রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

কনক দুর্গা বাড়ি ফেরার পর নারীর জন্য উন্মুক্ত শবরীমালা

আপডেট : ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৭:২৬ পিএম

আদালতের নির্দেশে ভারতের উত্তর কেরালার অঙ্গদিপুরমে বাড়িতে ফিরলেন শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করা প্রথম নারী কনক দুর্গা। এদিকে শীর্ষ আদালতে শবরীমালা বোর্ড জানিয়ে দিয়েছে, মন্দিরের গর্ভগৃহে সব বয়সের নারীদের ঢুকতে দিতে তাদের কোনো আপত্তি নেই।

ভারতীয় গণমাধ্যমের বরাতে জানা যায়, কনক দুর্গা আদালতের রায়ে খুশি। এবার স্বামী ও সন্তানদের ফিরে পেতে চান। কিছুদিন আগে বাড়ি খালি করে দুই সন্তানকে নিয়ে অন্য এলাকায় চলে গেছেন তার স্বামী।

শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশে জন্য শাশুড়ির অত্যাচারের মুখে পড়েন কনক দুর্গা। তাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়। ভর্তি হতে হয় হাসপাতালে।

কনক দুর্গা পুলামনত্থল আদালতে শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে মামলা করেন। সেই মামলার ভিত্তিতে বুধবার কনককে বাড়িতে ঢুকতে দেওয়ার নির্দেশ দেয় আদালত। ১১ মার্চ হবে মামলার পরবর্তী শুনানি।

শতাব্দী প্রাচীন এ মন্দিরে ঋতুমতী নারীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ২৮ সেপ্টেম্বর এই নিয়ে রায় দেয় ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এখন সব বয়সের নারীরা মন্দিরে ঢুকতে পারবেন মন্দিরে।

তখন এই রায়ের বিরুদ্ধে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কেরালা। পথে নামেন মন্দিরের দেবতা আয়াপ্পা ভক্তরা। বহু সমাজকর্মী ও ঋতুমতী নারী শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশের চেষ্টা করলে বাধা দেওয়া হয়৷ কিন্তু ২ জানুয়ারি ভোরে সকলের নজর এড়িয়ে পুলিশি প্রহরায় মন্দিরে ঢোকেন কনকদুর্গা ও বিন্দু। প্রায় ঘণ্টাদুয়েক ভেতরে ছিলেন তারা।

এদিকে নারীদের প্রবেশ নিয়ে বদলিয়েছে শবরীমালার ত্রিবাঙ্কুর দেবস্বম বোর্ড। বোর্ডের তরফে জানা বলা হচ্ছে, মন্দিরের প্রবেশাধিকার সবার রয়েছে। সমতার দৃষ্টিতে মন্দিরে নিয়ম হওয়া উচিত।

কেরালা সরকার পরিচালিত এই বোর্ড শীর্ষ আদালতের রায় ভবিষ্যতে মেনে চলবে বলে জানিয়েছে। এই রায় পুনর্বিবেচনার জন্য সুপ্রিম কোর্টের পাঁচ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চে ৬০টিরও বেশি আবেদন জমা পড়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত