শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

শাস্তি বহাল স্মিথদের

আপডেট : ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০৫:৫৮ পিএম

স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার এবং ক্যামেরন ব্যানক্রাফটের জন্য আগের শাস্তিই বহাল রেখেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। বল ট্যাম্পারিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে বিভিন্ন মেয়াদে ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ আছেন এই তিন ক্রিকেটার। সোমবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার বিশেষ বোর্ড সভায় শাস্তি বহাল রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে গত মার্চে বল ট্যাম্পারিং কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকার কারণে ১২ মাসের জন্য স্টিভ স্মিথ এবং ওয়ার্নারকে নিষিদ্ধ করেছিল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ব্যানক্রফট নিষিদ্ধ হয়েছিলেন ৯ মাসের জন্যে। স্মিথদের শাস্তির মেয়াদ শেষ হবে ২০১৯ সালের ২৯ মার্চ।

ব্যানক্রফটের শাস্তির মেয়াদ শেষ হচ্ছে চলতি বছর ডিসেম্বরের শেষে। আগামী বছরের শুরুতেই তিনি ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরতে পারবেন। জানুয়ারির শেষে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে টেস্ট সিরিজ খেলবে অস্ট্রেলিয়া। সেই সিরিজে খেলার জন্য বিবেচিত হতে পারেন ব্যানক্রফট।

অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশান (এসিএ) অভিযুক্ত তিন ক্রিকেটারের শাস্তি কমানোর জন্য ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছে আবেদন জানিয়েছিল। গত মাসে আবেদন জানিয়ে তারা বলেছিল, “শাস্তি যথেষ্ট হয়েছে।”

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অন্তবর্তীকালীন প্রধান আর্ল এডিং বিষয়টি উল্লেখ করে বলেন, “এসিএ’র পেশ করা সকল কাগজপত্র সতর্কতার সঙ্গে বিবেচনা করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। এটা দেখে তাদের মনে হয়নি- এখনই তাদের শাস্তি পরিবর্তন করার প্রয়োজন আছে।”

ক্রিকেট আস্ট্রেলিয়ার নেওয়া সিদ্ধান্তকে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশান ‘হতাশাজনক’ বললেও মেনে নিয়েছে তা। এসিএ এক বিবৃতিতে বলেছে, “যদিও আমরা সিএ’র সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত নই। তবে সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া হয়েছে।”

অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন অবশ্য শুরু থেকেই বল ট্যাম্পারিং ঘটনার জন্য ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার যে কোনো মূল্যে জেতার সংস্কৃতিকে দায়ী করে আসছিল। তাদের বক্তব্য ছিল, ট্যাম্পারিং কেলেঙ্কারিতে ক্রিকেটারদের সঙ্গে সিএ-ও সমান অপরাধী।

এদিকে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন ওয়ানডে অধিনায়ক অ্যারন ফিন্স। তিনি বলেছেন, “বাকি অর্ধে তাদের ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলতে দেখাটা দারুন ব্যাপার হতো। তবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়র আগের সিদ্ধান্ত বহাল রাখাকে সম্মান জানাতে হবে।”

তিন ক্রিকেটার নিষিদ্ধ হওয়ার পর থেকেই খুব বাজে সময় পার করছে অস্ট্রেলিয়া। বল ট্যাম্পারিং কেলেঙ্কারির পর কোচের দ্বায়িত্ব ছেড়ে দেন ড্যারেন লেহম্যান। তার উত্তরসূরী জাস্টিন ল্যাঙ্গার দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে সব সংস্করণ মিলিয়ে যে ২১ ম্যাচ খেলেছে অস্ট্রেলিয়া, তাতে জয় পেয়েছে মাত্র ৫টিতে। সেই পাঁচটির মধ্যে তিনটি ম্যাচই আবার জিম্বাবুয়ে এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত