বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

পুলিশকে হারিয়ে অপেক্ষায় মেরিনার্স

মেরিনার্স ৪-২ পুলিশ

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১৫ পিএম

লিগ শিরোপা স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে বাংলাদেশ পুলিশের বিপক্ষে জয়ের বিকল্প ছিলো না। শুক্রবার মওলানা ভাসানী জাতীয় স্টেডিয়ামে সুপার লিগের শেষ ম্যাচে গতবারের চ্যাম্পিয়নরা জিতেছে ৪-২ গোলে। মাইনুল ইসলাম কৌশিকের জোড়া গোলে ম্যাচটা জিতে এখন অপেক্ষায় থাকছে মেরিনার্স।

তাদের ভাগ্য জড়িয়ে আছে চলতি মোহামেডান-আবাহনী ম্যাচে। এই দুই দল মাঠে নামার আগে পয়েন্ট তালিকায় মেরিনার্স ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে আছে সবার ওপরে। মোহামেডানের ৩৫ ও আবাহনীর ৩৪।

দুই চির শত্রুর শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটা ড্র হলে লিগ শিরোপা থেকে যাবে মেরিনার্সের ঘরে। মোহামেডান জিতলে তারাই হবে চ্যাম্পিয়ন। আর আবাহনী জিতলে তাদেরও হবে মেরিনার্সের সমান ৩৭। সেক্ষেত্রে নিয়ম অনুযায়ী হওয়ার কথা প্লে-অফ। তবে কথা বলে বোঝা গেছে দুদলেরই চাওয়া শিরোপা ভাগ করে নেওয়া।

এদিকে মাস্ট উইন ম্যাচে মেরিনার্স মাত্র ৩৭ সেকেন্ডে গোল হজম করে বসে। প্রথম পিসি থেকে পুলিশকে এগিয়ে নেন ভারতীয় গুরজৎ সিং। এরপর অবশ্য খোলস ছেড়ে বের হয়ে মেরিনার্স নেয় মাঠের নিয়ন্ত্রণ। অষ্টম মিনিটে কৌশিকের সুযোগ সন্ধানী গোলে সমতায় ফিরে মেরিনার্স। তার আগে তিনটি পিসি কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন সবুজ।

তবে ম্যাচের ১৯ মিনিটে রাজিন্দার সিং পিসি থেকে গোল করে মেরিনার্সকে এগিয়ে নেন। এরপর ২২ মিনিটে রিভার্স হিটে ৩-১ করেন কৌশিক। ২৭ মিনিটে পুলিশের দিপক প্যাটেল অবশ্য মেরিনার্স কিপার আবু সাঈদ নিপ্পনের ভুলে ফিল্ড গোল করে ব্যবধান কমিয়েছিলেন। তবে ৩৩ মিনিটে পেনাল্টি স্ট্রোক থেকে লক্ষ্যভেদ করে লিগে সর্বোচ্চ ৩৯তম গোলের দেখা পান সোহানুর রহমান সবুজ।

ম্যাচের বাকী সময় সবুজ অনেক চেষ্টা করেও আর পুলিশের পোস্টের দেখা পাননি। তাতে ২৯ বছর আগে ঊষার হয়ে রফিকুল ইসলাম কামালের ৪০ গোলের সুরক্ষিত থাকে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত