মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

সিরাজগঞ্জে পৌর মেয়রের ওপর হামলা, ছেলেসহ আহত ৫

আপডেট : ১৬ মে ২০২৪, ১১:৪৪ পিএম

সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে পৌর মেয়র সাজ্জাদুল হক রেজার ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দুপুর ২টার দিকে পৌর এলাকার আলহাজ সিদ্দিক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ হামলা হয়। এ সময় বেলকুচি পৌরসভার মেয়র ও তার চার বছরের শিশু সন্তান অস্তিত্ব হকসহ চারজন আহত হন। 

আহত অপর দুজন হলেন- বেলকুচি উপজেলার সংবাদপত্র এজেন্ট দৌলত মন্ডলের ছেলে নাবিল মন্ডল (৩০) ও মেয়রের অনুসারী মোস্তাফিজুর রহমান (৪০)। তাদের বেলকুচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ হামলার ছবি ফোনে ধারণ করতে গেলে দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার স্থানীয় প্রতিনিধি আবু মুসাকে পিটিয়ে আহত করা হয়। সেই সাথে তার ফোনটি ছিনিয়ে নেয় হামলাকারীরা। 

পুলিশ, আহত ব্যক্তি ও স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার স্থানীয় আলহাজ সিদ্দিক উচ্চ বিদ্যালয়ে রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের নিরীক্ষা দল নিরীক্ষা করতে এসেছিলেন। বেলকুচি পৌরসভার মেয়র সাজ্জাদুল হক ওই বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি হওয়ায় নিরীক্ষাকালে তিনি তার শিশু সন্তান অস্তিত্বকে কোলে করে নিয়ে বিদ্যালয়ে নিরীক্ষক দলের সাথে দেখা করতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে দুপুর ২টার দিকে বিদ্যালয়ের কার্যালয় থেকে বের হয়ে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন।

এ সময় স্থানীয় সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মোমিন মন্ডলের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) সেলিম সরকারের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বিদ্যালয়ের মাঠের মধ্যেই মেয়রের পথরোধ করে ও তার ওপর এলোপাতাড়ি হামলা চালায়। মেয়র দ্রুত তার ছেলেকে কোলে নিয়ে মোটরসাইকেল থেকে নেমে মাঠের মধ্যে দাঁড়িয়ে পড়েন। হামলাকারীদের এলোপাতাড়ি আঘাতে শিশুটি ছিটকে তার কোল থেকে মাঠে পড়ে যায়। পাশ থেকে মেয়রের দুই অনুসারী ঠেকাতে এলে তাদেরকে লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে তারা। খবর পেয়ে বেলকুচি থানা থেকে পুলিশ আসলে হামলাকারীরা দ্রুত পালিয়ে যায়। 

মেয়র সাজ্জাদুল হক বলেন, জাতীয় নির্বাচনের পর থেকে সংসদ সদস্য আবদুল মোমিন মন্ডলের অনুসারী বেলকুচি পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাফিজুল ইসলাম, ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জুলফিকার আহম্মেদ শিপন, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ইউসুফ আলী শেখ ও এমপির পিএস সেলিম সরকার আমাকে নানাভাবে ভয়ভীতি ও হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। সম্প্রতি উপজেলা নির্বাচনের পর থেকে সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে তারা আমাকে হত্যার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

সিরাজগঞ্জের পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মন্ডল বলেন, বিষয়টি আমরা জেনেছি। এই ঘটনার সাথে যারাই জড়িত থাকুক তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত