রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

রেইনট্রি হোটেলে ধর্ষণ মামলা: রায় ১২ অক্টোবর, পাঁচ আসামি কারাগারে

আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৭ পিএম

বনানীর রেইন ট্রি হোটেলে ধর্ষণের মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাতসহ পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে রায় ১২ অক্টোবর। মামলার পাঁচ আসামির জামিন বাতিল করে কারাগারে প্রেরনের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সাফাতের বিরুদ্ধে দুই তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগের মামলার শুনানি শেষে ঢাকার ২ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক মোছা. কামরুন্নাহার রবিবার রায়ের তারিখ ঠিক করে এই আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি পিপি আফরোজা ফারহানা আহমেদ অরেঞ্জ এই তথ্য জানিয়েছেন। মামলায় আসামি পক্ষে ছিলেন এহসানুল হক সমাজী, শাহীনূর ইসলাম অনি, আব্দুল বারেক।

মামলায় আসামিরা হলেন আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদ, তার বন্ধু সাদমান সাকিফ ও নাঈম আশরাফ ওরফে এইচএম হালিম, সাফাতের দেহরক্ষী রহমত আলী ও গাড়িচালক বিল্লাল।

আসামিরা সবাই জামিনে ছিলেন। তবে রবিবার সব আসামির জামিন বাতিল করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। জামিন বাতিলের আদেশে তাদের চোখেমুখে উদ্বেগের ছাপ দেখা গেছে।

আলোচিত এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে মোট ২২ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ রেইনট্রি হোটেলে সাফাতের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানিয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়।

ঘটনার এক মাসের বেশি সময় পর ৬ মে বনানী থানায় মামলাটি হয়। ওই দুই তরুণীর অভিযোগ, ওই হোটেলে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে রাতভর আটকে রেখে সাফাত ও নাঈম তাদের ধর্ষণ করেন। অন্য তিনজন তাতে সহায়তা করেন।

মামলার কয়েকদিনের মধ্যে ১১ মে সিলেট থেকে সাফাতকে গ্রেপ্তার করা হয় । তার সঙ্গে গ্রেপ্তার হন সাদমানও। অন্য আসামিদেরও এর মধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলা হওয়ার পরের মাসেই ৭ জুন তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের উইমেন সাপোর্ট অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশন ডিভিশনের (ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার) পরিদর্শক ইসমত আরা এমি আদালতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

রাষ্ট্রপক্ষ আসামিদের শাস্তি চাইলেও আসামি পক্ষের আইনজীবীরা বলছেন, আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেনি রাষ্ট্রপক্ষ।

অন্যদিকে, আসামি পক্ষের আইনজীবীদের অভিযোগ, সাফাতের সাবেক স্ত্রী ফারিয়া মাহবুব পিয়াসার ইন্ধনে এই মামলাটি হয়েছে।

মডেল পিয়াসা সম্প্রতি মাদকের মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে এখন কারাগারে রয়েছেন। সাফাতের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা হওয়ার কয়েক মাস আগে তার সঙ্গে পিয়াসার বিচ্ছেদ হয়।

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত