বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সংসদকে ছোট করতে হিরো আলমের পক্ষে বিএনপি : কাদের

আপডেট : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০২:২৫ এএম

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘সংসদকে ছোট করার জন্য হিরো আলমকে প্রার্থী করেছে বিএনপি। অবশেষে ফখরুলের স্বপ্নভঙ্গ। ফখরুল সাহেব বলেন রাষ্ট্রতন্ত্র ব্যবহার করে হিরো আলমকে হারানো হয়েছে। হায়রে মায়া। হিরো আলমের জন্য এত দরদ উঠল ফখরুলের। ফখরুল ভেবেছিল হিরো আলম জিতে যাবে।’ বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, নৈরাজ্য অপরাজনীতি ও দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করছে দাবি করে তার প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত শান্তি সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি। শনিবার কামরাঙ্গীরচর সরকারি হাসপাতাল মাঠে শান্তি সমাবেশটি অনুষ্ঠিত হয়।

বিএনপি ছেড়ে দেওয়া ছয়টি সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় গত ১ ফেব্রুয়ারি। এর মধ্যে বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৪ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী হন দেশের আলোচিত আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম। এর মধ্যে বগুড়া-৪ আসনের আওয়ামী আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় প্রার্থী রেজাউল করিম তানসেনের কাছে মাত্র ৮৩৪ ভোটে পরাজিত হন হিরো আলম।

বিএনপি আন্দোলনের খেলায় হেরে গেছে দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, তাদের উঁচু গলা নিচু হয়ে গেছে। কী খেলব তাদের সঙ্গে? বিএনপিকে বলি ‘ঢাল নাই তলোয়ার নাই নিধিরাম সর্দারে’র সঙ্গে খেলতে চাই না। সেই রকম পার্টি দরকার, প্রতিপক্ষ দরকার। আন্দোলনের খেলাইতো পরাজিত হয়ে গেছেন, আর পারবেন না। আন্দোলনের বেলা চলে গেল।

বিএনপিকে নির্বাচনে আসার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনে মোকাবিলা হবে। আমাদের নেতাকর্মীরা প্রস্তুত, আপনারাও প্রস্তুত হোন। খালি মাঠে আমরা গোল দিতে চাই না, দুর্বল প্রতিপক্ষ চাই না। আসেন আপনারা শক্তিশালী প্রতিপক্ষ চাই, নির্বাচন ফেয়ার হবে।

ওবায়দুল কাদের যখন বক্তব্য শুরু করেন তখন তার পেছনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি ছাড়াও আরও বেশ কয়েকজন দাঁড়িয়ে ছিলেন। তা দেখে মেজাজ হারিয়ে কাদের বলেন, পেছনে এত লোক কেন দাঁড়িয়েছেন? আমাদের এত নেতার দরকার নেই। সরে যান। ছাত্রনেতারা এত বড় নেতা হয়ে গেছেন? তারা মঞ্চে কেন? এটা আওয়ামী লীগের মিটিং। আমি যখন ছাত্রলীগের সভাপতি, আওয়ামী লীগের মঞ্চ হতো বায়তুল মোকাররমের সামনে। আমি সভাপতি একদিনও মঞ্চে উঠতে পারিনি, বক্তৃতা তো দূরের কথা। তিনি বলেন, এখন আমার ছাত্র ভাইদের জ্বালায় মঞ্চ ভেঙে পড়ে। সব প্রাক্তন নেতা! ওয়ার্ড শাখার কোন সময় সেক্রেটারি ছিল, তিনিও এখন প্রাক্তন ছাত্রনেতা। সব মঞ্চে উঠছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এত সুন্দর পরিবেশ, হাজার হাজার শিক্ষার্থী। মঞ্চে এত ভিড়, ধারণ করতে পারেনি। আমাকে ক্ষতিগ্রস্ত করলেন। আমার পাঁচ পাঁচবার ড্রেসিং করতে হয়েছে। আমিতো সেটা বলিনি। এসব নিয়েই আওয়ামী লীগের সভা-সমাবেশে আমি যাচ্ছি। প্রতিদিন পার্টি অফিসে আসি। দল করলে দলের শৃঙ্খলা মানতে হবে।

ছাত্রলীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গত ৬ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপারজেয় বাংলার সামনে শোভাযাত্রাপূর্ব সমাবেশ করে সংগঠনটি। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন ওবায়দুল কাদের। তার বক্তব্য দেওয়ার সময় হঠাৎ করে মঞ্চ ভেঙে যায়। এতে ওবায়দুল কাদেরসহ বেশ কয়েকজন সাবেক ও বর্তমান ছাত্রনেতা আহত হন।

‘পাকিস্তান আমল ভালো ছিল’ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের ৬ মাস আমদানি করার রিজার্ভ আছে। পাকিস্তানে ৩ সপ্তাহের রিজার্ভও নেই। তিন সপ্তাহে আমদানি করতে পারে সেই টাকা তাদের রিজার্ভে নেই। আজকে ক্ষুধায় সমস্ত পাকিস্তান কাঁপছে। সেই পাকিস্তান আপনার ভালো লাগে। বাংলাদেশ বাংলাদেশ থাকবে। এই বাংলাদেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্ব ঘুরে দাঁড়াবে। কিন্তু আপনারা যদি ক্ষমতায় যান বাংলাদেশ আজকের পাকিস্তান হবে। ফখরুল সাহেবের পেয়ারের পাকিস্তান বাংলাদেশকে বানাবে আমরা সেটা হতে দেব না।

 দলের মধ্যে থেকে, সরকারের মধ্যে থেকে, দলের পরিচয় ব্যবহার করে চাঁদাবাজি, মাস্তানী, জমি দখল, এসব যারা করবে, মাদক ব্যবসা যারা করবে, যারা স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির সঙ্গে আছে তাদের আওয়ামী লীগ করার সুযোগ নেই বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

তারেক রহমানকে সন্ত্রাসী উল্লেখ করে বিএনপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, আপনাদের সন্ত্রাসী নেতাকে বাদ দিয়ে নতুন নেতৃত্ব খুঁজুন। কারণ আপনারা যাকে নেতা হিসেবে মানেন, সেই তারেক রহমান কোনো রাজনৈতিক নেতা নন। তার মধ্যে দুর্নীতি আর হত্যার রাজনীতি ছাড়া আর কিছু নেই। তিনি রাজনীতি করে আসেননি। সাবেক প্রধানমন্ত্রীর সন্তান হিসেবে রাজনীতির নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি সন্ত্রাসীর নেতা হতে পারেন, জনগণের নেতা হতে পারেননি।

সরকারে পতনের দাবিতে শনিবার পল্টনে সমাবেশ করে বিএনপি। একই দিন কামরাঙ্গীরচরে শান্তি সমাবেশ করে আওয়ামী লীগ। যদিও এটিকে পাল্টাপাল্টি বলতে রাজি নয় ক্ষমতাসীনরা। গত ১০ ডিসেম্বর থেকে বিএনপির কর্মসূচির দিন রাজধানীতে পৃথক কর্মসূচি দিচ্ছে আওয়ামী লীগ। দলটির নেতারা দাবি করছে জনগণের জানমাল রক্ষায় তারা মাঠে আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। 

গতকাল শনিবার ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা বিএনপির কোনো পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি দিচ্ছে না। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত তাদের কর্মসূচি চলমান থাকবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফীর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, কামরুল ইসলাম, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন প্রমুখ। শান্তি সমাবেশ পরিচালনা করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত