বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের রুয়ান্ডা পাঠাবে যুক্তরাজ্য

  • পার্লামেন্টে বিলটির পক্ষে ভোট পড়ে ৩১৭টি এবং বিপক্ষে ভোট পড়ে ২৩৭ টি
  • এ আইনে রুয়ান্ডাকে একটি নিরাপদ দেশ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে
আপডেট : ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৫৫ পিএম

নথিপত্রবিহীন অভিবাসনপ্রত্যাশীদের রুয়ান্ডা পাঠাতে আইন পাস করেছে যুক্তরাজ্য। গতকাল সোমবার স্থানীয় সময় রাতে পার্লামেন্টে এই সমালোচিত রুয়ান্ডা বিলটি পাস হয়।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ হাউজ অফ লর্ডসের বিরোধিতা এবং নানা বিতর্কের পর পার্লামেন্টে এ সংক্রান্ত বিলটি পাস করে আইনে পরিণত করা হয়। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব কমনসে বিলটির পক্ষে ভোট পড়ে ৩১৭টি এবং বিপক্ষে ভোট পড়ে ২৩৭ টি। মোটামুটি বড় ব্যবধানেই বিলটি পাস হয়।

বিল পাসের পর মঙ্গলবার সকালে এক বিবৃতিতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক বলেন, এই বিল পাস হওয়া একটি ল্যান্ডমার্ক। এটি অরক্ষিত অভিবাসীদের বিপজ্জনক ভ্রমণ থেকে বিরত রাখতে এবং তাদের পাচারকারীদের চক্র ভাঙতে সাহায্য করবে।

তিনি আরও বলেন, "যদি আপনি এখানে অবৈধভাবে আসেন তবে আপনি থাকতে পারবেন না।‘

এ আইনে রুয়ান্ডাকে একটি নিরাপদ দেশ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বলা হয়েছে, সেখানে কিছু আশ্রয়প্রার্থী পাঠানো সরকারের পরিকল্পনার একটি মূল অংশ।

এর আগে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক জানান, ১০ থেকে ১২ সপ্তাহের মধ্যেই যুক্তরাজ্যে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বহনকারী প্রথম ফ্লাইট আফ্রিকার দেশ রুয়ান্ডায় পৌঁছাতে পারে।

সোমবার ডাউনিং স্ট্রিটে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিতর্কিত রুয়ান্ডা বিল প্রসঙ্গে সুনাক বলেন, ‘যথেষ্ট হয়েছে, আর দেরি করা হবে না। অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে ফ্লাইটগুলো রুয়ান্ডায় যাচ্ছে। সামনে একাধিক ফ্লাইট চালু করা হবে।’

তিনি আরও জানান, ‘আমরা বিমানঘাঁটি প্রস্তুত রেখেছি। বাণিজ্যিক বিমান ভাড়া করেছি এবং অবৈধ অভিবাসনপ্রত্যাশীদেরকে পাহারা দিয়ে রুয়ান্ডায় নিয়ে যাওয়ার জন্য ৫০০ স্টাফকে প্রশিক্ষণ দিয়েছি।’

নথিপত্রবিহীন অভিবাসনপ্রত্যাশীদের রুয়ান্ডায় স্থানান্তরের জন্য দেশটির সরকারের সঙ্গে চুক্তি করে যুক্তরাজ্য। ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভিনসেন্ট বাইরুতার সঙ্গে এ বিষয়ক একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেন ব্রিটেনের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেমস ক্লেভারলি।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত