মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ব্যাগ-পত্র গুছিয়ে সাকিবকে `অবসরে' যেতে বললেন শেবাগ

আপডেট : ১১ জুন ২০২৪, ১২:৩৮ পিএম

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। কিন্তু বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে সেই মাঠ কাঁপানো সাকিবের দেখা মেলেনি দুই ম্যাচের কোনোটিতে। শুধু তাই নয়, টি-টোয়েন্টিতে সাকিবের সবশেষ ফিফটি ২০২২ সালে, ১৯ ইনিংস আগে।গত দুই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও সাকিবের ব্যাটিং আশাব্যাঞ্জক। ২০২১ বিশ্বকাপে ৬ ম্যাচ খেলে রান করেছিলেন ১৩১। গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ৫ ইনিংসে করেছেন মাত্র ৪৪। আর এবার ব্যাট-বল কোনোটিতেই কিছু করতে পারছেন না সাকিব। এখনো পর্যন্ত পাননি একটি উইকেটেরও দেখা। তার উপর তাই খুব বিরক্ত ভারতের সাবেক তারকা ওপেনার বিরেন্দর শেবাগ।

সাকিবকে নিয়ে ক্রিকবাজের অনুষ্ঠানে শেবাগ বলেন, ‘গত বিশ্বকাপেই আমার এমন মনে হয়েছে, ওকে আর টি-টোয়েন্টিতে খেলানো উচিত নয়। অনেক আগেই ওর অবসর নেওয়ার সময় হয়েছে। তুমি এত সিনিয়র ক্রিকেটার, নিজে অধিনায়ক ছিলে, তোমার পরিসংখ্যানের অবস্থা এমন, সাকিবের নিজেরই তো লজ্জা করা উচিত। নিজেরই বলা উচিত, আমি এই সংস্করণ থেকে অবসর নিচ্ছি।’

তিনি যোগ করে বলেছেন, ‘আমি তো দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় বিশ্বকাপ, যেটা শ্রীলঙ্কায় হয়েছিল। তখন যখন ডেল স্টেইন, মরনে মরকেল, আফগানিস্তানে একটা পেসার ছিল, স্বাচ্ছন্দ্যে আমি যখন ওদের মারতে পারছি না, নির্বাচকদের বলে দিয়েছিলাম, আমাকে যেন টি-টোয়েন্টি দলে রাখা না হয়। আমি ওয়ানডে ও টেস্ট খেলব। দিন শেষে নিজে তো বোঝা যায় আমার ব্যাটিং ভালো হচ্ছে না, বোলিং ভালো হচ্ছে না, দলের জন্য অবদানই রাখতে পারছি না। তাহলে খেলে কী হবে? আমার হিসেবে তো ওর (অবসরের) সময় আগেই হয়েছে।’

গতরাতে নাসাউয়ের অদ্ভুত পিচে নর্খিয়ার বলে পুল শট খেলতে গিয়ে আউট হন সাকিব। ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ পরিস্থিতিতে সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের এমন শট আরও বিরক্তি ধরিয়েছে শেবাগের মনে, ‘অভিজ্ঞ খেলোয়াড় বলেই যদি তাকে বিশ্বকাপে আনা হয়, তাহলে সেটা করে দেখাক। এই উইকেটে কিছু সময় তো দাও। তুমি অ্যাডাম গিলক্রিস্ট কিংবা ম্যাথু হেইডেন নও। তুমি বাংলাদেশের খেলোয়াড়। সেটা হিসাব করে খেলো। হুক-পুল তোমার শট নয়। তোমার যেটা শট, সেটা খেলো, অন্তত উইকেটে তো থাকো।’

শেবাগ মনে করেন বাংলাদেশের উচিত ভবিষ্যতের দিকে তাকানো, ‘‘কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় নির্বাচকদের এসেছে। তরুণদের সুযোগ দিতে হবে। আমি বিশ্বাস করি, যদি আপনি ফল না পান, তাহলে তরুণদের সুযোগ দিয়েই ম্যাচ হারুন। অন্তত তাতে ওদের অভিজ্ঞতা তো হবে। সাকিব তো এসব কিছুই করতে পারছে না। আমার মনে হয় না এই বিশ্বকাপের পর ওর খেলা উচিত। কিংবা ওকে খেলানো উচিত।’

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত