রোববার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আসিফ ‘নিখোঁজ’ নিয়ে প্রশ্ন অডিও ফাঁসে তোলপাড়

আপডেট : ৩১ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬:২০ এএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত নেতা, উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবু আসিফ নিখোঁজ নাকি আত্মগোপনেএ নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আশুগঞ্জে তোলপাড় চলছে। তার স্ত্রীর  দাবি, তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তবে আওয়ামী লীগ নেতারা মনে করছেন তিনি আত্মগোপনে থেকে নাটক করছেন। এদিকে একটি অডিও রেকড ফাঁস হওয়ার পর গতকাল সোমবার আবু আসিফ টক অব দ্য টাউন হয়ে উঠেছেন।

আবু আসিফ আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল ও আশুগঞ্জ) উপনির্বাচনে তিনি বিএনপি চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা এবং এই আসন থেকে পাঁচবারের সাবেক সংসদ সদস্য বহিষ্কৃত নেতা উকিল আবদুস সাত্তার ভূঁইয়ার অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী। আবু আসিফ মোটরগাড়ি প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। কয়েক দিন আগে আসিফ অভিযোগ করেছিলেন, নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য তার ওপর প্রচন্ড চাপ আসছে। তার নির্বাচনী প্রচারণার দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মী-সমর্থকদের নানাভাবে হয়রানি করাসহ ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হচ্ছে। তবে এর মধ্যেও তিনি নির্বাচন চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছিলেন।

২৬ জানুয়ারি আসিফ অভিযোগ করেছিলেন, ২৫ জানুয়ারি রাত থেকে তার শ্যালক ও নির্বাচন পরিচালনাকারী কমিটির প্রধান সমন্বয় শাফায়েত হোসেন ‘নিখোঁজ’ রয়েছেন। ওই দিনই রাতে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে তার প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট মুসা মিয়াকে। যদিও পুলিশ বলেছে, মারামারির মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত রবিবার বিকেল থেকে আশুগঞ্জে খবর ছড়িয়ে পড়ে আবু আসিফ নিখোঁজ। তার স্ত্রী মেহেরুন্নিছা রবিবার সন্ধ্যায় মুঠোফোনে জানান, দুই দিন ধরে আমার স্বামী ঘরে ফেরেনি। আমাদের লোকজনও ভয়ে থাকছে। আসিফ আত্মগোপনে রয়েছেন কি না জানতে চাইলে মেহেরুন্নিছা বলেন, ‘আমার স্বামী আত্মগোপনে যাননি।’ এ বিষয়ে থানায় বা কোথাও লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমাদের পালিয়ে থাকতে হচ্ছে। আমিও ভয়ের মধ্যে আছি। দ্রুত একটা কিছু করব।’

তবে আবু আসিফ নিখোঁজ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আসিফের স্ত্রী এবং বাসার কেয়ারটেকারের মধ্যে ফোনালাপ বলে একটি অডিও ফাঁস হয়। যেখানে আসিফের স্ত্রীকে কেয়ারটেকারকে আসিফের জন্য জামাকাপড় গোছানোর নির্দেশ দিতে শোনা যায়। সেখানে একটি নারী কণ্ঠ, ‘ইফসুফ (কেয়ারটেকার) স্যার কই, স্যারের (আসিফ) কতগুলো জামাকাপড়, গেঞ্জি, প্যান্ট, শীতের কাপড়, জুতা মোজা ব্যাগে ভরে দিয়ে দে তাড়াতাড়ি। আরে তাড়াতাড়ি দে। কেউ যেন না জানে স্যার কই গেছে। ক্যামেরা বন্ধ করে দে। ক্যামেরার লাইন বন্ধ কর বাসার। স্যার গেলে আরও ১০ মিনিট পর ক্যামেরার লাইন খুলবে।

এমন কথোপকথন ফাঁস হওয়ার পর বিএনপি নেতা আসিফ নিখোঁজ নাকি আত্মগোপনে গেছেন, এ নিয়ে আলোচনা আরও ডালপালা মেলতে শুরু করে। এরপর থেকে সোমবার সারা দিন ফোন করলেও আসিফের স্ত্রী ফোন রিসিভ করেননি। আসিফের ফোনও বন্ধ পাওয়া গেছে।

আসিফ নাটকের ঘটনায় বিব্রতবোধ করছেন তার নিকটাত্মীয় ও স্বজনরা। তারা নিখোঁজ বা আত্মগোপন কোনোটাই বলতে চান না। 

আসিফের ভাতিজা ও আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নাসের বলেন, ‘আমি সাত্তার সাহেবের (কলার ছড়ি) নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত। চাচা আসিফের বিষয়ে কিছুই জানি না। আপনারা এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে বিব্রতবোধ করি।’

তবে আবু আসিফের এ ঘটনাকে নাটক বলে আখ্যায়িত করেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ। আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (১) এম এম তোফায়েল আলী রুবেল বলেন, ‘আসিফ নিজেই আত্মগোপন করে নাটকের জন্ম দিয়েছেন। নির্বাচনে আলোচনায় থাকার জন্যই তিনি এ কাজ করেছেন।’

আবু আসিফ নিখোঁজ নাকি আত্মগোপনে, এটা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি আশুগঞ্জ থানার ওসি আজাদ রহমান। তিনি গতকাল বলেন, ‘আবু আসিফের বিষয়ে তার স্ত্রী বা পরিবারের কেউ আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ করেননি। তবে যেহেতু মিডিয়ায় খবর এসেছে, তাই আমরা স্থানীয়ভাবে খোঁজ-খবর নিচ্ছি তিনি কোথায় আছেন। আমরা তার বাসায় যাইনি বা আশপাশে ঘোরাফেরাও করছে না কেউ।

জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শাহগীর আলম বলেন, ‘জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে এ ধরনের কোনো অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি। এখন কেউ যদি নিজেকে লুকিয়ে রাখে, তাহলে তো আমাদের কিছু করার নেই।’

   
সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত