বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ছাত্ররাজনীতির বিরুদ্ধে অনড় বুয়েট শিক্ষার্থীরা

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২৭ পিএম

ঈদের ছুটি শেষে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) আনুষ্ঠানিকভাবে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম শুরু হলেও ছাত্র রাজনীতিমুক্ত ক্যাম্পাসের দাবিতে অনড় অবস্থানে রয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। ঈদের ছুটির পরও পরীক্ষা বর্জন অব্যাহত রেখেছেন তারা। এদিকে উদ্ভব সমস্যা সমাধানে আগামীকাল শনিবার জরুরি অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভা ডেকেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বুয়েট সূত্রে জানা যায়, ঈদ ও নববর্ষের ছুটির পর গত বুধবারের পরীক্ষায় ব্যাচের ১ হাজার ২৭৯ জনের মধ্যে মাত্র ৮ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছেন। তাদের ৫ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এছাড়া বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় ২২তম ব্যাচের টার্ম ফাইনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ১৩০৫ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে কোনো শিক্ষার্থীই পরীক্ষায় অংশ নেয়নি।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, রাজনীতিমুক্ত ক্যাম্পাসের নিশ্চয়তা না পেলে পরীক্ষা কিংবা ক্লাসে ফিরবেন না তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বুয়েটের এক শিক্ষার্থী দেশ রূপান্তরকে বলেন, আমাদের যে দাবি ছাত্ররাজনীতি বিরুদ্ধে সেটিতে আমরা অনড় রয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে এর বিরুদ্ধে অফিসিয়াল ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আমরা ক্লাস পরীক্ষায় ফিরব না। আমরা পূর্বনির্ধারিত পরীক্ষাগুলো বর্জন করেছি। সকল শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে ফিরলে আমরা আবারও আন্দোলনে নামব।

এদিকে শিক্ষার্থীদের ক্লাস-পরীক্ষায় ফেরাতে এবং উদ্ভব সমস্যা সমাধানে শনিবার অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভা ডেকেছে বুয়েট প্রশাসন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পরিচালক পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আল আমিন সিদ্দিক দেশ রূপান্তরকে বলেন, এই ইস্যুতে আগামীকাল আমাদের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সভা আছে। তার আগে কোনো কিছু বলা যাচ্ছে না।

এছাড়া বুয়েট শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা ইমতিয়াজ হোসেন রাব্বির করা রিটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ছাত্ররাজনীতির পক্ষে রায় দিলেও বুয়েট এখনো লিখিত আদেশ পায়নি বলে জানিয়েছেন ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পরিচালক। তিনি বলেন, হাইকোর্টের সিদ্ধান্তের লিখিত আদেশ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পায়নি। আদেশ পাওয়ার পরই পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে। মিডিয়াতে আমরা বিভিন্ন বক্তব্য শুনেছি তবে লিখিতভাবে না পেলে আদেশে কি আছে এবং পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে সেটা বুঝা যাচ্ছে না।

গত ২৭ মার্চ মধ্যরাতে বুয়েট ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের মহড়াকে কেন্দ্র করে আন্দোলনে নামেন বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। পরে ৬ দফা দাবি জানান তারা। জানা গেছে, এই ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি ইতিমধ্যে উপাচার্যের কাছে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে কেউ কিছু না বললেও ধারণা করা হচ্ছে, শিক্ষার্থীদের দাবি এবং তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী 
গত মঙ্গলবার বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পরিচালক (ডিএসডব্লিউ) অধ্যাপক মো. মিজানুর রহমানকে তার পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তার স্থলে নতুন পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদকে শেরেবাংলা হলে পিটিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। ওই ঘটনায় করা মামলায় ২০ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও পাঁচজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত। সাজাপ্রাপ্তরা সবাই ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী। আবরার ফাহাদ হত্যার পর বুয়েট ক্যাম্পাসে রাজনৈতিক কার্যক্রম নিষিদ্ধ করে কর্তৃপক্ষ। 

পরবর্তীতে ছাত্ররাজনীতির বিরুদ্ধে সবসময় সোচ্চার থাকতে দেখা যায় বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীদের। তবে গত ২৭ মার্চের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুয়েটের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা ইমতিয়াজ হোসেন রাহিম রাব্বির আবাসিক হলের সিট বাতিল করা হলে ছাত্ররাজনীতির পক্ষে সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। পরবর্তী রাব্বির করা রিটের প্রেক্ষিতে বুয়েটের 

ছাত্ররাজনীতি বিরুদ্ধে নোটিশ এবং সিট বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। তবে ছাত্ররাজনীতির বিপক্ষে অনড় রয়েছেন শিক্ষার্থীরা। আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই আকাঙ্ক্ষা পূরণ করতে বুয়েটের উপাচার্য সত্যপ্রসাদ মজুমদারের কাছে তারা আরজি জানিয়েছেন। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত