শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

জাপানি বন্ধুর অর্থায়নে বিদ্যালয়

আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:১৯ এএম

জাপানের নাগরিক রিউসুকে হনজোর অর্থায়নে ও শিক্ষানুরাগী ড. সৈয়দ এমদাদুল হকের সহযোগিতায় নড়াইলে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ‘এমদাদ-হনজো আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়’। জেলার লোহাগড়া উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে নারীশিক্ষায় আলো ছড়াচ্ছে এই বিদ্যালয়।

উপজেলার নোয়াগ্রামে ২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয় থেকে ২০১৮ সালের জেএসসি পরীক্ষায় শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করায় এলাকায় সুনাম ছড়িয়ে পড়ে। উপজেলার নোয়াগ্রামের শিক্ষানুরাগী ড. সৈয়দ ইমদাদুল হক জাপানে উচ্চশিক্ষা শেষে টোকিওর একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেন। এ সময় তার বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে জাপানি নাগরিক রিউসুকে হনজোর সঙ্গে। ড. এমদাদুল এলাকায় নারীশিক্ষা বিস্তারের ব্যাপারে রিউসুকোর সঙ্গে আলোচনা করেন। তখন জাপানি বন্ধু বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য অর্থায়ন করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

২০১৫ সালে এমদাদুল হকের কেনা ৫০ শতক জমির ওপর স্কুলের জন্য পাঁচতলা ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হয়। বর্তমানে দোতলা পর্যন্ত নির্মাণ করা হয়েছে। এই ভবনে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান চলছে। পাঠদানের জন্য আলাদা শ্রেণিকক্ষের পাশাপাশি রয়েছে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, সেমিনার কক্ষ, কম্পিউটার ল্যাবসহ নানা সুবিধা। ইতিমধ্যে বিদ্যালয়টি যশোর বোর্ডে একাডেমিক স্বীকৃতি পেয়েছে।

এমদাদ-হনজো আদর্শ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এ বছর প্রথমবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে। ভবিষ্যতে বিদ্যালয়টিকে স্কুল অ্যান্ড কলেজে উন্নীত করার স্বপ্ন রয়েছে বলে জানান বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি এমদাদুল হক। তিনি বলেন, এই প্রত্যন্ত অঞ্চলে মানসম্পন্ন শিক্ষা দেওয়ার লক্ষ্যে মেধাবী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তাই ফলাফলও সন্তোষজনক। 

প্রতিষ্ঠার চার বছর পর অর্থদাতা রিউসুকে হনজো সপরিবারে গত ৫ ফেব্রুয়ারি বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেন। তারা বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। হনজো সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার খুবই ভালো লেগেছে। ভবিষ্যতেও আমি অর্থসহায়তা দেব। নতুন আরও ভবন নির্মাণে সহযোগিতা করব।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত