বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

বক্সিংয়ের নতুন অবিসংবাদিত চ্যাম্পিয়ন ওলেকজান্ডার উসিক

আপডেট : ১৯ মে ২০২৪, ০২:০৩ পিএম

১৯৯৯ সালে লাস ভেগাসে ইভান্ডার হলিফিল্ডকে হারানোর পর থেকে বিশ্ব বক্সিংয়ে অবিসংবাদিত চ্যাম্পিয়ন কেউ ছিল না। প্রায় ২৫ বছর পর, সৌদি আরবের রিয়াদে শনিবার রাতে এক ফাইটে টাইসন ফিউরিকে হারিয়ে নতুন অবিসংবাদিত চ্যাম্পিয়ন হলেন ওলেকজান্ডার উসিক। 

তিনজন জাজের ভিন্ন সিদ্ধানের ফলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ৩৭ বছর বয়সী উসিক। একজন জাজ ফিউরির পক্ষে ১১৪-১১৩ স্কোর দিলেও, বাকি দুইজন জাজ উসিকের পক্ষে ১১৪-১১৩ এবং ১১৫-১১২ স্কোর দিলে জয় পায় ইউক্রেনের বক্সার।

এই জয়ের মাধ্যমে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনের বাসিন্দা উসিক ইংলিশ বক্সার ফিউরিকে তার পেশাদারী জীবনের প্রথম হার উপহার দিলেন। ম্যাচের পর উসিক বলেন, 'এটি আমার, আমার পরিবারের, আমার দেশের এবং ইতিহাসের জন্য একটি বিশাল সুযোগ। এটি একটি দারুণ মুহুর্ত, দুর্দান্ত একটি দিন।'

ওলেকজান্ডার উসিক ঘুষি মারছেন ফিউরিকে

রিয়াদের কিংডম অ্যারেনার এই লড়াই দেখতে এসেছিলেন সাবেক হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়ন ইভান্ডার হলিফিল্ড,  ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, নেইমার ছাড়াও এই ফাইট দেখতে এসেছিলেন আন্দ্রেই সেভচেঙ্কো, স্টিফেন জেরার্ড, আইমেরিক লাপোর্তেসহ বেশ কজন বর্তমান-সাবেক ফুটবলাররা। 

প্রথম রাউন্ডের ফাইটে এগিয়ে ছিলেন ফিউরি। তবে এরপর ধীরে ধীরে লড়াইয়ে ফিরে আসেন উসিক। নবম অর্থাৎ শেষ রাউন্ডে ফিউরিকে একের পর এক পাঞ্চ মারতে থাকেন উসিক। ম্যাচ শেষে তারা একজন অপর জনকে সম্মান জানান। একে অপরকে জড়িয়ে ধরেন ফলাফল ঘোষণার আগে।

ম্যাচ শেষে ফিউরি বলেন, 'ফাইট দেখতে আসা বেশির ভাগ মানুষ উসিকের পক্ষে ছিল উইক্রেন যুদ্ধের কারণে। আমি বিশ্বাস করি ফাইটটা আমি জিতেছি, আমি আবারও ফিরে আসবো।' অক্টোবরে একটা রিম্যাচের সম্ভাবনা আছে।  পেশাদার বক্সিংয়ে উসিকের রেকর্ড দাঁড়াল ২২-০। অর্থাৎ ২২ ম্যাচ খেলে অপরাজিত তিনি। ৩৬তম ম্যাচে এসে প্রথম হার দেখলেন ফিউরি।

কে এই উসিক
২০০৮ এ ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের লাইট হেভিওয়েট বিভাগের শিরোপা দিয়ে যাত্রা ক্যারিয়ার শুরু ওলকজান্ডার উসিকের।  পরের বছর মিলানে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ জেতেন তিনি। দুবছর পর বাকু'র বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথমবার জেতেন স্বর্ণ।  ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে হেভিওয়েট বিভাগের স্বর্ণ জয়ের মাধ্যমে বিশ্বকে নিজের উপস্থিতি জানান দেন ক্রিমিয়ায় জন্ম নেয়া এই বক্সার।  

২০১৩ সাল থেকে শুরু হয় তার হেভিওয়েট পেশাদার বক্সিংয়ের উত্থান।  একে একে লড়াই জিততে জিততে ২০২১ সালে এসে অ্যান্থনি জোশুয়াকে হারিয়ে ডব্লুবিএ সুপার, আইবিএফ, ডব্লুবিও ও আইবিএফ হেভিওয়েট শ্রেষ্ঠত্ব জেতেন উসিক।  ২০২২ ও ২০২৩ এ এই শ্রেষ্ঠত্ব অক্ষুন্ন রাখেন তিনি।  শনিবার সেই শিরোপাই ফিউরিকে হারিয়ে আরেকবার অক্ষুন্ন রাখলেন উসিক।  পেশাদার বক্সিংয়ে ২২ লড়াইয়ের সবকটিতে জেতা উসিক ১৪ বার প্রতিপক্ষকে নকআউট করেছেন। 

অবিসংবাদিত চ্যাম্পিয়ন কারা

১৯২১ থেকে শুরু উন্মুক্ত পেশাদার বক্সিংয়ে ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত পরিচালনা করতো যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক স্টেট অ্যাসোসিয়েশন কমিশন ও ন্যাশনাল বক্সিং অ্যাসোসিয়েশন।  এই ৪২ বছরে উল্লেখযোগ্য চ্যাম্পিয়নদের মধ্যে ছিলেন জো লুইস, ফ্লয়েড প্যাটারসন ও সনি লিস্টন। 
১৯৬৩ সাল থেকে ওয়ার্ল্ড বক্সিং অ্যাসোসিয়েশন ও ওয়ার্ল্ড বক্সিং কাউন্সিল মিলে প্রচলন করে নতুন বিশ্ব শিরোপা লড়াই, যার প্রথম চ্যাম্পিয়ন ছিলেন সনি লিস্টন।  এরপর বক্সিংয়ের কিংবদন্তী মোহাম্মদ আলী তিনবার, জো ফ্রেজিয়ার, জর্জ ফোরম্যান ও লিওন স্পিংকস জেতেন এই শ্রেষ্ঠত্ব। 
ডব্লুবিএ-ডব্লুবিসি'র সাথে ইন্টারন্যাশনাল বক্সিং ফেডারেশন যুক্ত হয়ে নতুন শিরোপার প্রচলন হয় ১৯৮৩ সালে, যার প্রথমটির চ্যাম্পিয়ন মাইক টাইসন। এরপর বুস্টার ডগলাস, ইভান্ডার হলিফিল্ড, রিডিক বোয়ি, সর্বশেষ লেনক্স লুইস জেতেন শিরোপা।  
আগের তিন অ্যাসোসিয়েশনের সাথে ২০০৭ সালে ডব্লুবিও যুক্ত হয়ে আয়োজন করে আসছিল বিশ্ব হেভিওয়েট বক্সিং লড়াই। শনিবার ফিউরিকে হারিয়ে নতুন অবিসংবাদিত চ্যাম্পিয়ন হলেন উসিক। 

 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত