বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ভালো বীজে ভালো ফসল

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৪, ১২:১৯ এএম

অনেকেই আছেন ভালো বীজ কিনতে না পেরে ভালো গাছ বা ফলন কোনোটাই পান না। উন্নতমানের ভালো বীজের বেশকিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে। মানসম্পন্ন ও উন্নতমানের ভালো বীজ কীভাবে চিনবেন জেনে নিন। জানালেন পীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাদেকুজ্জামান সরকার

ভালো বীজের বাহ্যিক চেহারা হবে উজ্জ্বল ও সুন্দর যা দেখা মাত্র ক্রেতা আকৃষ্ট হবে। বীজে কোনো নিষ্ক্রিয় পদার্থ যেমন বালি, পাথর, ছোট মাটি, ভাঙা বীজ, বীজের খোসা ইত্যাদি থাকবে না। বীজ হবে বিশুদ্ধ ও ঝকঝকে। বীজের আর্দ্রতা নির্ধারিত মাত্রায় থাকবে। যেমন ধান, গম, ভুট্টার বেলায় ১২%, ডালজাতীয় শস্যের বেলায় ৯%, পাট ৯%, সরিষা ৮%, সূর্যমুখী ৯%, ফুলকপি ৭%। বীজের অংকুরোদগম ক্ষমতা সর্বনিম্ন ধান ৮০%, গম ৮৫%, ডাল শস্য ৭৫-৮৫%, শাকসবজি ৭০-৭৫% নির্ধারিত মানের হতে হবে।

বীজ হতে হবে সজীব। সজীব বীজ থেকে সুস্থ ও সবল চারার জন্ম হবে। বীজ নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করতে হবে। বীজ গুদামজাতকরণে সঠিক আর্দ্রতা প্রয়োজন।  বীজ শুষ্ক পরিবেশে দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করা যায়। বীজ উৎপাদনের জন্য কৃষি বা বীজ প্রযুক্তিবিদদের তত্ত্বাবধান প্রয়োজন। দেশের পরিবেশে একই বীজ দুই থেকে তিন বছর ভালো ফলন দেয়। এরপর নির্দিষ্ট অঞ্চলের মাটি, জলবায়ু, সূর্যালোকের স্থায়িত্ব, তাপমাত্রা, পরিচর্যা ও পোকামাকড় প্রতিকূল আবহাওয়া ফসলের ফলন ও গুণগতমানে বিরূপ প্রভাব ফেলে। ধারাবাহিক চাষে বীজের মান হ্রাস পাওয়ার পর বীজ পরিবর্তনের প্রয়োজন হয়। তাই ২ থেকে ৩ বছর পর পর বীজ পরিবর্তন করে নতুন বীজ কেনাই ভালো।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত