সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

গল্পের মতো যদিও গল্প নয়

আপডেট : ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১১:১৬ পিএম

আরশোলা চিৎ হয়ে আছে। তার পাগুলো আকাশের দিকে উঠে আছে। পিঠের ওপর ভর দিয়ে আর শুয়ে থাকা যাচ্ছে না। উফ্। কতদিন শুয়ে আছে সে জানে না। সম্ভবত অনন্তকাল। মনে পড়ে, সে যখন উল্টে গিয়েছিল তখন জাপানে পারমাণবিক বোমার বিস্ফোরণ ঘটেছিল হিরোশিমায় নাকি নাগাসাকিতে বিশেষ মনে পড়ে না। তবে এটুকু মনে আছে, পারমাণবিক বিস্ফোরণের কম্পনেই সে উল্টে গিয়ে চিৎ হয়ে পড়েছিল। তারপর একবার সোজা হয়েছিল। অল্প সময়ের জন্য। এরপর থেকে সে প্রায়ই উল্টে যায় এবং দিনের বেশিরভাগ সময় ওল্টানো অবস্থাতেই কাটে। 

উল্টে যাওয়ার ঘটনার মধ্য দিয়েই আরশোলাদের মধ্যে ঈশ^র-ভাব তৈরি হয়েছিল। সম্প্রতি বিকশিত তাদের মিথে ঈশ^র একজন উল্টে থাকা আরশোলা নাম তেলাচোরা বাণেশ^র। তার আরেক নাম সহস্রপাদ। শোনা যাচ্ছে, তাদের একটা কিতাব রচিত হচ্ছে, নাম ‘তিয়েল’। বিশদ নাম শ্রীমদন তেলাশ্রম বাণপঞ্চম রমণচন্দ্রম মধুমেহন।

তার বাড়ি কোথায় ছিল এখন আর তার মনে নেই। সম্ভবত তেলাপোকার জীবনই তার একমাত্র জীবন ছিল এবং আছে। এখন তার খুব নিঃসঙ্গ লাগে। কালেভদ্রে অন্য কোনো আরশোলার সঙ্গে তার দেখা হয়। তারা তাকে গ্রেগর সামসা বলে ডাকে। সম্প্রতি আরেক আরশোলার সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হয়েছে। প্রায়ই দেখা হচ্ছে তাদের। কিন্তু কোথায় দেখা হচ্ছে উল্টে থাকায় ঠিকমতো স্মরণ হচ্ছে না। তেলাপোকার স্মৃতি আছে কি না তা তার জানা নেই। বোধহয় বিষয়টি সাম্প্রতিক। আগে কখনো কোনো কিছু মনে রাখার প্রশ্ন তো ছিল না! কোথায় শুয়ে এসব সে ভাবছে তা-ও বলতে পারে না গ্রেগর সামসা। এসব স্মৃতি-টিতি খুব সম্ভবত সাম্প্রতিক। তবে সে জানে তেলাপোকাদের ভূগোলের বিস্তার খুব চওড়া। মনুষ্যবাহনে চড়ে তারা দুনিয়ার এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্তে চলে যেতে পারে। শোনা যাচ্ছে ইদানীং তারা চন্দ্রে-মঙ্গলেও পাড়ি জমাচ্ছে। এখন কক্রোচ গ্লোবালাইজেশনের যুগ। তাদের গসপেল তিয়েলের প্রচারের যুগ এখন। গ্রেগর সামসা ১৯৪৫-৪৬ থেকেই চিৎ হয়ে থাকলেও এবং এখন প্রায়শ হলেও আর কোনো চিৎ হওয়া আরশোলার দেখা পায়নি এতকাল। সম্প্রতি ওইরকম আরেকজনের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হচ্ছে।

আরশোলাদের ঐশী এবং ঈশানী কিতাব রচিত হচ্ছে বলেই সম্ভবত তাদের ভৌগোলিক বিস্তৃতি বেড়েছে এবং বাড়ছে। যে আরশোলাটির সঙ্গে ইদানীং তার দেখা হচ্ছে তার নাম আংকেল স্যামুয়েল স্যামুয়েল ওরফে পেনিসোভিচ। গ্রেগর সামসা এবং আংকেল স্যামুয়েল মনে হয় বিপরীত তরিকার আরশোলা। সেটা তাদের অবস্থানিক কারণে কিনা বলা মুশকিল। গ্রেগর সামসার মনে পড়েছে, কিভি রাসে তাদের দেখা। ফ্রানৎস কাফকার মানসপুত্র সে। সে জেনেছে, কাফকার দেশ ও কিভি রাস একই অঞ্চলে। আর আংকেল স্যামুয়েল স্যামুয়েল জন্মেছে অতলান্তিকের পশ্চিম পাড়ের দেশে। কলম্বাসের ভেলায় চড়ে সে অতলান্তিক পাড়ি দিয়েছিল। সাম্প্রতিক সময়ে কিভি রাসে বণিকের মানদণ্ড হাতে হাজির হয়েছে স্যামের দেশ। তখন থেকে স্যামুয়েলও আছে কিভি রাসে। তার নয় বটে, তবে তার রাষ্ট্রের মানদণ্ড সেখানে রাজদণ্ড হয়ে উঠতে চাইছে। গ্রেগর সামসা পালিয়েছিল তার দেশ থেকে উল্টে থেকেই ইদানীং আবার সেখানে চাকরি-বাকরির সমস্যা দেখা দিয়েছে। আর শমুয়েল (স্যামুয়েলের হিব্রু নাম) নৌবহরে চেপে এসেছিল রাসে। উল্টে যাওয়া অবস্থাতেই তারা নিষ্কৃত হয়েছে কিভি রাসের গ্রিন গ্রাসল্যান্ডে। জায়গাটা হয় দনবাসে অথবা দনবাসের কাছে কোথাও।

অদ্ভুত কারণে তাদের গ্রে ম্যাটারে অদ্ভুত পরিবর্তন এসেছে। তারা এখন মানুষের কথা বুঝতে পারে, ইঙ্গিতও ধরতে পারে। এটা বোধহয় তাদের আরশোলা-জীবনের অনন্য অর্জন। কে বলতে পারে! হয়তো তা তাদের ঈশ্বরের মহিমা। উল্টে যাওয়া আরশোলারা এখন বুঝতে পারে, রাসল্যান্ডে একটা যুদ্ধ চলছে। ঘাসের আপাত অদৃশ্য কন্দরে শুয়ে তারা মানুষের যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা দেখে। মর্ত্যলোকে মানুষ নামের প্রজাতিটির স্থিতিকাল তাদের চেয়ে বেশি নয়। আরশোলারা এই পৃথিবীতে টিকে আছে প্রায় তিরিশ কোটি বছর। ডাইনোসরেরও আগে থেকে। মস্তক ছাড়াই তারা অন্তত এক সপ্তাহ বেঁচে থাকতে সক্ষম। তাদের হালের বিবর্তনটা আচানকই বটে। তারা মানুষের এনক্রিপ্টেড ভাষাও বুঝতে পারে। একদিন ঈশ্বরের দয়ায় তারা হয়তো উল্টে যাওয়া থেকে অনায়াসে সোজাও হতে পারবে। এ জন্য, বিশেষ করে গ্রেগর সামসা, ভাবছে বেড়ালের কাছে তারা পড়ন্তকালে ভাসমান অবস্থায় উল্টে যাওয়া বিষয়ক বিশেষ প্রশিক্ষণ নেবে। দেন নো বডি উইল বি এবল টু কিপ দেম আপসাইড ডাউন।

তেলাপোকা আংকেল স্যাম কী ভাবছে তার জানা নেই, জানার প্রয়োজনও বোধ করে না সে। উল্টো দশা থেকে সোজা হওয়া যাবে কিনা সেটাই তার মূল ভাবনা। এসব কথা ভাবছে র‌্যান্ড করপোরেশন, পেন্টাগনের থিংকট্যাংক এ কথা ভাবতে গেল কেন? বিশেষ কোনো উদ্দেশ্য আছে নাকি! নাকি রাষ্ট্রব্যবস্থায় গভীর কোনো চিন্তনবিভ্রাটের প্রতিফলন এটা।

রাষ্ট্রের থিংকট্যাংক যখন রাষ্ট্রচিন্তার সঙ্গে বিরোধপূর্ণ ভাবনার প্রতিফলন ঘটায় তখন রাষ্ট্রের বনেদি অংশে অর্থাৎ নীতিনির্ধারকদের মধ্যে চিড় ধরেছে বলা চলে। যুক্তরাষ্ট্র তো এই যুদ্ধেরই পক্ষে। এত সাধ করে তারা স্যাংকশন জারি করল, তাও আবার কয়েক দফায় তার কি কোনো ফল তারা পাচ্ছে না? র‌্যান্ড করপোরেশনের ইঙ্গিত তো সেদিকেই। নিষেধাজ্ঞায় উল্টো ফল হলো তাহলে? সে সিদ্ধান্তে পৌঁছাল: শুধু তার মতো আরশোলারাই উল্টে যায় না, কখনো কখনো গোটা রাষ্ট্রটাই উল্টে যায়। শুধু সে-ই বোকা নয়, কখনো রাষ্ট্রের চালকচামুণ্ডারাও বোকা হয়। গ্রেগর সামসা এ ব্যাপারে আংকেল স্যামের সঙ্গে কথা বলার আগ্রহ খুঁজে পেল না। কারণ আংকেল স্যাম যুক্তরাষ্ট্রের আরশোলা। কিন্তু এমন ভাবনা কি ঠিক! পিতার অর্থাৎ পালয়িতার চরিত্রদোষে পুত্রকে দায়ী করা চলে না। তবু গ্রেগর সামসা সাবধান থাকতে চাইছে। সম্ভবত এটা কাফকায়েস্ক কিউরিওসিটি।

গ্রেগর সামসা পড়ে পাওয়া চৌদ্দ আনার মতো গ্রাসল্যান্ডে পড়ে থাকা র‌্যান্ড করপোরেশনের রিপোর্টটির বিষয়ে একটি পত্রিকার বিশ্লেষণী প্রতিবেদন পড়তে থাকল। ইদানীং তাদের পাঠের অভ্যাসও হয়েছে। নাকি কেবলই তার হয়েছে। সে পড়তে থাকল

RAND CorporationÕs latest report on Ukraine [is] so significant, [ecause it] is not the quality of the analysis, but the fact that the nationÕs most prestigious national security think-tank has taken an opposite position on the war than the Washington[`s] political class and their globalist allies. This is a very big deal. .. Keep in mind, wars donÕt end because the public opposes them. That is a myth. Wars end when a critical split emerges between elites that eventually lead(s) to a change in policy. The RAND CorporationÕs new report, ÔAvoiding a long war: US policy and the trajectory of the Russia-Ukraine conflictÕ, represents just such a split. It indicates that powerful elites have broken with the majority opinion because they think the current policy is hurting the United States. (Ukraine Is Sinking. Are Western Elites Bailing Out?/ Mike Whitney; February 1, 2023. (https://www.unz.com)

গ্রেগর সামসা ভাবছে, মানুষকে পাঠ করার, মানুষের মন্তব্য বোঝার, মানুষের এনক্রিপ্টেড ল্যাংগুয়েজ বোঝার সামর্থ্য কি শুধুই তার হয়েছে? আর কোনো আরশোলার হয়নি? বিবর্তন কি ব্যক্তিগত? নাকি সমষ্টিগত! আংকেল স্যামুয়েল স্যামুয়েলের সঙ্গে যেহেতু তার কথা হচ্ছে না তাই সে বুঝতে পারছে না এ পরিবর্তনটা কেবল তার মধ্যেই হয়েছে কি না। তৃতীয় কোনো আরশোলার দেখা পেলে এ বিভ্রাট ভঞ্জন করা হয়তো সম্ভব হতো। 

ইউক্রেন পরিস্থিতি বিষয়ে গ্রেগর সামসা আরও কিছু জ্ঞান অর্জন করেছে। এর মধ্যেই একদিন প্রায় আধমরা অবস্থায় আরেক আরশোলা এসে হাজির। যে ট্রেঞ্চে কিঞ্চিৎ দূরে আংকেল স্যামের সঙ্গে চিৎ হয়ে শুয়েছিল সে সেখানে লাফিয়ে পড়তে গিয়ে উল্টো হয়ে গেছে আগন্তুক আরশোলা। কী যে জ্বালা সব চিৎ হওয়া আরশোলা এই ট্রেঞ্চে এসে উপুড় হয়ে যাচ্ছে। নাকি তা তাদের ঈশ^রের কেরামতি। তারা দেখেছে, মানুষের দল এ ধরনের ঐশ^রিক কেরামতিতে খুব আস্থাশীল। হয়তো তাতে কিছু ফল ফলে। তারাও নাহয় ঈশ্বরে একটু আস্থাশীল হবে, অসুবিধা কী!

নবাগত আরশোলারও তাদের মতোই চৈতন্যোদয় হয়েছে। সে বলছে, এই এলাকার অবস্থা খুব খারাপ বলেই তার দেমাকে এসেছে। ক্রিস হেজের ইউক্রাইন দ্য ওয়ার দ্যাট ওয়েন্ট রং নামের একটা লেখা তার নজরে পড়েছে। তাতে বলা হয়েছে

Empires in terminal decline leap from one military fiasco to the next. The war in Ukraine, another bungled attempt to reassert U.S. global hegemony, fits this pattern.

যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনকে আক্রমণাত্মক অস্ত্র ও রসদ জোগাচ্ছে। বিমানবিধ্বংসী স্টিংগার ক্ষেপণাস্ত্র, ট্যাংকবিধ্বংসী জ্যাভেলিন ক্ষেপণাস্ত্র, এম৭৭৭ টাউড হাউটজার, গ্র্যাড রকেট, এম১৪২ মাল্টিপল রকেট লঞ্চার, হাইমারস ক্ষেপণাস্ত্র, টাউ ক্ষেপণাস্ত্র, প্যাট্রিয়ট এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম, নাসাম ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা, আর্মারড পারসোনেল ক্যারিয়ার প্রভৃতি। এম১ আব্রামস ট্যাংকও দিচ্ছে। এসবের সঙ্গে জার্মান লেপার্ড ২এ৬ ট্যাংক, ব্রিটিশ চ্যালেঞ্জার টু ট্যাংক আসছে। পোল্যান্ড ও অন্যান্য ন্যাটো-সদস্য দেশ থেকেও ট্যাংক আসছে। বর্মভেদী ডিপ্লিটেড ইউরেনিয়ামও দেওয়া হচ্ছে। দেওয়া হচ্ছে এফ-১৫ ও এফ-১৬ জঙ্গিবিমান। ২৮টি দেশ বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র সরবরাহ করতে যাচ্ছে। আগেও প্রচুর অস্ত্র সরবরাহ করা হয়েছে, যার সিংহভাগ রাশিয়ার পাল্টা হামলায় ধূলিসাৎ হয়েছে। অস্ট্রেলিয়া, কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া বাকি সবই ইউরোপের দেশ।

যুদ্ধের ফলে ইউক্রেনের অর্থনীতি ২০২২ সালে ৩৫ শতাংশ সংকুচিত হয়েছে। ৬০ শতাংশ ইউক্রেনি দিনে সাড়ে ৫ ডলারও খরচ করতে পারছে না। ৯০ লাখ ইউক্রেনির বিদ্যুৎ নেই। তাপমাত্রা এখন শূন্যের নিচে।

হেজিমনির অবসান ঘটতে যাচ্ছে। পেলিপ্পোনেশিয়ান যুদ্ধে এথেন্সের হেজিমনির অবসান হয়েছিল। রোম সাম্রাজ্যের ক্ষয় যখন চূড়ান্তে তখন প্রিটোরিয়ান গার্ডরা এম্পারারশিপকে নিলামে তুলেছিল, যে বেশি অর্থ দিতে পারবে তাকেই এম্পারারশিপ দেওয়া হবে। সামরিক বলদামিতে প্রথম বিশ^যুদ্ধে হত-শক্তি ব্রিটিশ সাম্রাজ্য সুয়েজ খালের জাতীয়করণ উপলক্ষে মিসরে হামলা চালাতে গিয়ে ১৯৫৬ সালে সব হারাল এবং যুক্তরাষ্ট্রের চামচায় পরিণত হলো। ২০২২ সাল মার্কিন হেজিমনির অস্তাচলের বছর।

 While rising empires are often judicious, even rational in their application of armed force for conquest and control of overseas dominions, fading empires are inclined to ill-considered displays of power, dreaming of bold military masterstrokes that would somehwo recoup lost prestige and power,” (https://consortiumnews.com/)

মার্কিন হেজিমনিরও এখন সেই দশা। অস্তগামী সূর্য। অস্তমান বিবস্বান। কিন্তু সাম্রাজ্য পুরোপুরি অস্তমিত না হলে এমন জ্ঞানেরও উদয় হয় না। জয় তেলাচোরা বাণেশ^র। জয় সহস্রপাদ। তিন আরশোলাই কিঞ্চিৎ বিশ্রামের জন্য চিতাবস্থা থেকে হঠাৎ উপুড়াবস্থায় ধ্যানস্থ হলো। বিশ^ব্যবস্থাটা কি সত্যি বদলে যাচ্ছে!

লেখকঃ সাংবাদিক

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত