রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানকে থামাল দক্ষিণ আফ্রিকা

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১১:০৫ এএম

টানা ৯ ম্যাচে জয়; টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে যেন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছিল পাকিস্তান। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ফর্মেটে দলটির অসাধারণ এই পথ চলা থামিয়ে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

ক্যাপ টাউনে শুক্রবার রাতে টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানকে ৬ রানে হারায় ফাফ দু প্লেসির দল। এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল প্রোটিয়ারা।

ক্যাপ টাউনের নিউ ল্যান্ডস স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ২০ ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে ১৯২ সংগ্রহ পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। জবাবে নির্ধারিত ওভার শেষে ৯ উইকেট হারানো পাকিস্তানের রানের চাকা থামে ১৮৬ রানে। এই নিয়ে টানা নয় ম্যাচে জয়ের পর হারের তেতো স্বাদ পেল দলটি।

টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানের সবশেষ হার ছিল গত বছরের জুলাইয়ে হারারেতে ত্রি-দেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে।

ইমাম ওয়াসিমের বলে শুরুতেই ওপেনার জিহান ক্লতেকে হারায় দক্ষিণ স্বাগতিক দল। দ্বিতীয় উইকেট বড় সংগ্রহের ভিত পেয়ে যায় তারা। অধিনায়ক দু প্লেসিকে নিয়ে ১৩১ রানের অনবদ্য একটি জুটি গড়েন অপর ওপেনার রিজা হেনড্রিকস। টি-টোয়েন্টিতে দ্বিতীয় উইকেটে এটাই দক্ষিণ আফ্রিকার সবচেয়ে বেশি রানের জুটি।

১৫৭ বলে এই জুটিতে ফাটল ধরান উসমানে শিনওয়ারি। তার বলে মিডঅফে শোয়েব মালিকের ধরা পড়েন দু প্লেসি। এর আগে ৫৮ বলে ছয় চার ও চার ছক্কায় ৭৮ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন ডানহাতি এই ব্যাটার।

কিছুটা শ্লথ হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকার রানের গতি। রানের খাতা খুলার আগেই শিনওয়ারির বলে কটবিহাইন্ড হন রাসি ফন দের ডুসেন। ১৭৬ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় প্রোটিয়া দল। এবার দীর্ঘক্ষণ উইকেটের একপ্রান্ত আগলে রাখা হেনড্রিকসকে উইকেট ছাড়া করেন শিনওয়ারি। প্যাভিলিয়নের পথ ধরার আগে ৪১ বলে আট চার দুই ছক্কায় ৭৪ রান করেন হেনড্রিকস। বাকিদের মধ্যে মিলনার ১০ রান করেন।

পাকিস্তানের বোলারদের মধ্যে ৩১ রানে তিন উইকেট নেন শিনওয়ারি। একটি করে উইকেট ইমাদ ওয়াসিম, হাসান আলি ও ফাহিম আশরাফ।

জবাবে দলীয় চার রানেই ওপেনার ফখর জামানকে হারায় পাকিস্তান। শুরুর ধাক্কাটা দ্বিতীয় উইকেটে সামলে তুলেন বাবর আজম ও হুসেইন তালাত। দলীয় ৮৫ রানে এই জুটির লাগাম টানেন তাবরাইস শামসি। তার বলে উইকেট ছাড়া হন ৩২ বলে পাঁচ চারে ৪০ রান করা তালাত। বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি বাবর। রানআউট হয়ে ফিরেন ২৭ বলে তিন চার ও এক ছক্কায় ৩৮ রান করা এই ওপেনার।

দাপটের সঙ্গেই ব্যাট চালাচ্ছিলেন অধিনায়ক শোয়েব মালিক। কিন্তু তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি বাকিরা। দুই অঙ্ক স্পর্শ না করেই ফিরেছেন তিন ব্যাটনম্যান। একাই জয়ের স্বপ্ন জিইয়ে রাখছিলেন মালিক।

ইনিংসের শেষ ওভারে দরকার ছিল ১৬ রান। ক্রিস মরিসের করা ওভারটির দ্বিতীয় বলে মালিক আউট হয়ে গেলে শেষ হয়ে যায় পাকিস্তানের জয়ের স্বপ্ন। এক রানের জন্য অর্ধশতকের দেখা পেলেন না মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মালিক। ৩১ বলে খেলা তার ৪৯ রানের ইনিংসটিতে ছিল পাঁচ চার ও এক ছক্কা।

দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের মধ্যে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন হেনড্রিকস, মরিস ও শামসি। একটি উইকেট অ্যান্ডিল ফেলুকায়ায়োর।

ম্যাচ সেরা হয়েছেন চারটি ক্যাচ ধরা ও বাবরকে রান আউট করা দক্ষিণ আফ্রিকার ডেভিড মিলনার।

দল দুটির মধ্যকার সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি হবে রোববার জোহান্সবার্গে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত