সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

হারিয়ে যাওয়া মেয়ে বাড়ি ফিরলেন ২৭ বছর পর

আপডেট : ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:২৯ পিএম

কাঠ কুড়াতে গিয়ে মাত্র ৮ বছর বয়সে ঢাকায় হারিয়ে যাওয়া মেয়ে শাহীদা আক্তার ২৭ বছর পরে বাড়ি ফিরে এসেছেন। সেই সময় অনেক খুঁজেও মেয়েকে ফিরে পাননি জামালপুর জেলার বকশিগঞ্জ উপজেলার দিকপাড়া গ্রামের ইব্রাহিম খলিল ও ছাবেদা বেগম দম্পতি। দীর্ঘ ২৭ বছর পর সেই হারিয়ে যাওয়া মেয়েই ফিরে এসেছেন তাদের বাড়িতে। তবে দীর্ঘ এই সময় পর শাহীদা আক্তারের বাবা-মা আর বেঁচে নাই। ৪ বছর আগে দুজনে মারা গেছেন।

গতকাল রবিবার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় বড় বোন খালেদা বেগম ও শাহীদা আক্তার একে অপরকে দেখে পরম মমতায় জড়িয়ে ধরে কান্না শুরু করেন। এ সময় আবেগঘন একটি মুহূর্তের সৃষ্টি হয়। বর্তমানে শাহীদা তার বড় বোন খালেদার বাড়িতে আছেন।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ইব্রাহিম খলিল ও ছাবেদা বেগম দম্পতির অভাব-অনাটনের সংসার ছিল। ওই গ্রামে তেমন কোনো কাজকর্ম ছিল না। বাধ্য হয়ে ১৯৯৭ সালে সন্তানদের নিয়ে ঢাকার উত্তরায় চলে যান। সেখানে তার বাবা রিকশা চালাতেন। ঢাকায় যাওয়ার কয়েক দিনের মধ্যে ছোট্ট শাহীদা কাঠ কুড়াতে যান। সেখান থেকে শাহীদা হারিয়ে যান। তার বাবা-মা তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেন। কিন্তু তার আর কোনো সন্ধান পাননি তারা। এরপর থেকে শাহীদা নিখোঁজ ছিল। নিখোঁজ হওয়ার পর কিভাবে যেন শাহীদা চট্টগ্রামে চলে যান। সেখানে এক বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করতেন। তারাই তাকে গাজীপুরে সেলিম মিয়া নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে দেন।

শাহীদা আক্তার বলেন, ‘আমি জীবনেও কল্পনা করিনি নিজের গ্রামে ফিরতে পারব। আমার ভাই-বোনদের সঙ্গে দেখা করতে পারব। প্রায় সময় বাবা-মা ও পরিবারের কথা মনে পড়ত। কিন্তু ছোট বেলার তেমন কিছুই মনে পড়ত না। সম্প্রতি আমার মেয়ে নানা-নানির কথা জানতে চাইল। মেয়ের নানা রকম জিজ্ঞাসাবাদে হঠাৎ বকশিগঞ্জের দিকপাড়া নামটি মনে পড়ে যাই। তখন থেকে বকশিগঞ্জের দিকপাড়া খুঁজতে থাকি। বাবা-মাকে দেখার জন্যই খুঁজতে খুঁজতে এই গ্রামে চলে আসি। নিজের পরিবার ও বাড়ি ঠিকই খুঁজে পেলাম। কিন্তু আমার মনে আশা পূরণ হলো না। কারণ আমার বাবা-মা মারা গেছেন। বোন ও ভাইসহ পরিবারের অন্যান্য সবাইকে পেলাম ঠিকই। কিন্তু বাবা-মাকে পেলাম না।

২৭ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া ছোট বোনের সন্ধান পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন বড় বোন খালেদা বেগম। তিনি বলেন, ‘বাবা-মার সঙ্গে তারা সবাই ঢাকায় চলে গিয়েছিল। ঢাকায় যাওয়ার কয়েক দিনের মধ্যে তার ছোট বোন শাহীদা হারিয়ে যায়। তারপর তার আর কোনো সন্ধান পাননি তারা। তার কোনো দিন সন্ধান পাবে তিনি চিন্তাও করেননি। এতগুলো বছর পর বোনকে পেয়ে বাড়িতে ঈদের আনন্দ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। দীর্ঘ প্রায় ২৭ বছর পর বোনকে ফিরে পেয়ে তারা সবাই এখন আনন্দিত। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে শাহীদাকে এক পলক দেখতে বাড়িতে ভিড় করনে গ্রামবাসী।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত