শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

হজযাত্রায় বিমান ভাড়া কমানোসহ হাবের ৯ সুপারিশ

আপডেট : ১০ জুন ২০২৪, ০৫:৪৩ পিএম

হজযাত্রীদের ভিসা, বিমান ভাড়াসহ হজের খরচ কমাতে ৯টি সুপারিশ করেছে হজ এজেন্সিগুলোর সংগঠন হাব। সুপারিশগুলোর মধ্যে হজযাত্রীদের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রচার-প্রচারণাসহ হজ প্যাকেজের সুবিধাগুলোর ক্ষেত্রে লিখিত চুক্তির দাবি জানানো হয়েছে। সেই সঙ্গে হজ কার্যক্রমে সংযুক্ত ব্যাংগুলো যেন কোনো অনিয়ম করতে না পারে সে বিষয়েও কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

সোমবার (১০ জুন) আশকোনা হজ ক্যাম্পে চলতি বছরের হজ কার্যক্রমের সমাপ্তি উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব সুপারিশ তুলে ধরেন সংগঠনটির সভাপতি শাহাদাত হোসাইন তসলিম।

হজ্জ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, হজযাত্রীদের সঙ্গে প্রতারণাকারি হজ এজেন্সিগুলোকে কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে। ইতিমধ্যে এক এজেন্সির মোনাজ্জেমকে হজ কার্যক্রম থেকে বিরত রাখাসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। একই সঙ্গে হজের পাশাপাশি সৌদি আরবের নিয়মকানুন সম্পর্কে জানতে ও মেনে চলতে হজযাত্রীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। 

হাবের সুপারিশগুলো হলো-
১) প্রতি বছর হজযাত্রীদের বাড়ি ভাড়া করার জন্য মোনাজ্জেমদের সৌদি আরবে গমনের ভিসার ব্যবস্থা করা। এক্ষেত্রে হজযাত্রী নিবন্ধন শেষ হওয়ার পর পর ভিসার ব্যবস্থা করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে সুপারিশে।

২) মধ্যস্বত্বভোগী নির্মূলে ধর্ম মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও হাবসহ যৌথ কর্মপন্থা নির্ধারণ ও অভিযান পরিচালনা এবং হজযাত্রীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রচার-প্রচারণা।

৩) হজ কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী ব্যাংকসমূহের মধ্যে যেন কোনো ব্যাংক বেআইনি কাজ না করতে পারে সে বিষয়ে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

৪) হজযাত্রীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। তারা যেন মধ্যস্বত্বভোগীদের সঙ্গে কোনো লেনদেন না করে।

৫) হজযাত্রীগণ সরাসরি এজেন্সির ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দিয়ে মানি রশিদ সংরক্ষণ করবেন। প্যাকেজের সুবিধাদি লিখিত চুক্তি করতে হবে।

৬) ফ্লাইট শিডিউল ধর্ম মন্ত্রণালয় ও হাবের সঙ্গে আলোচনা করে নির্ধারণ করা।

৭) হজযাত্রীদের বিমান ভাড়া কমানো ও বিমান ভাড়া স্বতন্ত্র টেকনিক্যাল কমিটির মাধ্যমে নির্ধারণ করা।

৮) হজ এজেন্সির লাইসেন্স প্রদান করে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়। এক্ষেত্রে হাবের কোনো ভূমিকা থাকে না। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় যাকে লাইসেন্স দেয় হাব উক্ত লাইসেন্সধারী এজেন্সিকে সদস্য করতে বাধ্য। নতুন লাইসেন্স প্রদান ও মালিকানা পরিবর্তনের ক্ষেত্রে হাবের মতামত নেয়া একান্ত সমীচীন হবে।

৯) হজ ব্যবস্থাপনায় শৃঙ্খলা রক্ষার্থে ও হজ ব্যবস্থাপনার উন্নয়নে হাব সদা-সর্বদা তৎপর। হজ ব্যবস্থাপনায় যেকোনো সংকটে হাব ঝাঁপিয়ে পড়ে। হাবের লব্ধ অভিজ্ঞতা, সততা ও কর্মতৎপরতায় এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের আন্তরিক ও সার্বিক সহযোগিতায় এ বছর হজ সংক্রান্ত উক্ত কয়েকটি জটিল সমস্যা থেকে উত্তরণ সম্ভব হয়েছে। ভবিষ্যতে যেন আর এমন কোনো জটিল পরিস্থিতির সম্মুখীন না হতে হয় সে বিষয়ে সবাইকে সম্মিলিতভাবে তৎপর হতে হবে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত