সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ঈদের দিন আ.লীগ নেতার গাড়িতে ধাক্কা, রাতে দুই বন্ধুকে কুপিয়ে হত্যা

আপডেট : ১৯ জুন ২০২৪, ০১:০৬ পিএম

বগুড়ায় ঈদের দিন বিকেলে আওয়ামী লীগ নেতা টিপুর গাড়ির সঙ্গে ধাক্কা লাগে একটি মোটরসাইকেলের। এ সময় মোটরসাইকেলের আরোহী দুই বন্ধু শরীফ ও রুমনের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয় তাঁর। এর জেরে রাতে মীমাংসার জন্য ডেকে নিয়ে শরীফ ও রুমনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় তাদের আরেক বন্ধু হোসেন গুলিতে আহত হয়।

এ ঘটনায় নিহত শরীফের মা হেনা বেগম বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতে সদর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় আওয়ামী লীগ নেতা, শ্রমিক-নেতা, কাউন্সিলরসহ ১৩ জনের নাম উল্লেখসহ ২৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে সদর থানা পুলিশ। রাত আড়াইটার দিকে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সরাফত ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন— শহরের নিশিন্দারা খাঁপাড়ার শেখ সৌরভ (২৬), নিশিন্দারা পূর্বপাড়ার নাঈম হোসেন (২৮) ও সুলতানগঞ্জ পাড়ার আজবিন রিফাত (১৯)। 

মঙ্গলবার রাতে সদর থানা করা মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে, বগুড়া জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু, বগুড়া শহর আওয়ামী লীগের ১নং ওয়ার্ড শাখার সাধারণ সম্পাদক ও বগুড়া জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সৈয়দ সার্জিল আহম্মেদ টিপু, বগুড়া পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সভাপতি শাহ মেহেদী হাসান হিমু, শেখ সৌরভ, নাঈম হোসেন এবং আজবিন রিফাতসহ ২৮ জনকে আসামি করা হয়। এদের মধ্যে মিঠু ও টিপু আপন দুই ভাই, কাউন্সিলর হিমু টিপুর ভায়রা, আজবিন রিফাত জেলা ছাত্রলীগের কর্মী।

থানায় মামলা সূত্রে জানা যায়, ঈদের দিন বিকেলে হাকিরমোড় এলাকায় প্যানেল চেয়ারম্যান সৈয়দ সার্জিল আহমেদ টিপুর গাড়ির সাথে রুমনের মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগে। এ সময় টিপু ও তার লোকজনের সাথে শরীফ ও রুমনের কথা কাটাকাটি ও ধাক্কাধাক্কি হয় এবং দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়। রাত ১২টার দিকে রুমন শরীফকে বাড়ির বাহির হতে বললে সে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর রাত সাড়ে ১২টার দিকে গোলাগুলির শব্দ শুনে বাড়ির বের হয় শরীফের পরিবারের লোকজন। তখন তারা জানতে পারেন চকরপাড়া ইউক্যালিপটাস বাগানের গলিতে শরীফ ও রুমনকে গুলি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন করা হয়েছে। এ সময় তাদের বন্ধু হোসেন ওরফে বুলটকে গুলি করে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এ সময় হোসেন জানায়, বিকেলের ঘটনায় মীমাংসা জন্য ডেকে নিয়ে আসা হয় শরীফ ও রুমনকে। এ সময় মিঠু ও টিপুর লোকজন তাদের চারিদিক থেকে ঘিরে ধরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আক্রমণ করে মৃত্যু নিশ্চিত করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সদর থানার তদন্ত ইন্সপেক্টর শাহিনুজ্জামান জানান, গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের আদালতের পাঠানো হয়েছে। এ মামলার অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত