রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

‘জুনের আগেই প্রস্তুত বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম’

আপডেট : ১১ জানুয়ারি ২০২৩, ১২:১৫ এএম

ফুটবল অঙ্গনে আলোচনার কেন্দ্রে এখন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনার সম্ভাব্য ঢাকা সফর। আগামী জুন-জুলাইতে লিওনেল মেসির দলকে ঢাকায় এনে একটি প্রীতিম্যাচ খেলানোর ইচ্ছের কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। বাফুফে সভাপতির এই ইচ্ছের কথা জানা ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের। মেসিদের সম্ভাব্য সফরের আগেই বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সংস্কারকাজ শেষ করার আশ্বাস দিয়েছেন ক্রীড়াঙ্গনের অভিভাবক। তবে মেসিদের ম্যাচ আয়োজনে যে বিপুল পরিমাণ অর্থের প্রয়োজন হবে, তার উৎস কী হবে, তা নিয়ে মন্ত্রী এখনই মুখ খোলেননি। বাফুফে সভাপতিও জানাননি কী করে মিলবে বিপুল অঙ্কের অর্থ।

২০১১ সালে এই ভেন্যুতেই নাইজেরিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ খেলেছিল আর্জেন্টিনা। গত দেড় বছর ধরে এই স্টেডিয়ামে প্রায় শতকোটি টাকার সংস্কার কাজ করছে সরকার। ফলে এই মাঠে বল গড়ায় না অনেক দিন। বিকল্প ভেন্যুতে নিয়মিত খেলা চালানোই বড় চ্যালেঞ্জ। এর মধ্যেই আর্জেন্টিনাকে আনার বিলাসী স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন বাফুফের সভাপতি। এক যুগ আগে আর্জেন্টিনা-নাইজেরিয়া ম্যাচ আয়োজন করে বিপুল অঙ্কের ধারের মুখে পড়তে হয় বাফুফেকে। একটি বেসরকারি ব্যাংক থেকে ১০ কোটি টাকা লোন নিতে হয়েছিল। এই এক যুগে সেই টাকা তো পরিশোধ হয়ইনি, উপরন্তু প্রতি বছর সুদ-আসল বেড়ে অঙ্কটা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। এর মধ্যেই আবারও প্রায় ৬-৭ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে মেসিদের আনার কথা জানিয়েছেন বাফুফে সভাপতি। টাকার সংকুলান কীভাবে হবে, এ নিয়ে মন্ত্রী কাল কথা না বললেও কথা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামকে ম্যাচের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত করে দেওয়ার। গতকাল জাতীয় হ্যান্ডবল চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল ম্যাচ দেখতে এসে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী সবশেষ অবস্থা জানাতে গিয়ে সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘ঠিকাদার বলেছেন অ্যাথলেটিকস ট্র্যাক বসানোর কাজ ফেব্রুয়ারির মধ্যে করে দেবেন। মার্চে মাঠে ঘাস লাগানোর কাজ পুরোদমে শুরু হবে। পাশাপাশি শেডের কাজ বাইরে থেকে ক্রেন লাগিয়ে করা হবে। আমরা নির্দেশনা দিয়েছি এপ্রিলের আগেই শেষ করতে। ফুটবল মাঠে ঘাস নিয়ে বিতর্ক হয়। এই জন্য বাফুফেকে দায়িত্ব দিয়েছি। যেন তাদের উপযোগী করে ঘাস লাগাতে পারে। এপ্রিলে মাঠ বুঝিয়ে দেবে এখন পর্যন্ত আমরা এটাই জানি।’ ফ্লাডলাইটও শক্তিশালী করার কথা বলেছেন মন্ত্রী, ‘লাইট লাগানোর জন্য সময় আছে। আসলে সবগুলোর পেছনে আর্থিক বিষয় জড়িত। তা সমাধানের চেষ্টা করছি। জুনের আগেই বুঝিয়ে দেব। ২০১১ সালে আর্জেন্টিনাকে যেভাবে স্বাগত জানিয়েছিলাম, আশা করছি তার চেয়ে উন্নত সুবিধা দিয়ে এবার মেসিদের স্বাগত জানাতে পারব।’

সালাউদ্দিন বাফুফের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই উল্টো রথে যাত্রা শুরু করেছে দেশের ফুটবল। মাঠে নামকাওয়াস্তে লিগ আয়োজনে বাহবা কুড়াতে চাওয়া সালাউদ্দিনের আমলে দেশের র‌্যাংকিং সর্বনিম্ন ১৯৭তম স্থানে পৌঁছেছিল। এর মধ্যেই বাফুফের বেশ ক’জন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ তদন্ত করছে ফিফা। নেতিবাচক কারণে প্রায়ই শিরোনাম হওয়া বাফুফে তাই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনাকে নিয়ে সাধারণ মানুষের বাঁধভাঙা উন্মাদনাকে ক্যাশ করতেই মেসিদের ফের ঢাকায় আনার কথা বলছেন সালাউদ্দিন। স্বপ্ন বাস্তবায়নে বিপুল অঙ্কের উৎস অজানা রাখছেন সালাউদ্দিন। এক্ষেত্রে সরকার আগ্রহী হয়ে অর্থের জোগান দেবে কিনা, তা সময়ই বলে দেবে। নাহলে অনিয়মজর্জর বাফুফের ঘাড়ে চেপে বসবে আরও বড় অঙ্কের দেনা।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত