বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

‘আমরা অন্য কিছু খেলেও লিলির জন্য মাছ রান্না করতেই হয়’

আপডেট : ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫০ পিএম

অসুস্থ পোষা বিড়ালের গায়ে লাল রঙের মোলায়েম কাঁথা মুড়িয়ে নিয়ে এসেছেন হাসপাতালে। ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের তীব্র দাবদাহ উপেক্ষা করে ৯ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে পোষা বিড়ালকে কোলে নিয়ে এসেছেন ডাক্তার দেখাতে।

চিকিৎসক দেখিয়ে বাড়ি ফেরার সময় ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতাল ভবনের নিচতলায় দেখা হয় বিড়ালের মালিক আসমা আক্তারের সাথে। সেখানেই সংবাদকর্মী পরিচয় দিয়ে কথা হয় তার সঙ্গে।

তিনি বলেন, নিজের সন্তানের মতোই বিড়ালটিকে লালন-পালন করেন তিনি। আদর করে বিড়ালটির নাম রেখেছি 'লিলি'। লিলি একটু চঞ্চল প্রকৃতির। তবে সে যেখানেই থাকে লিলি বলে ডাক দিলেই ছুটে আসে।

আসমা আক্তারের বাড়ি উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের মরিচারচর গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের ইউনুস আলী মাস্টারের স্ত্রী। তিনি উচাখিলা বাজারের একটি বাসায় থাকেন।

আসমা আক্তার আরও বলেন, লিলির বয়স চার মাস। তার প্রিয় খাবার মাছ ও ভাত। আমরা অন্য কিছু খেলেও লিলির জন্য মাছ রান্না করতেই হয়। সে আমাদের সাথে বিছানায় ঘুমায়। আমার ছেলে-মেয়েরা তার সাথে খেলা করে। তারা লিলিকে খুব আদরও করে। সে আমাদের পরিবারের একজন সদস্য।

পোষা বিড়াল লিলি কীভাবে অসুস্থ হয়েছে এ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত বৃহস্পতিবার পাশের একটি বাসায় গিয়েছিল লিলি। সেখানে কেউ তাকে মেরেছে। দুদিন পরও বিড়ালটি ঠিকমতো হাঁটতে পারছে না। যে কারণে সে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। প্রথমে ভেবেছিলাম এমনিতেই ভালো যাবে, কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে আজ তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসি। চিকিৎসক ইনজেকশন দিয়েছেন। আরও কিছু ওষুধ লিখে দিয়েছেন। চিকিৎসক জানিয়েছেন, নিয়মিত ওষুধ খেলে লিলি দ্রুত সুস্থ হয়ে যাবে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতালের ভেটেরিনারি সার্জন ডা. পল্লব বৈশ্য বলেন, বিড়ালটিকে হয়তো কেউ ব্যথা দিয়েছিল। ব্যথার কারণে তার একটি পা ফুলে গিয়েছিল। বিড়ালটিকে একজন মহিলা হাসপাতালে নিয়ে আসার পর সবকিছু পর্যবেক্ষণ করে ব্যথানাশক ইনজেকশন দেওয়া হয়। আশা করছি দু-তিন দিনের মধ্যে বিড়ালটি সুস্থ হয়ে উঠবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত