রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

যশোরে মামুন হত্যার ঘটনায় ৪ জন আটক

আপডেট : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:১৫ পিএম

যশোরে আব্দুল্লাহ আল মামুন (৩৪) হত্যার ঘটনায় চারজনকে আটক করেছে কোতোয়ালি থানার পুলিশ। গত শনিবার রাতে তাদের আটক করা হয়। গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে জানায় জেলা পুলিশ।আটককৃতরা হলো যশোর শহরের ঘোপ এলাকার সুজন ওরফে ছোট সুজন (১৬), শেখহাটি খাঁপাড়ার তামিম রেজা (১৮), শেখহাটি আদর্শপাড়া এলাকার সিরাজুলের বাড়ির ভাড়াটিয়া সুমন (১৬) এবং শেখহাটি বিএডিসি আবাসিক কোয়ার্টারের ফয়সাল (২২)। যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আনছার উদ্দিন পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এ সংবাদ বিবৃতিতে তাদের আটক ও হত্যার মোটিভ সম্পর্কে তথ্য দেন।বিবৃতিতে বলা হয়, যশোর শহরতলির বিরামপুর কালীতলা একাকার দুলাল হোসেনের ছেলে বাপ্পা শনিবার বিকেলে তার এক বান্ধবীকে নিয়ে শেখহাটি এলাকায় ঘুরতে যায়। ভাটার জোড়া পুকুর নামক স্থানে ওই এলাকার সন্ত্রাসী সাগর, তার ভাই সুমন, ফয়সাল, ইমন, মঞ্জিল, ছোট সুজন, হৃদয়, খানজাহান, তামিম রেজাসহ ১০-১২ জন তাদের আটকে রেখে ব্ল্যাকমেইলিং করার চেষ্টা করে। বাপ্পা অবস্থা বেগতিক দেখে তার ভাই সাজ্জাদকে মোবাইল ফোনে বিষয়টি জানায়। সাজ্জাদ সে সময় তার সঙ্গী রায়হানসহ অন্যদের নিয়ে সেখানে যায়। সংবাদ পেয়ে নিহত আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং পুরাতনকসবা কাজীপাড়ার বজলু খলিফার ছেলে আরিফও সেখানে যান। একপর্যায়ে তাদের সঙ্গে ওই বিষয় নিয়ে তর্কাতর্কি হয়। সে সময় সাগরসহ অন্যান্য আসামি ছুরি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে মামুন ও আরিফকে এলোপাড়াতি আঘাত করে। পরে আরও লোকজন এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় নিহতের মা বকুল বেগম বাদী হয়ে ৯ জনের নাম উল্লেখ করে কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা করেছেন।

আটক ফয়সাল জানিয়েছে, সে জামরুলতলা এলাকার একটি জর্দা ফ্যাক্টরিতে কাজ করে। তার বাবা দিনমজুর আর মা সখিনা বাসাবাড়িতে কাজ করেন। বিকেলে বাড়ির পাশে মাঠে গ-গোল শুনে সেখানে যায়। নিহত মামুন তাকে একপর্যায়ে লাথি মারে। এই কারণে তিনি তাকে মারপিট করেন। তবে ছুরিকাঘাত করে সাগর ও খানজাহান।ফয়সালের মা সখিনা বেগম জানিয়েছেন, তিনি এই ঘটনার কিছু জানেন না। সন্ধ্যার দিকে মাঠে গ-গোলের সংবাদ পেয়ে ফয়সাল সেখানে যায়। কিন্তু কাউকে হত্যা করেছে কি না জানি না। তবে সে অপরাধী হলে তার বিচার হোক।অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম রাব্বানী জানিয়েছেন, আহত আরিফের অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত