রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

অবশেষে ভারতের ইতিহাস

আপডেট : ০৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০১:১২ এএম

ক্রিকেটের মহার্ঘ্যতম জয়টা তাহলে পেয়ে গেছে ভারত। ৭১ বছর পর অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিতেছে তারা। না বললেও চলে যে এটা ইতিহাস। এমন ইতিহাস যার নজির ভারতীয় ক্রিকেটে দ্বিতীয়টি নেই। তাই বোধহয় বিরাট কোহলি বলেছেন ‘জীবনের সেরা অর্জন’।

তবে অর্জনটা আরও বড় হতে পারত। বৃষ্টি তা হতে দেয়নি। সিডনি টেস্টের পঞ্চম দিন ভেসে যায় বৃষ্টিতে। ভারত তাই ২-১-এ সিরিজ জিতেছে। যা ৩-১ হওয়ার সম্ভাবনা ছিল। হয়নি বলে কি অজিদের লজ্জার ভার লঘু হয়েছে? মোটেই না। সিডনিতে তারা ৩১ বছর পর ফলোঅন করে। মেলবোর্নে দাঁড়াতেই পারেনি। অ্যাডিলেডে লড়াই দিলেও শেষ পর্যন্ত জয় হয় ভারতেরই। একমাত্র পার্থেই অস্ট্রেলিয়াকে চেনা গেছে। সেই লড়াকু মেজাজ। প্রতিপক্ষকে দুমড়ে দেওয়ার নির্দয় মনোভাব আর জিততে চাওয়ার অদম্য আকাক্সক্ষায় ভরপুর একটা দল। বাকি তিন টেস্টে অস্ট্রেলিয়া যেন একসময়ের গৌরবময় সাম্রাজ্যের মৃত কঙ্কাল।

আর ভারত ছিল প্রাণ-প্রাচুর্যে ভরা সাফল্যে ঝলমল একটা দল। সিডনিতে ট্রফি হাতে নেওয়ার পর তাদের উচ্ছ্বাসটাও ছিল দেখার মতো। চেতেশ্বর পুজারার মতো নির্ভীক যোদ্ধাও নাচছিলেন। তাকে ঘিরে তালে তালে পা মেলাচ্ছিল গোটা দল। এসব দেখে প্রতিপক্ষের লড়াই, উদযাপন ও নতুন ইতিহাসকে অভিনন্দিত করেছেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক টিম পেইন। বলেছেন ‘হ্যাটস অব ইন্ডিয়া’। এখানেই না থেমে অজি অধিনায়কের মন্তব্য, ‘আমরা যখন ভারতে খেলতে যাই, তখন জানি জেতাটা কত কঠিন। বিদেশের মাটিতে জয় অনেক বড় ব্যাপার। অভিনন্দন বিরাট, রবি এবং তাদের দলকে।’ এরপর পেইনের মূল্যায়ন, ‘শেষ দুই টেস্টে আমরা বাজে খেলেছি। মনে হয় অ্যাডিলেডে আমাদের জেতার সম্ভাবনা ছিল কিন্তু কঠিন মুহূর্তে ভারত ভালো খেলেছে। পার্থে আমরা দারুণ ব্র্যান্ডের ক্রিকেট খেলেছি। অবশ্য মেলবোর্ন আর সিডনিতে আমরা দাঁড়াতেই পারিনি। এই জয় ভারতেরই প্রাপ্য।’ কোচ রবিশাস্ত্রী বলেছেন, এটা বিশ^কাপ জয়ের চেয়েও বড় অর্জন।

এবারসহ মোট ১৩ জন ভারতীয় অধিনায়ক দল নিয়ে অস্ট্রেলিয়া সফর করেছেন। দুটি টেস্ট জিততে পেরেছেন কেবল কোহলি ও বিষেণ সিং বেদি। তবে বেদির ভারত ৩-২-এ সিরিজ হেরেছিল। কোহলির ভারত ২-১ সিরিজ জিতেছে। এমন গৌরবে উচ্ছ্বসিত কোহলি বলেছেন, ‘এই দলটার অংশ হতে পেরে আমি যতটা গর্বিত আর কখনো নিজেকে এতটা গর্বিত মনে হয়নি। মনে হয় গত ১২ মাসে দলের মধ্যে যে সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে তা অসাধারণ। এই দলের একজন হয়ে আমি সত্যি গর্বিত। এদের নেতৃত্ব দেওয়াটা আমার জন্য সম্মান ও সৌভাগ্যের ব্যাপার।’ ভারতীয় অধিনায়ক যে দলটার কথা বলছেন তারা ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং নিউজিল্যান্ডের সেই দলগুলোর মতো অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জেতার ইতিহাস গড়েছে। একজন অধিনায়কের গর্ব করার জন্য এর চেয়ে বেশি আর কী চাওয়ার থাকতে পারে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত