বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

‘জয় হো’ গানের সুরকার এ আর রহমান নন, বিস্ফোরক দাবি রাম গোপালের

আপডেট : ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩৬ পিএম

পনেরো বছর আগে অর্থাৎ ২০০৯ সালে অস্কার মঞ্চে ১০ বিভাগের মধ্যে ৮টি পুরস্কার পেয়ে বিশ্বে সাড়া ফেলে দিয়েছিল ‘স্লামডগ মিলিওনিয়ার’। ওই মঞ্চেই ‘জয় হো’ গানের জন্য সেরা সঙ্গীত পরিচালকের পুরস্কার পান ভারতীয় সঙ্গীত শিল্পী এ আর রহমান। এই গান নিয়েই এবার নতুন বিতর্ক শুরু হলো।

পরিচালক রাম গোপাল বার্মার দাবি, এই গানটির সুরকার নাকি এ আর রহমান নন। গানটিতে সুর দিয়েছিলেন সুখবিন্দর সিং। যদিও রাম গোপালের এমন দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন গায়ক সুখবিন্দর।

সুভাষ ঘাই পরিচালিত ‘যুবরাজ’ সিনেমার জন্য বানানো হয়েছিল ‘জয় হো’ গানটি। রাম গোপালের অভিযোগ,পরিচালকের থেকে টাকা নিয়ে সুখবিন্দর সিংকে দিয়ে সুর তৈরি করান রহমান। এই ঘটনায় রেগে গিয়ে সুভাষ ঘাই যুবরাজে ওই গান ব্যবহার করেননি।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে রাম গোপাল বার্মা জানান, সেই সময় লন্ডনে ছিলেন রহমান। সেখান থেকেই তিনি সুখবিন্দরকে নির্দেশ দেন জয় হো গানটিতে সুর দেওয়ার জন্য। সুভাষ ঘাই নাকী গানটির জন্য ভীষণ তাড়া দিচ্ছিলেন। তাই সুখবিন্দরের সাহায্য নেন রহমান। ‘যুবরাজ’ সিনেমাতে গানটি ব্যবহার না হলেও ২০০৮ সালের সিনেমা স্লামডগ মিলিওনিয়ারে ওই সুর ব্যবহার করে অস্কার আসে রহমানের ঝুলিতে।

রাম গোপাল বার্মা বলেন, ৩ কোটি রুপি নিয়ে অন্যকে দিয়ে গান সুর করানোয় রহমানের উপর রীতিমতো ক্ষুব্ধ ছিলেন সুভাষ। সুভাষ ঘাইকে উদ্ধৃত করে সরকার ছবির পরিচালক বলেন, তোমার সাহস ছিল না, আমার সামনে বলার? আমার যদি সুখবিন্দরকে লাগত, তা হলে আমিই ওকে দিয়ে কাজটা করাতাম। আমার কাছ থেকে টাকা নিয়ে সুখবিন্দরকে দিয়ে সুর করানোর অর্থ কী? 

চূড়ান্ত অশান্তির কারণেই শেষ পর্যন্ত যুবরাজ থেকে বাদ পড়ে ‘জয় হো’ গানটি। তবে রহমানের বিরুদ্ধে এমন বিস্ফোরক অভিযোগ ওঠার পর এখনও এ বিষয়ে মুখ খোলেননি পরিচালক সুভাষ ঘাই।

যদিও গান নিয়ে প্রবল বিতর্কের মাঝে সুখবিন্দর বলেন, এ আর রহমান গানটির সুর করেছেন, আমি শুধু গেয়েছি। রাম গোপাল বার্মাজি ইন্ডাস্ট্রির অনেক বড় নাম, তবে হয়ত তিনি ভুল শুনেছেন এই ব্যাপারে।

সুখবিন্দর আরও জানান, গুলজার সাহেব এই গানটি লিখেছিলেন, রহমান এটি পছন্দ করেছিলেন। এর পর মুম্বাইয়ের জুহুতে আমার স্টুডিওতে তিনি এই সুর রচনা করেন। তিনি সুভাষজিকে তা শুনিয়েছিলেন। আমি তখনও পর্যন্ত গানটি গাইনি।

সুখবিন্দরের দাবি, গানটি শোনার পর ‘যুবরাজ’ সিনেমার চরিত্রের সঙ্গে মিল না হওয়ায় গানটি বাতিল করেন সুভাষ ঘাই। তবে সেদিনই গানটি রেকর্ড করা হয় এবং এ আর রহমানকে পাঠানো হয়। পরে যুবরাজের জন্য অন্য একটি গান সুভাষজিকে দেন রহমান।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত