে রাষ্ট্রপক্ষ এবং বাদীপক্ষ সন্তুষ্ট। আমরা আশা করছি উচ্চ আদালত এ রায় বহাল রাখবেন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত