সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

হজের সওয়াব নষ্টের কারণ

আপডেট : ১৫ জুন ২০২৪, ০৯:২২ পিএম

হজ আর্থিক ও শারীরিক ইবাদত। যা অন্য ফরজ বিধানের চেয়ে ভিন্ন। অর্থ ও শ্রম দুটোই প্রয়োজন হজে। ফলে হজের প্রতিদানও অনেক দামি। আর তা হলো জান্নাত। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘জান্নাতই হলো মাবরুর হজের প্রতিদান।’ (সহিহ বুখারি)

হজের এমন দামি প্রতিদান হাত ছাড়া হতে পারে সামান্য উদাসীনতায়। কারণ হজের সফরে সঙ্গীদের মধ্যে নানা কারণে ঝগড়া ও বাদানুবাদ হয়। কখনো পরস্পরে, কখনো হজ এজেন্সির সঙ্গে। এটা ঘটে ওয়াদা অনুযায়ী সুযোগ-সুবিধা না পাওয়ার কারণে। একটু কষ্ট হলেও এগুলো থেকে বিরত থাকা উচিত। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, ‘কোনো লোক যদি হজ করে এবং তাতে কোনো রকম অশ্লীল ও অন্যায় আচরণ না করে তাহলে তার পূর্ববর্তী গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেওয়া হয়।’ (তিরমিজি)

আরো যে কারণে হজের সওয়াব বিনষ্ট হয়

মক্কা মদিনার মতো পবিত্র স্থানগুলো পরিদর্শন করার স্বপ্ন প্রতিটি মুমিনের হৃদয়ে থাকে। এটাই ইমানের নিদর্শন। তবে হৃদয়ে জমে থাকা আবেগ ও অনুভূতি মোবাইলে ধারণ করা সম্ভব নয়। অনেকে বাইতুল্লাহ, রাসুল (সা.)—এর রওজা শরিফ সামনে নিয়ে ছবি তোলে। তাওয়াফ অবস্থায় লাইভে আসে। অর্থাৎ ছবি তোলার প্রবণতা আমাদের মধ্যে অনেক বেশি। বাহ্যত এগুলো ভালো মনে হলেও বাস্তবে তা ইবাদতে বিঘ্নতা সৃষ্টি করে। মহান আল্লাহ ও বান্দার নিবিড় সম্পর্কে এক অদৃশ্য অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়। তাই হজের সময় মোবাইল থেকে দূরে থাকাই কাম্য। বিশেষ করে হজের পাঁচদিন। মক্কা-মদিনার প্রতি অগাধ ভালোবাসা মোবাইলে নয়, বরং হৃদয়ে ধারণ করা কর্তব্য।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত