মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

‘নতুন বাপ্পী’ হয়ে চলচ্চিত্রে ফিরব

আপডেট : ১৩ মে ২০২৪, ০৮:২৭ এএম

২০১২ সালে ‘ভালোবাসার রঙ’ সিনেমা দিয়ে নিজের উজ্জ্বল উপস্থিতির জানান দিয়েছিলেন চিত্রনায়ক বাপ্পী। এরপর তাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ভক্তরা ভালোবেসে তাকে ডাকেন ‘সুলতান’ বলে। সদ্যপ্রয়াত হয়েছেন তার মা। মায়ের সঙ্গে স্মৃতি ও চলচ্চিত্র বিষয়ক আলাপনে বাপ্পীর মুখোমুখি হয়েছেন মাহতাব হোসেন  

মা দিবসে মা ছাড়া, নিশ্চয়ই কষ্টদায়ক ছিল?

হ্যাঁ, আসলে তেমনই। মা দিবসটা কেটে গেল বিষন্নতার সঙ্গে। মা ছাড়া প্রথম এমন একটি দিবস সামনে এলো। যেখানে সবাই মাকে নিয়ে কথা বলছেন, হাস্যোজ্জ্বল ছবি দিচ্ছেন। আমার মা নেই তাই এমন দিনে মাকে বেশি মনে পড়ছে এটাই স্বাভাবিক। খুব বিষন্ন লাগছে। মাকে ছাড়া আসলে সেভাবে থাকিনি তো। মায়ের সঙ্গেই আমি ঘুমাতাম। এখন বাবার সঙ্গে ঘুমাতে যাই।

মায়ের ভালোবাসা-শাসন মিস করেন?

কে করে না বলুন। শৈশবে মায়ের শাসনে বড় হয়েছি। কথা না শুনলে অন্যায় করলে মা আমাকে মারতেন। আবার মারতে মারতে তিনি নিজেই কাঁদতেন। মায়ের ভীষণ আদরে বড় হয়েছি। সত্যি বলতে মা চলে গেছেন, তার কাছ থেকে পেয়েছি একটি গুণ- ভালো মানুষ। তিনি আমাকে ভালো মানুষ বানিয়ে চলে গেছেন। মায়ের শেষ দিনগুলোতে সেই শৈশবগুলো ফিরে আসত। হাসপাতালের বিছানায় রাত জেগে থাকতাম। জেগে থাকতে থাকতেই ঘুমিয়ে পড়তাম। মাকে বলা থাকত যে আমাকে যেন ডেকে দেন। মা আমাকে ডাকতেন না। নিজেই বাথরুমে চলে যেতেন।

কদিন আগে সিনেমা ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন, কেন?

মা আমাকে নিয়ে অনেক আনন্দিত হয়েছিলেন। এলাকায় পাড়া-মহল্লায় যখন আমার পোস্টার দেখা যেত, সেটা অবশ্যই আনন্দের বিষয়। মা আমাকে নিয়ে গর্ব করতেন। কিন্তু একটা সময় এই চলচ্চিত্রই মাকে শঙ্কিত করে তুলত। মা বলতেন চলচ্চিত্র ছেড়ে দিতে। কারণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাকে নিয়ে নানা রকম গসিপ ছড়িয়ে পড়ত, মা এসব সহ্য করতে পারতেন না। একটা সময় মনে হয়েছিল চলচ্চিত্র ছেড়েই দেব। মা আমাকে বলতেন এসব বাদ দিয়ে অফিসে বস। তখন মনে হতো ছেড়ে দিতে হবে।

কী ধরনের গসিপ, আপনি কি সম্পর্কে ছিলেন না? 

বিভিন্ন নায়িকাদের নিয়ে গসিপ ছড়ানো হতো। কেউ কেউ তো আমাকে আবার বিয়ে করিয়ে দিয়েছিলেন। আমি নাকি বিয়ে করেছি, বিয়ে করলে কি আমার মায়ের সামনে বৌ আনতাম না? তারপর অন্য নায়িকাদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক করিয়ে দিত। অবশ্য এসব আমি বুঝতে পারতাম, কিন্তু মাকে কে বোঝাবে? এই ধরনের কেলেঙ্কারির ভয় করতেন মা। এসব আমার জন্য সহজ হলেও মায়ের জন্য সহজ ছিল না।

চলচ্চিত্রে ফেরা নিয়ে কী ভাবছেন?

দেখবেন ২০১৮ সালের নায়ক পর্যন্ত চলচ্চিত্র কিন্তু হিট। এরপর করোনা চলে এলো। সেই করোনা অনেক হিসাব বদলে দিল। অনেকটাই অনলাইনকেন্দ্রিক দুনিয়া তৈরি হয়ে এলো। আর আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় না। এতটা বুঝি না। ফলে আমি চলচ্চিত্র বলেন, যে কোনো মাধ্যমেই বলেন আমাকে ফিরতে হবে আমার সেই সম্মান নিয়ে। আমার সিনেমার পোস্টারে লেখা থাকত সুপারস্টার। এর মানেই আমি জানতাম না। তো আমাকে যারা পছন্দ করে তাদের কাছে তো আমাকে সেভাবেই হাজির হতে হবে। বাপ্পী আসবে। কিন্তু সেই বাপ্পী হবে একদম নতুন, অর্থাৎ বাপ্পীর ফেরাটা হবে একদম নতুনভাবে। আমি সে অপেক্ষাতেই আছি। 

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত