রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

ন্যাটো সম্মেলনে বাইডেনের ‘বাঁচা-মরার প্রশ্ন’

আপডেট : ০৯ জুলাই ২০২৪, ০৫:০০ পিএম

আধুনিক আমেরিকার ইতিহাসে নির্বাচনী বিতর্কে সবচেয়ে খারাপ পারফরমেন্স করার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এখন ঘরোয়া এবং বৈশ্বিক রাজনীতিতে টিকে থাকার লড়াই করছেন। এরই মধ্যে আজ ওয়াশিংটন ডিসিতে শুরু হচ্ছে ন্যাটো শীর্ষ সম্মেলন। 

বাইডেন বলেছেন তিনি সামরিক প্রতিরক্ষা জোট ন্যাটোর ৭৫তম বার্ষিকীতে আয়োজিত এই সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার সক্ষমতা ও দক্ষতার প্রমাণ রাখবেন। তাই এই সম্মেলন বাইডেনের কাছে বাঁচা-মরার প্রশ্ন হয়ে উঠেছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, আজ থেকে ওয়াশিংটনে শুরু হতে যাচ্ছে ন্যাটো সম্মেলন। বিশ্লেষকদের মতে, নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে এই সম্মেলন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জন্য এক অগ্নিপরীক্ষা। এই সম্মেলনে নেতাদের মূল লক্ষ্য রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে ইউক্রেনকে সমর্থন দেওয়া অব্যাহত রাখার কৌশল খুঁজে পাওয়া। তবে এই সম্মেলনের আয়োজক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন একে দেখছেন আরও চার বছর প্রেসিডেন্ট পদে থাকার যোগ্যতা প্রমাণের সুযোগ হিসেবে।

তবে ন্যাটো নিয়ে তেমন উচ্ছ্বসিত নন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ও সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্প আবার ক্ষমতায় এলে কী হতে পারে, সেটা ন্যাটোর এই সম্মেলনে অন্যতম আলোচনার বিষয়। পাশাপাশি, জো বাইডেন তার নির্বাচনী প্রচারণাকে নবজীবন দিতে এই সম্মেলনকে কাজে লাগাতে চাইছেন। 

বিশ্লেষকদের মতে, ২৭ জুন ট্রাম্পের সঙ্গে সিএনএনে প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেটে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়েছেন বাইডেন। যা তার প্রচারণায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে এবং ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিসেবে 'বুড়ো' বাইডেনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

বাইডেন বলেছেন তিনি সামরিক প্রতিরক্ষা জোট ন্যাটোর ৭৫তম বার্ষিকীতে আয়োজিত এই সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার সক্ষমতা ও দক্ষতার প্রমাণ রাখবেন। তিনি আরও বলেন, ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রাশিয়ার যুদ্ধ শুরুর পর তিনিই দ্রুততম সময়ে ন্যাটোর মিত্রদের সমন্বিত করে কিয়েভের সমর্থনে এগিয়ে যাওয়া নিশ্চিত করেন। তিনি এ বিষয়টিকে তার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও আরও চার বছর যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতায় থাকার যুক্তি হিসেবে উপস্থাপন করেছেন।

সোমবার এমএসএনবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাইডেন বলেন, আমাদের মিত্ররা মার্কিন নেতৃত্বের দিকে তাকিয়ে আছে। আমি ছাড়া আর কে এটা করতে পারতো? আমি ন্যাটোর সম্প্রসারণ করেছি। আমি ন্যাটোকে স্থায়িত্ব দিয়েছি। আমি নিশ্চিত করেছি যেন এমন একটি জোট টিকে থাকে, যেখানে সদস্য রাষ্ট্রগুলো একাত্ম হয়ে চীন-রাশিয়াসহ বিশ্বের যেকোনো শক্তির মোকাবিলা করতে পারে। আমরা প্রকৃত উন্নয়নের পথেই আছি। 

মার্কিন পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের ছয় ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতা প্রকাশ্যে বাইডেনকে নির্বাচনী দৌড় থেকে সরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। অন্যান্য আইনপ্রণেতারাও অন্য কোনো যোগ্য প্রার্থীকে জায়গা ছেড়ে দেওয়ার জন্য ব্যক্তিগতভাবে বাইডেনকে অনুরোধ করেছেন। বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ দাতাও বাইডেনকে নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন।

এ কারণে হোয়াইট হাউস ন্যাটো সম্মেলনকে ঘিরে বিভিন্ন আয়োজনের মধ্য দিয়ে দ্বিধান্বিত ডেমোক্র্যাট নেতাকর্মীদের কাছে বাইডেনের সক্ষমতা প্রমাণের চেষ্টা করবে। এ সময় বাইডেন বেশ কয়েকটি আনুষ্ঠানিক ও অনির্ধারিত বৈঠকে অংশ নেবেন। পাশাপাশি কূটনীতিবিদদের সঙ্গে নৈশভোজ, সংবর্ধনা ও সম্মেলনের সমাপনী সংবাদ সম্মেলনেও দেখা যাবে বাইডেনকে।

কিন্তু তথ্য যা দেখায়, তাতে বাইডেন সবদিক থেকেই তার প্রতি সমর্থন হারিয়েছেন এবং নভেম্বরে তার পরাজয় ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে উঠছে। জরিপগুলো তথ্যমতে, আমেরিকানদের প্রায় তিন-চতুর্থাংশ  এবং বেশিরভাগ ডেমোক্র্যাট মনে করেন বাইডেনের পদত্যাগ করা উচিত। কংগ্রেসের অর্ধডজন ডেমোক্র্যাটিক সদস্য তাকে তার অবস্থান থেকে সরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন, আর অন্যরা তাকে দ্ব্যর্থহীন সমর্থনের প্রস্তাব দিয়েছেন।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত