বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

তীব্র দাবদাহে বন্ধ হচ্ছে ঢাবি? যা জানাল প্রশাসন

আপডেট : ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৩৬ পিএম

চলমান তাপপ্রবাহের কারণে দেশের প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আগামী ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তবে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হচ্ছে কি-না সে বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বিশেষ করে স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে।

তীব্র দাবদাহের কারণে অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে মিল রেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) বন্ধ রাখার পক্ষে মত দিচ্ছেন অধিকাংশ শিক্ষার্থী। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা দেয়নি।

এ বিষয়ে জানতে দেশ রূপান্তরের পক্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. সীতেশ চন্দ্র বাছারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বন্ধের বিষয়ে আমরা মাননীয় উপাচার্য স্যার এবং প্রশাসনের সিনিয়রদের সাথে আলাপ আলোচনা করব। তবে আমাদের ক্লাসগুলোতে এসির ব্যবস্থা রয়েছে। তাছাড়া আমাদের এডাপটেশনের ক্ষমতা স্কুল, কলেজের  (ইন্টারমিডিয়েট) বাচ্চাদের থেকে অনেক বেশি। সুতরাং সে বিষয়টিকেও আমাদের বিবেচনায় রাখতে হবে।

এদিকে অধিকাংশ শিক্ষার্থী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের পক্ষে মত দিতে দেখা গেছে। তারা বলছেন, ক্লাসে এসির ব্যবস্থা থাকলেও ক্লাসরুম পর্যাপ্ত নেই। বেশিরভাগ সময় ঠাসাঠাসি কিংবা এসি বিহীন ক্লাস রুমে ক্লাস করতে হয়। এ ছাড়া অনেক শিক্ষার্থী দূর থেকে ক্লাস করতে আসেন। তীব্র তাপপ্রবাহের কারণে রুম থেকে বের হওয়া কঠিন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের এক শিক্ষার্থী বলেন, কলাভবনের অধিকাংশ বিভাগে এক বেঞ্চে ৪/৫ জন করে বসে ক্লাস করে। নিজেদের পর্যাপ্ত ক্লাসরুম না থাকায় অন্য বিভাগের ক্লাসরুমেও ক্লাস করে। প্রতিবেঞ্চে ৪/৫ জন করে বসলে এসি আসলে কতটা কার্যকর এই অবস্থায় সেটাও চিন্তা করা দরকার। এ ছাড়া এই গরমে বের হওয়াটাও অনেক কঠিন। যেকোন সময় যেকেউ অসুস্থ হতে পারে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত