রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
দেশ রূপান্তর

দুই দশক শাকসু নির্বাচন নেই ফি বেড়েছে ৮ দফা

আপডেট : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০১:৪৩ এএম

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (শাকসু) কার্যক্রম নেই দীর্ঘ দুই দশক। ১৯৯৭ সালের পর নির্বাচন না হলেও ছাত্র সংসদের জন্য নির্ধারিত ফি নেওয়া বন্ধ হয়নি। ২০০০ সালের সাড়ে ৩৭ টাকার ফি ৮ দফায় বেড়ে এখন দাঁড়িয়েছে একশ টাকায়। সম্প্রতি ডাকসু নির্বাচনের তোড়জোড় শুরু হওয়ার পর শাকসু সচলের দাবিতে সরব হয়ে

উঠেছে ছাত্র সংগঠনগুলো। ছাত্রনেতারা বলছেন, অবিলম্বে শাকসু সচলের উদ্যোগ না নিলে কঠোর আন্দোলনে যাবেন তারা। ছাত্রলীগ, ছাত্রদলসহ সব সংগঠনই ছাত্র সংসদ কার্যকরের পক্ষে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে, শাকসু নির্বাচনের ব্যাপারে তারা ইতিবাচক। সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করেই আগামী দিনে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবি) কর্র্তৃপক্ষ জানায়, ১৯৯৩ সালে এখানে ছাত্র সংসদ চালু হয়। সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল ১৯৯৭ সালের ২৫ আগস্ট। এরপর সারা দেশের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো শাবিতেও ছাত্র সংসদের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধের প্রথম কয়েক বছর বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন শাকসু নির্বাচনের দাবিতে সোচ্চার থাকলেও পরবর্তী সময়ে বিষয়টি থমকে যায়। শাবি প্রশাসনিক দপ্তর থেকে জানা যায়, ছাত্র সংসদ অচল থাকলেও ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এজন্য ১০০ টাকা করে ফি নেওয়া হয়েছে। গত ২২ বছর ধরে এটি চলছে। ২০০০ সালে এ ফি ছিল সাড়ে ৩৭ টাকা। পরে দফায় দফায় বেড়ে তা এখন ১০০ টাকা।

ছাত্র সংসদের জন্য নেওয়া টাকার ব্যাপারে জানতে চাইলে শাবির ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক রাশেদ তালুকদার দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ছাত্রদের বিভিন্ন প্রয়োজনে বা তাদের অনুষ্ঠানেই এই টাকা ব্যয় করা হয়।’

উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘আমরা শাকসু সচল করার ব্যাপারে ইতিবাচক। এর আগে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে আলাপ করব। আলোচনার সাফল্যের ওপর নির্ভর করবে কবে নির্বাচন হবে।’

সর্বশেষ সর্বাধিক পঠিত আলোচিত