শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আল-আকসা মসজিদে ইসরায়েলিদের হামলা, পতাকা উত্তোলন

  • মঙ্গলবার কয়েক ডজন ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারী মসজিদে পতাকা উত্তোলন করে
আপডেট : ১৪ মে ২০২৪, ০৩:৫৭ পিএম

মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্র স্থান অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে হামলা চালিয়েছে কয়েক ডজন ইসরায়েলি নাগরিক। এ সময় আল-আকসার প্রাঙ্গণে ইসরায়েলি পতাকা উত্তোলন করে তারা।

মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার কয়েক ডজন ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারী আল-আকসা মসজিদে অনুপ্রবেশ করে ইসরায়েলি পতাকা উত্তোলন করে।

আল জাজিরার দ্বারা যাচাইকৃত ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় যে একজন ব্যক্তি ইসরায়েলি পতাকা ধরে রেখেছেন এবং একজন ইসরায়েলি পুলিশ কর্মকর্তা ওই ব্যক্তির সাথে শান্তভাবে কথা বলছেন। সে সময় হামলাকারীদের সাথে পুলিশের কোন জোরজবরদস্তি দেখা যায়নি। শান্ত ভঙ্গীতে কথা বলছিলেন তারা।

ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীরা মসজিদের পশ্চিম দিকের আল-মুগারবাহ গেট এলাকায় ইসরায়েলি পতাকাটি স্থাপন করে। আল আকসা মসজিদের ভেতরে ইসরায়েলি পতাকা উত্তোলনকে উসকানিমূলক পদক্ষেপ বলে মনে করে ফিলিস্তিনিরা।

বেয়াদেনু নামের একটি সংস্থা ১৫ মে উপলক্ষ্যে সমাবেশ ও র‍্যালি করার পর অতর্কিত আল আকসা মসজিদে ঢুকে যায় এবং পতাকা উত্তোলন করে। সংস্থাটি জানায় তাদের লক্ষ্য পবিত্র আল আকসার সাথে ইহুদি জনগণের সংযোগ শক্তিশালী করা।

যদিও আল আকসাতে ইহুদিদের অতর্কিত হামলা নিত্য ঘটনা। তবুও ইহুদি আইন অনুসারে আল আকসার কোনও কোনও অংশে প্রবেশ করা ইহুদিদের জন্যও নিষিদ্ধ।

সাধারণত ইসরায়েলিরা ১৫ মে তারিখকে তাদের স্বাধীনতা দিবস এবং ইসরায়েলের সৃষ্টি হিসাবে চিহ্নিত করে থাকে। যেখানে ফিলিস্তিনি জনগণ ১৫ মে কে তাদের "নাকবা দিবস" হিসাবে চিহ্নিত করে। ইতিহাসের এই দিনে নিজেদের ভূমি থেকে ফিলিস্তিনিদের পূর্বপুরুষদের জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত করা হয়েছিল।

গত বছরের ৭ অক্টোবর গাজায় ইসরায়েলের যুদ্ধ শুরুর পর থেকেই ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ বারবার ফিলিস্তিনিদের জুমার নামাজের জন্য আল আকসা মসজিদে প্রবেশে বাধা দিয়েছে। প্রায় সময়ই রাস্তায় নামাজ পড়তে বাধ্য হয়েছে ফিলিস্তিনিরা।

এছাড়া আগের বছরগুলোতেও ইসরায়েলি বাহিনী মসজিদের ভেতরে যখন তখন ফিলিস্তিনি মুসল্লিদের ওপর হামলা চালিয়ে থাকে।

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত