বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

পাঠকের সম্মিলন ঘটুক বইমেলায়

আপডেট : ২৬ জানুয়ারি ২০২৩, ১২:১৮ এএম

করোনাকালীন দুর্যোগ অতিক্রম করে আবারও নির্ধারিত সময়ে শুরু হতে যাচ্ছে অমর একুশে বইমেলা। এবার মেলার মূল প্রতিপাদ্য ‘পড় বই গড় দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’। কিন্তু ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধে বিশ্বমন্দার প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশেও। পাশাপাশি কাগজের অস্বাভাবিক ও নিয়ন্ত্রণহীন মূল্যবৃদ্ধিতে বড় ধরনের বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে প্রকাশনা শিল্প। তবুও ফেব্রুয়ারির বইমেলাকে ঘিরে আশা দেখছেন লেখক ও প্রকাশকরা। নতুন বই প্রকাশ অপেক্ষাকৃত কম হলেও আগে প্রকাশিত মানসম্পন্ন ভালো বইও মেলায় খুঁজে নেবেন পাঠকরা এমনটাই তাদের প্রত্যাশা। ফলে এবারও মেলার মাঠে লেখক, পাঠক ও প্রকাশকদের অন্যরকম সম্মিলন ঘটবে। বই নিয়ে চলবে নানা আলোচনা ও পর্যালোচনা। বই ঘিরেই বাঙালির এই সম্মিলন সত্যিকারভাবে আমাদের অহংকারের বিষয়ও।

কিন্তু শুরুর দিকে অমর একুশে বইমেলার আয়োজনটি কেমন ছিল? সে ইতিহাসটি জানতে একটু পেছনে তাকাতে হবে। অমর একুশে গ্রন্থমেলার সঙ্গে জড়িয়ে আছে ‘চিত্তরঞ্জন সাহা’ নামটি। এদেশে প্রকাশনা শিল্পের পথিকৃৎ তিনি। ১৯৭২ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি তিনিই প্রথম গ্রন্থমেলার সূচনা করেন। প্রথম মেলাটি হয়েছিল বাংলা একাডেমির বর্ধমান হাউজ প্রাঙ্গণের বটতলায়, এক টুকরো চটের ওপর। কলকাতা থেকে আনা মাত্র ৩২টি বই সাজিয়ে উনি বইমেলার গোড়াপত্তন করেছিলেন। সে বইগুলোই ছিল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রকাশনা শিল্পের প্রথম অবদান, যা ছিল চিত্তরঞ্জন সাহার ‘স্বাধীন বাংলা সাহিত্য পরিষদ’ (বর্তমানে যা মুক্তধারা প্রকাশনী) থেকে প্রকাশিত বাংলাদেশি শরণার্থী লেখকদের লেখা বই। ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত চিত্তরঞ্জন সাহা একাই গ্রন্থমেলা চালিয়ে যান। ১৯৭৮ সালে বাংলা একাডেমির তৎকালীন মহাপরিচালক আশরাফ সিদ্দিকী গ্রন্থমেলার সঙ্গে বাংলা একাডেমিকে সম্পৃক্ত করেন। পরের বছরই যুক্ত হয় বাংলাদেশ পুস্তক বিক্রেতা ও প্রকাশক সমিতিও। ১৯৮৪ সালে এ মেলার নামকরণ হয়ে যায় ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’। এভাবে চিত্তরঞ্জন সাহার ৩২টি বইয়ের ক্ষুদ্র মেলাটিই এখন বাঙালির প্রাণের মেলায় পরিণত হয়েছে। গ্রন্থমেলার পরিবর্তে বর্তমানে এটিকে বলায় হয়Ñঅমর একুশে বইমেলা।

বইমেলা এলেই কথা ওঠে মানসম্পন্ন বই নিয়ে। যদিও মেলা শেষে বাংলা একাডেমি ঘোষণা দেয় নতুন প্রকাশিত মানসম্পন্ন বইয়ের সংখ্যা কতটি। কিন্তু মান নির্ধারণের পদ্ধতিটি কী সেটি আমরা জানতে পারি না। তবে এটি সত্যি, মেলায় প্রকাশিত মানসম্পন্ন বই খুব বেশি নয়। এর দায় আসলে কার লেখকের, নাকি প্রকাশকের? বিক্রির বিষয়টি মাথায় রেখে অধিকাংশ প্রকাশক এখনো বই প্রকাশ করেন মেলাকে ঘিরে। বছরের বাকি সময়টায় খুব কম বই প্রকাশ করেন তারা। ফলে নতুন বই প্রকাশের তোড়জোড়ে প্রুফ দেখা ও সম্পাদনার কাজটি একেবারেই হয় না। আবার অধিকাংশ প্রকাশনা সংস্থারই নিজস্ব সম্পাদনা দল নেই। এতে তাদের মাধ্যমে রঙচঙা প্রচ্ছদ মোড়ানো ভুলেভরা যে বইগুলো মেলায় আসে, প্রকৃতপক্ষে তা পাঠককে তেমন আন্দোলিত করে না। ফলে বই কিনে অনেক পাঠকই ঠকে গিয়েছেন বলে মনে করেন। এই দায়টি লেখকেরও। বইমেলায় বই বেরিয়েছে বা বেরোবে এমন নব্বই ভাগ লেখকই নিয়মিত পত্রিকায় বা অনলাইন পোর্টালগুলোতে লেখেন না। ফলে লেখালেখির অনেক ক্ষেত্র থাকা সত্ত্বেও তারা লেখার মাধ্যমে পাঠক তৈরির চেষ্টা থেকে অনেক পিছিয়ে থাকেন। প্রতি বছরের মতো এবারও বইমেলায় প্রকাশিত হবে শত শত বই। তার মধ্যে কতটি বই মানসম্পন্ন, তা একটি বিশেষ প্রক্রিয়ায় গুরুত্বসহকারে তুলে ধরার কাজটি আমরা বাংলা একাডেমির কাছ থেকেই আশা করি। ভালো পা-ুলিপি ও ভালো সম্পাদনার মাধ্যমে মানসম্পন্ন বই প্রকাশ না করলে মেলায় প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যাই শুধু বাড়বে, তা দিয়ে শিল্প-সাহিত্যের তেমন কোনো উন্নতি হবে না। আর এ দায় যেমন রাষ্ট্রের, তেমনি প্রকাশকের এবং লেখকেরও।

বইয়ের পাঠক বেড়েছে, নাকি কমেছে? এ নিয়ে নানা মত ছিল ও আছে। পাঠক বৃদ্ধির বিষয়টিকে অনেক প্রকাশকই শুধু মেলায় বই বিক্রির মাপকাঠি হিসেবেই তুলে ধরেন। আবার অনেকেই ফেইসবুক ব্যবহারের ফলে বইয়ের পাঠকের সংখ্যা কমেছে বলে ঢালাওভাবে অভিযোগ তোলেন। অথচ আমরা দেখি কয়েক বছর আগে থেকেই ফেইসবুকেও গ্রুপ তৈরি করে সাহিত্যচর্চার রীতি চালু হয়েছে। শুদ্ধচর্চা, সাহিত্যের প্রতি অনুরাগ ও নান্দনিক কিছু সৃষ্টির লক্ষ্যে তৈরি হয়েছে অসংখ্য ফেইসবুক গ্রুপ। তারা বাংলা ভাষাভাষীদের মধ্যে শিল্প-সাহিত্যের নতুন পাঠক তৈরিতেও ভূমিকা রাখছে।

আবার দেশে বই বিক্রির পরিমাণও বেড়েছে। কীভাবে? সরকার বিভিন্ন প্রকল্পে কোটি কোটি টাকার বই কিনছে। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের পাঠক তৈরির কর্মসূচি যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে বই কেনার সংখ্যাও। প্রতি বছর শুধু অনলাইনেই বিক্রি হচ্ছে কয়েক কোটি টাকার বই। জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র, পাবলিক লাইব্রেরি, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়, নানা এনজিও ও বেসরকারি সংস্থাও বই কেনে প্রতি বছরই। সরকারিভাবে প্রতি জেলায় এবং অনেক উপজেলাতেও বইমেলার আয়োজন হচ্ছে নিয়মিত। বেশ কিছু প্রকাশনী প্রতিষ্ঠান সম্মিলিতভাবে সারা বছরই ‘কৈশোর তারুণ্যে বই’ ও ‘ক্লাসরুমের পাশে বই’ শিরোনামে বিভিন্ন বিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ে বইমেলার আয়োজন করছে। শ্রাবণ প্রকাশনী গাড়িতে করে মুক্তিযুদ্ধের বই নিয়ে ঘুরছে সারা দেশে। এসব উদ্যোগ যেমন প্রশংসনীয়, তেমনি বইয়ের নতুন পাঠক ও ক্রেতা তৈরিতেও বিশেষ ভূমিকা রাখছে। তাই দেশে বইয়ের পাঠক ও বই বিক্রি কমছেÑএমন ধারণা অনেক যুক্তিতেই টিকে না। এখন দরকার ভালো মানের বই প্রকাশ এবং তা খুব সহজেই পাঠকের কাছে নিয়ে যাওয়া।

প্রায় প্রতি বছরই একটি বিষয় অজ্ঞাত কারণে বাংলা একাডেমির নজর এড়িয়ে যায়। ধর্মের প্রতি আঘাত হানা বই খোঁজার দিকে নজর দিতে গিয়ে কর্তৃপক্ষের অসচেতনতায় অজান্তেই চলে যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতাবিরোধীর লেখা বই বিক্রি ও বিতরণের কাজ। কয়েক বছর আগ থেকেই বইমেলায় যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতাবিরোধী দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, কাদের মোল্লা, গোলাম আযমসহ অন্য যুদ্ধাপরাধীদের লেখা বইগুলো বিক্রিসহ বইমেলায় প্রবেশ ও বের হওয়ার রাস্তায় বিতরণে কাজ করে একটি চক্র। তা ছাড়া মওদুদীবাদের বইয়েরও বিক্রি চলে এ সময়। স্বাধীনতাবিরোধী মতাদর্শের এই চক্রটি এবারও নানাভাবে সে চেষ্টাটি চালাবে। তাই বাংলা একাডেমি কর্তৃপক্ষের উচিত এই দিকটির দিকে বিশেষ নজর দেওয়া।  কেননা ভাষা আন্দোলনের চেতনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে অমর একুশে বইমেলা। তাই মানসম্পন্ন বইয়ের পাশাপাশি যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতাবিরোধীর বইমুক্ত বইমেলাও চাই আমরা। কয়েক বছর ধরে বইমেলার পরিসর বাড়ছে। স্টল বিন্যাসেও এসেছে বৈচিত্র্য। বইমেলার ভেতরেই বিভিন্ন স্থানে প্রয়াত নামকরা বিশিষ্ট কবি, কথাসাহিত্যিক, প্রাবন্ধিক, গল্পকার, শিল্পী ও গবেষকদের পরিচিতিমূলক ছবির বিন্যাস ঘটানো যেতে পারে। তা দেখে মেলায় আগত শিশুরা তাদের সম্পর্কে ধারণা পাবে, যা শিশুদের মনোজগৎকেও প্রভাবিত করবে। একুশে বইমেলা সফলতা ও পরিপূর্ণতা লাভ করবে সবার অংশগ্রহণে। এবারও পাঠক, প্রকাশক ও লেখকদের সম্মিলন ঘটবে সেখানে। পাঠকদের বই কেনার মাধ্যমে আলোর মুখ দেখবে প্রকাশনা শিল্পÑএমনটাই আমাদের প্রত্যাশা।

লেখক : লেখক ও গবেষক

[email protected]

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত