রোববার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

আলিসের হ্যাটট্রিকে রংপুরকে হারাল ঢাকা

আপডেট : ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ০৬:৪১ পিএম

বিপিএলে নিজের অভিষেক ম্যাচে সবাইকে অবাক করলেন ঢাকা ডায়নামাইটসের স্পিনার আলিস আল ইসলাম। উইকেট নেওয়ায় করেছেন হ্যাটট্রিক! তার স্পিন বিষে নীল রংপুর রাইডার্স। রোমাঞ্চকর ম্যাচে জয়ের খুব কাছে গিয়েও ঢাকার কাছে হারল তারা।

শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুক্রবার বিপিএল টি-টোয়েন্টির প্রথম ম্যাচে রংপুরকে ২ রানে হারায় ঢাকা। দলটির করা ৯ উইকেটে ১৮৩ রানের জবাবে ৯ উইকেটে ১৮১ রানে থামে রংপুরের রানের চাকা।

এই নিয়ে চলতি আসরে এখন পর্যন্ত তিন ম্যাচ খেলে তিনটিতেই জয় পেল ঢাকা। ৬ পয়েন্ট নিয়ে উঠে এসেছে টেবিলের শীর্ষে। পক্ষান্তরে ৪ ম্যাচে দুই জয় ও দুই হারে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার রংপুরের পয়েন্ট ৪।

জয়ের জন্য ১৮৪ রানের জবাবে ২৫ রানের মধ্যেই দুই ওপেনার ক্রিস গেইল ও মেহেদি মারুফকে হারালেও খেই হারায়নি রংপুর। তৃতীয় উইকেট অসাধারণ এক জুটি গড়েন রাইলি রুশো ও মোহাম্মদ মিথুন। এই জুটিতেই স্বপ্ন দেখছিল রংপুর।

এরমধ্যে বোলিংয়ে আসেন ঢাকার এক আনকোড়া অফস্পিনার আলিস আল ইসলাম। রুশোকে উইকেট ছাড়া করে ফাটল ধরান ১২৫ রানের জুটিতে। উইকেট ছাড়ার আগে ৪৪ বলে আট চার ও চার ছক্কায় ৮৩ রান করেন দক্ষিণ আফ্রিকার এই ব্যাটসম্যান।

রংপুরের রান তখন ৩ উইকেটে ১৪৬। আর তিন রান পেতেই রবি বোপারা সাকিবের বলে নারিনের হাতে ক্যাট দিলে চতুর্থ উইকেট হারায় রংপুর। তখনও জয় দেখছিল মাশরাফির দল। হাতে ৬ উইকেট। ১৮ বলে দরকার ২৬ রান।

জ্বলে উঠলেন অফস্পিনার আলিস। অষ্টাদশ ওভারের শেষ তিন বলে উইকেট ছাড়া করেন মিঠুন, মাশরাফি ও ফরহাদ রেজাকে উইকেট ছাড়া করে হ্যাটট্রিকের দেখা পান ২২ বছর বয়সী এই বোলার।

image

চার উইকেট নিতে আলিস চার ওভারে দিয়েছেন ২৬ রান। দুই উইকেট নিয়েছেন নারিন। একটি করে উইকেট আন্ড্রে রাসেল, শুভাগত হোম ও সাকিবের।

এর আগে ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৮৩ রানের সংগ্রহ পায় ঢাকা। শুরুটা আশাব্যঞ্জক ছিল না তাদের। সোহাগ গাজী ও মাশরাফির বোলিংয়ের সামনে দলীয় ৩৩ রানেই টপ-অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ফেলে দলটি।

দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছানোর আগেই উইকেট ছাড়া হন ফর্মে থাকা দুই ওপেনার হযরতউল্লাহ জাজাই ও নারিন। ব্যাটে ঝড় তুলতে চাইছিলেন তিন নম্বরে নামা রনি তালুকদার। তা হতে দিলেন সোহাগ। ৮ বলে ১৮ করা এই ব্যাটারকে নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন এই স্পিনার।

রয়েসয়ে ব্যাট চালিয়েছেন অধিনায়ক সাকিব। মিজানুর রহমানের সঙ্গে গড়েন ৩১ রানের জুটি। দলীয় ৬৪ রানে ১৫ করা মিজানুর বেনি হাওয়েলের বলে আউট হলে চতুর্থ উইকেট হারায় ঢাকা।

উইকেটে আসেন পোলার্ড। ছক্কা-চারে মুহূর্তেই পাল্টে দেন দৃশ্যপট। পঞ্চম উইকেটে সাকিবের সঙ্গে গড়েন ৭৮ রানের কার্যকরী এক জুটি। দলীয় ১৪২ রানে হাওয়েলের বলে ডিপ মিডউইকেটে মেহেদি মারুফের হাতে ক্যাচ দেন পোলার্ড। এর আগে ২৬ বলে পাঁচ চার ও চার ছক্কায় ৬২ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটার।

ফরহাদ রেজার বলে কট বিহাইন্ড হন অনেক্ষণ উইকেটের একপ্রান্ত আগলে রাখা সাকিব। এর আগে ৩৭ বলে চার চারে ৩৬ রান করেন এই অলরাউন্ডার। শেষ দিকে ঢাকার রানের গতি টেনে ধরেন রংপুরের পেসার শফিউল ইসলাম।

এর মাঝেও তাণ্ডব চালাতে চেষ্টা করেছেন ঢাকার আরেক ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান আন্ড্রে রাসেল। শফিউলে বলে বোল্ড হওয়ার আগে ১৩ বলে তিন ছক্কায় করেন ২৩ রান।

রংপুরের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল শফিউল। চার ওভারে ৩৫ রানে তিনটি উইকেট নেন ডানহাতি এই পেসার। দুটি করে উইকেট নেন সোহাগ গাজী ও হাওয়েল। একটি করে উইকেট মাশরাফি ও ফরহাদের।

ম্যাচ সেরা হয়েছেন ঢাকার আলিস আল ইসলাম।

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত