রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

নাব্য সংকট যমুনায় আটকা ২৫ জাহাজ

আপডেট : ০৫ জানুয়ারি ২০১৯, ০১:২৪ এএম

নাব্য সংকটের কারণে যমুনা নদীর পাটুরিয়া, দৌলতদিয়া, ব্যাটারির চর, নাকালিয়া ও পেচাকোলায় নদীর তলদেশে জেগে উঠেছে ছোট-বড় অসংখ্য ডুবোচর। এর ফলে সার ও কয়লাবাহী কার্গো জাহাজ সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ি নৌবন্দরে ভিড়তে পারছে না।

আটকে পড়া সার ও কয়লাবাহী প্রায় ২৫টি কার্গো জাহাজ ১৫ দিন ধরে দৌলদিয়া ও পাটুরিয়া এলাকায় নোঙর করে রাখা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে জাহাজগুলো আটকে থাকায় মালিকরাও চরম লোকসানে পড়েছে। এদিকে জাহাজ থেকে মাল অপসারণের জন্য ছোট ছোট ট্রলার ব্যবহার করায় পরিবহন খরচও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এদিকে সময়মতো সার মজুদ সম্পন্ন না হলে ইরি-বোরো চাষ মৌসুমে এ অঞ্চলে সার সংকটে সেচকার্য বিঘিœত হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বাঘাবাড়ি নৌবন্দরের বাফার গুদাম ইনচার্জ সোলায়মান হোসেন দেশ রূপান্তরকে বলেন, উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলায় সারের চাহিদা পূরণে ১৪টি বাফার গুদাম রয়েছে। এসব গুদাম থেকে ডিলারদের মাধ্যমে কৃষকদের কাছে সার পৌঁছানো হয়। এ জন্য ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত এ মজুদের কাজ চলে। চাহিদার ৮০ ভাগ সার চট্টগ্রাম থেকে জাহাজযোগে আনা হয়। উত্তরবঙ্গে সার সরবরাহের জন্য বাঘাবাড়ি ঘাটে এসব জাহাজ নোংর করানো হয়। এরপর এখান থেকে ট্রাকে করে বিভিন্ন গুদামে সারের আপদকালীন মদুদ গড়ে তোলা হয়।

নৌবন্দরের লেবার এজেন্ট আবুল সরকার বলেন, বাঘাবাড়ি নৌ-চ্যানেলে পানির ড্রাফট ৮ ফুট থেকে ১০ ফুট প্রয়োজন। এখন আছে সাড়ে ৬ ফুট থেকে ৭ ফুট পর্যন্ত। যার ফলে সার ও কয়লাবাহী বড় মাপের জাহাজ এ চ্যানেলে স্বাভাবিক অবস্থায়   চলাচল করতে পারছে না। এ চ্যানেলে চাহিদা অনুযায়ী নাব্যতা ঠিক রাখতে নৌ-চ্যানেলটিতে আগেভাগে ড্রেজিং করতে বিআইডব্লিউটিএর ঊর্ধ্বতন কর্র্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু এখনো তারা কাজ শুরু না করায় পাটুরিয়া থেকে বাঘাবাড়ি নৌবন্দর পর্যন্ত এই নৌ-চ্যানেলের অনেক স্থানে নদীর তলদেশে ডুবোচরের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে সার ও কয়লাবাহী বড় আকারের জাহাজ এ বন্দরে ঢুকতে পারছে না।

এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএর বাঘাবাড়ি কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাজ্জাদুর রহমান বলেন, পানির ড্রাফটের বিষয়টি বিবেচনা করে ছয় ফুট থেকে সাড়ে ছয় ফুট ড্রাফটের জাহাজে সার ও কয়লা পরিবহনের জন্য তাদের চিঠি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারা সে নির্দেশ না মানায় এ সমস্যা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, এ নদীর নাব্য ঠিক রাখতে পাটুরিয়া ও দৌলতদিয়া এলাকায় দুটি ড্রেজার মেশিন সার্বক্ষণিকভাবে কাজ করছে। তারপরেও যেসব স্থানে সমস্যা হচ্ছে, সেখানে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত