বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে অটোরিকশা চুরির মামলা

আপডেট : ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৩৯ পিএম

জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলায় হাজরাবাড়ি পৌর ছাত্রলীগ নেতা মো. মারুফের বিরুদ্ধে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চুরি অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী মিজানুর রহমান। এ ঘটনায় মো. লেবু মিয়া (৩১) ও মো. সবুজ মিয়া (২২) নামে দুইজনকে আটক করে আদালতে প্রেরন করেছে পুলিশ। তবে মামলায় ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ফাঁসানো হয়েছে বলে দাবি করেছেন ওই ছাত্রলীগ নেতা। 

আজ বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরের দিকে হাজরাবাড়ি পৌর ছাত্রলীগ নেতাসহ তিনজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার সকালে উপজেলার ঝাউগড়া ইউনিয়নের মানকী এলাকা থেকে অটোরিকশাটি চুরি হয়। পরে ওই দিন রাত ১০ টার দিকে হাজরাবাড়ী এলাকায় থেকে অটোরিকশাসহ দুইজনকে আটক করা হয়।

অভিযুক্ত মো. মারুফ হাজরাবাড়ি পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ওই উপজেলার পৌর শহরের ব্রাহ্মনপাড়া আমতলা এলাকার বাসিন্দা এবং মামলার ৩ নম্বর আসামি। গ্রেপ্তার মো. লেবু মিয়া ঢালুয়াবাড়ি পশ্চিমপাড়া গ্রামের ও মো. সবুজ মিয়া ওই উপজেলার ঢালুয়া বাড়ি গ্রামের বাসিন্দা।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গতকাল মেলান্দহ উপজেলার ঝাউগড়া ইউনিয়নের মানকী বাজার এলাকার সড়কের পাশে অটোরিকশা রেখে দুধ কিনতে যান মিজানুর রহমান। এ সময় সুযোগ বুঝে অটোরিকশাটি চুরি করে নিয়ে যায় লেবু, সবুজ ও মারুফ। পরে ওই দিন রাত ১০ টার দিকে হাজরাবাড়ি এলাকায় অটোরিকশাটি বিক্রি করতে গিয়ে অটোরিকশাসহ দুই চোরকে আটক করে স্থানীয়রা। এ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় মিজানুর রহমান। এ সময় হাতেনাতে দুইজনকে ধরতে পারলেও মারুফসহ আরও তিনজন পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আসামিদের গণপিটুনি দিয়েছে স্থানীয়রা।

এ বিষয়ে হাজরাবাড়ি পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মারুফ বলেন, ‘আমি রাজনীতির পাশাপাশি ভাঙারি মালের ব্যবসা করি। আমার অনুপস্থিততে দুইজন লোক অটোরিকশার ব্যাটারি আমার দোকানে রেখে যায়। পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে আমি ও আমার কর্মচারীরা সেই দুই ব্যক্তিকে ধরি এবং থানায় ফোন দেই। মূলত আমিই ওই অটোরিকশা চোরদের ধরি। কিন্তু থানায় নাকি আমার নামেও মামলা হয়েছে। একটি পক্ষ আমাকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ফাঁসিয়েছে। আমি ভালো করতে গিয়ে মামলার আসামি হলাম।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খান আরিফুল ইসলাম শাওন বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা ছিল না। আপনার কাছেই জানলাম। ঘটনার বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে আমার সেক্রেটারির সাথে কথা বলে তদন্ত কমিটি করে দেওয়া হবে। তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ 

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাজু আহমেদ বলেন, ‘এ ঘটনায় তিনজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও তিনজকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুইজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আর বাকি আসামির বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। প্রকৃত দোষীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত