রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

৮ শিক্ষকের ৫ শিক্ষার্থী, পাস করেনি কেউ

আপডেট : ১২ মে ২০২৪, ১১:১৭ পিএম

এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলা পূর্ব সুখাতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীও পাস করেনি। ওই স্কুলের মোট পরীক্ষার্থী ছিল ৫জন। তাদের জন্য শিক্ষক রয়েছেন ৮জন। ফেলের বিষয়টি নিশ্চয়তা করেছেন সহকারী শিক্ষক আব্দুল ওহাব। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠার পর ২০১০ সালে জুনিয়র পর্যায়ের(অষ্টম শ্রেণি) পর্যন্ত এমপিওভুক্ত হয় প্রতিষ্ঠানটি। এরপর ২০১২ সালের পর থেকে নবম দশম শ্রেণির পাঠদান পরীক্ষামূলকভাবে চালু করে প্রতিষ্ঠানটি। গত বছরে এসএসসি পরীক্ষায় ৭ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করলে ৫ জন পাশ করে। বর্তমানে ওই প্রতিষ্ঠানটিতে ৬ষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত মোট ২০৬ জন শিক্ষার্থীর বিপরীতে প্রধান শিক্ষক সহ মোট শিক্ষক রয়েছেন ৮ জন। আগামী এসএসসি পরীক্ষার জন্য ৯ম শ্রেণিতে প্রায় ৩০ জন শিক্ষার্থী রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন করেছেন। 

সহকারী শিক্ষক আব্দুল ওহাব বলেন, শিক্ষার্থীদের বাল্যবিবাহ এবং করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় ফিরিয়ে আনতে বেগ পেতে হচ্ছে। তারপরও আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। ভবিষ্যতে যাতে এমনটা না হয় সেজন্য আমরা সচেতন থাকবো। 

এ বছর কুড়িগ্রাম জেলার ৯ টি উপজেলা থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় মোট ২২ হাজার ৪৫৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলো। এর মধ্যে পাশ করেছেন ১৬ হাজার ৪৫৫ জন। মোট পাশের হার ৭৩ দশমিক ২৮ শতাংশ। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১ হাজার ৩৯১ জন। 

কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শামছুল আলম বলেন, শতভাগ ফেলের বিষয়ে বলেন, এসব স্কুলের বেতন বন্ধ হওয়া দরকার। প্রধান শিক্ষকরা নিজেদের মতো করে প্রতিষ্ঠান চালায়। করোনা কাল শেষ হওয়ার ৩ বছর পরেও এসে করোনার দোহাই দেয়াটা অযৌক্তিক।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত