বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ক্যাম্পাসে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করবেন উপাচার্যরাও

আপডেট : ১৬ জুন ২০২৪, ০১:৫২ পিএম

আগামীকাল রোববার সারা দেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। নাড়ির টানে দলে দলে বাড়ি ফিরে গেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তবে জীবনের নানা সমীকরণে, স্বপ্ন পূরণের তাগিদে কেউ কেউ থেকে গেছেন চিরচেনা ক্যাম্পাসে। তবে শুধু শিক্ষার্থীরা নয় বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরাও ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করবেন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করতে ক্যাম্পাসেই থাকছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. নুরুল আলম , রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহেরসহ বিভিন্ন ক্যাম্পাসের উপাচার্যরা। তারা প্রত্যেকেই নিজ ক্যাম্পাসের ঈদের জামাতে অংশ নেবেন এবং গরু কোরবানি দিবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে উপাচার্যকে সার্বক্ষণিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থাকতে হবে বলে নিয়োগ প্রদানকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনেও বলা হবে। ঈদের সময়ও সেটিই মেনে চলেন বেশিরভাগ উপাচার্য। নিজেদের নির্ধারিত বাংলোতে ঈদ উদযাপন করেন তারা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করবেন। নামাজ শেষে ক্যাম্পাসে অবস্থানরত শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন এবং গরু কোরবানি দিবেন। দেশ রূপান্তরকে তিনি বলেন, ঈদুল ফিতরেও আমি ক্যাম্পাসে ঈদ উদযাপন করেছি। এবারও থাকছি, কোরবানির জন্য প্রস্তুতিও নিয়েছি। বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট, ডিন, চেয়ারম্যানসহ অনেক শিক্ষকও ক্যাম্পাসে ঈদ উদযাপন করবেন। সবার সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করব।

ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে উপাচার্য বলেন, ঈদ সব মানুষের জন্য আনন্দ উৎসবের বার্তা বয়ে নিয়ে আসে। এই উৎসব-আনন্দে তাদের নিজ নিজ ইতিহাস-ঐতিহ্য ও বিশ্বাস মূর্ত হয়ে উঠে। ত্যাগের মহিমায় উজ্জীবিত হয়ে আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে ঈদ-উল-আজহা সবার জীবন আনন্দে পরিপূর্ণ করে তুলবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছি।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের দেশ রূপান্তরকে বলেন, গত ঈদের ন্যায় এবারও ক্যাম্পাসেই ঈদ উদযাপন করব। শিক্ষকদের নিয়ে একসঙ্গে কোরবানি দিব। ক্যাম্পাসে ঈদ পালনের আনন্দই অন্যরকম। ক্যাম্পাসে অনেক শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীও থাকবেন। তাদের সঙ্গেও ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নেব। এরপর সন্ধ্যায় কিংবা পরের দিন বাড়িতে যেতে পারি।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার দেশ রূপান্তরকে বলেন, এই ক্যাম্পাসেই আমার বাড়ি। বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা থাকবেন তাদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করব। শুধু এবার নয় প্রায় প্রত্যেকবার আমি ক্যাম্পাসেই ঈদ উদযাপন করি। বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তিনি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. অধ্যাপক মো. নূরুল আলমও বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই ঈদ উদযাপন করবেন বলে জানা গেছে।

তবে এর বাইরে কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা নিজ বাড়িতে ঈদ উদযাপন করবেন, কেউ করবেন ঢাকায় পরিবারের সঙ্গে। তেমনি একজন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বদরুজ্জামান ভূঁইয়া। তবে ঢাকায় ঈদ উদযাপন করে বিকেলেই ক্যাম্পাসে অবস্থানরত শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে যাবেন বলে দেশ রূপান্তরকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন,   বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে এটি আমার প্রথম ঈদ। ইচ্ছে ছিল ক্যাম্পাসেই করার কিন্তু বাস্তবতার জন্য পরিবারের সঙ্গে ঢাকায় করব। তবে বিকেলে ক্যাম্পাসে যাওয়ার পরিকল্পনা আছে।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত