মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

অস্কারজয়ী বেরনার্দো বের্তোলুচি আর নেই

আপডেট : ২৭ নভেম্বর ২০১৮, ০৪:২৫ পিএম

লাস্ট ট্যাঙ্গো ইন প্যারিস, দ্য লাস্ট এম্পেরোর ও দ্য ড্রিমার্স নির্মাতা বেরনার্দো বের্তোলুচি আর নেই। দীর্ঘদিন ক্যান্সারে ভুগে সোমবার রোমে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ইতালির অগ্রগণ্য এ পরিচালক। তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর।

বের্তোলুচির মুখপাত্রের বরাত দিয়ে খবরটি দিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান। ২০০৩ সালের এক ব্যর্থ অপারেশনের পর থেকে হুইলচেয়ারেই কাটছিল এ নির্মাতার জীবন।

১৯৬০ এর দশকের শুরুতে চলচ্চিত্রে আসেন বের্তোলুচি। তিনি হয়ে উঠেন ইতালিয়ান নিউ ওয়েব সিনেমার অন্যতম পুরুষ। তবে ১৯৮৭ সালে ‘দ্য লাস্ট এম্পেরোর’-এর মাধ্যমে হলিউড ধারার সিনেমায় যুক্ত হন। সিনেমাটি সেরা ছবি ও সেরা পরিচালকসহ নয়টি বিভাগে একাডেমি পুরস্কার জেতে।

পার্মাতে ১৯৪১ সালে বের্তোলুচি জন্মগ্রহণ করেন। তারা বাবা আটিলিও ছিলেন কবি ও শিক্ষক। সাংস্কৃতিক আবহেই বেড়ে উঠেন বের্তোলুচি। আটিলিও’র বন্ধু ছিলেন নিউ ওয়েব সিনেমার আরেক দিকপাল ঔপন্যাসিক ও কবি পিয়ের পাওলো পাসোলিনি। ১৯৬১ সালের তার সহকারী হিসেবে সিনেমায় আসেন বের্তোলুচি। অবশ্য পরের বছরই পরিপূর্ণ পরিচালক হিসেবে আবির্ভূত হন, নির্মাণ করেন ‘দ্য গ্রিম রিপার’। ১৯৬৪ সালে নির্মাণ করেন ‘বিফোর দ্য রেভল্যুশন’। সিনেমা দুটি নামি উৎসবে স্থান পায়। তবে তার প্রথম প্রভাবশালী কাজ ‘দ্য কনফর্মিস্ট’। এরই মাঝে অবশ্য সার্জিও লিওনির ক্লাসিক সিনেমা ‘ওয়ান্স আপন আ টাইম ইন দ্য ওয়েস্ট’-এ লেখক হিসেবে কাজ করেন।

‘দ্য কনফর্মিস্ট’-এর মাধ্যমে প্রথমবার সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে ভিত্তিরিও স্টোরারোর কাজ করেন বের্তোলুচির সঙ্গে। এর আগে ‘বিফোর দ্য রেভল্যুশন’-এ ক্যামেরা অপারেটর ছিলেন ভিত্তিরিও। দ্য স্পাইডারস স্ট্রাটাজেম, লাস্ট ট্যাঙ্গো ইন প্যারিস ও ১৯০০ সিনেমায়ও তারা একসঙ্গে কাজ করেন।

‘লাস্ট ট্যাঙ্গো’তে অভিনয় করেন মার্লিন ব্রান্ডো ও মারিয়া স্নেইদার। ১৯৭২ সালের সিনেমাটি বের্তোলুচিকে দেয় আন্তর্জাতিক পরিচিতি। এর চার বছর পর মুক্তি পায় আরেক এপিক সিনেমা ‘১৯০০’। ৩০০ মিনিটের ছবিটিতে অভিনয় করেন রবার্ট ডি নিরোসহ নামি কয়েকজন তারকা।

আলোচিত সিনেমা ‘দ্য লাস্ট এম্পেরোর’ প্রযোজনা করেন ব্রিটিশ প্রযোজক জেরেমি টমাস। এর পর তারা দ্য শেল্টারিং স্কাই, স্টিলিং বিউটি ও দ্য ড্রিমার্স করেন একসঙ্গে। শেষটিতে চরমপন্থী রাজনীতি ও ইরোটিসিজমের মিশেল দেখা যায় যা ছিল কয়েক দশক আগে বের্তোলুচি নির্মিত সিনেমার সাধারণ প্রবণতা। বের্তোলুচির শেষ সিনেমা ‘মি অ্যান্ড ইউ’ মুক্তি পায় ২০১২।

চলমান #মিটু ক্যাম্পেইনের সূত্রধর হিসেবে ‘লাস্ট ট্যাঙ্গো ইন প্যারিস’-এর নাম চলে আসে। ২০১৬ সালে সিনেমাটি নতুন করে আলোচনার জন্ম দেয়। বের্তোলুচি ও ব্র্যান্ডোর একটি তিন মিনিটের ভিডিওতে জানা যায়, সিনেমাটির সমালোচিত ধর্ষণ দৃশ্য নিয়ে অভিনেত্রী মারিয়াকে আগে পুরোপুরি অবহিত করা হয়নি।

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত