শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার এমন কাজ করা উচিত হয়নি: সোহম

আপডেট : ০৮ জুন ২০২৪, ০৬:৫৪ পিএম

রেস্তোরাঁ মালিককে মারধরের ঘটনায় বিপাকে পড়েছেন চণ্ডীপুরের তৃণমূলের বিধায়ক ও টালিউড অভিনেতা সোহম চক্রবর্তী। তিনি বলেন, প্রতিনিধি হিসেবে এ ভাবে মেজাজ হারিয়ে কারও গায়ে হাত তোলা মোটেও উচিত হয়নি আমার। 

শুক্রবার রাতে নিউ টাউনের এক রেস্তোরাঁর মালিককে মারধরের অভিযোগ ওঠে সোহম চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে। শনিবার দুপুরে ক্ষমা চেয়ে সোহম বলেন, ‘আগে আমার ও আমার প্রযোজনা সংস্থার কর্মীদের ওপর আক্রমণ করা হয়েছিল। অকথ্য গালিগালাজ করা হয়, কুকথা বলা হয় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামেও। সেই সময়ে মাথা ঠিক রাখতে পারিনি। কিন্তু একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে এমন কাজ করা উচিত হয়নি। আমার ভুল হয়েছে।’

শনিবার সোহম জানান, যে ফুটেজ প্রকাশ্যে এনেছেন ওই রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ, তাতে শুধু তাঁর মারমুখী চেহারাটাই দেখা যাচ্ছে। কিন্তু আসল ঘটনার সূত্রপাত হয়েছে আধ ঘণ্টা বা ৪৫ মিনিট আগে। সোহম জানান, ওই সন্ধ্যায় তারা শুটিং করতে যাওয়ার সময় থেকেই কিছু সমস্যা তৈরি হয়েছিল। পরে রেস্তোরাঁর মালিক অভদ্র ব্যবহার শুরু করেন। তার এবং তার দেহরক্ষীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হয়। এমনকি, দেহরক্ষীর গায়ে হাতও তোলা হয়। তার পর রেস্তোরাঁর অন্য কর্মীদের ডেকে এনে শুরু হয় দুর্ব্যবহার। চলে অকথ্য গালিগালাজ।

সোহম বলেন, ‘সেই সব ঘটনার ফুটেজ প্রকাশ্যে আসছে না। গোটা হার্ড ডিস্কটা নিয়ে চলে গিয়েছেন ওই রেস্তোরাঁর মালিক। সেটা খুঁজে বের করা দরকার। তবে বিষয়টা প্রথমেই প্রশাসনের হাতে ছেড়ে দেওয়া উচিত ছিল।’

সোহম জানিয়েছেন, তারা অনুমতি নিয়েই ওই রেস্তোরাঁয় শুটিং করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু পরে নানা রকম আপত্তি তোলেন মালিক। সোহমের প্রযোজনা সংস্থার তরফে দাবি করা হয়েছে, ওই রেস্তোরাঁয় শুটিং করার জন্য নগদ ১০ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তার পরেও ঝামেলা শুরু হয়। এক নারী আহত হয়েছেন বলেও দাবি করা হয়েছে সংস্থার তরফে। তার পরই সোহম ঘটনায় জড়িয়ে যান বলে জানানো হয়।

সোহম বলেছেন, ‘মানুষ হিসেবে আত্মসম্মানে আঘাত লেগেছিল। তাই ঘটনাটা ঘটে গিয়েছে। এখন অনুশোচনা হচ্ছে।’ শুক্রবার অবশ্য সোহম জানিয়েছিলেন, শুটিং-এ ব্যস্ত ছিলেন তিনি। চিৎকার শুনে ছুটে যান, দেখেন তার এক নিরাপত্তারক্ষীকে ধাক্কা দিচ্ছেন ওই রেস্তোরাঁর মালিক। সোহমের অভিযোগ, সেই সময়ই তাকে গালিগালাজ করা হয়, গায়ে হাত তোলা হয় তার দেহরক্ষীর।

মারধর করার প্রসঙ্গে এর আগে সোহম বলেছিলেন, ‘সে তো মেরেছিই। কটূক্তি করেছে এবং অভিষেককে নিয়ে গালিগালাজ করেছে— সেটা মেনে নেওয়া যায় না। চারটে চড় মেরেছি। ধাক্কা দিয়েছি। অভিনেতারাও মানুষ। আমাদেরও আবেগ আছে। তারই প্রতিফলন হয়েছে। ছোটখাটো বিষয়। পুলিশ দেখছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত